ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’র তাণ্ডবে চার জনের মৃত্যু

 
 

সিসি ডেস্ক, ১০ নভেম্বর।। ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’র তাণ্ডবে বরগুনা, পটুয়াখালী ও খুলনায় ঘর এবং গাছচাপা পড়ে নারীসহ চার জনের মৃত্যু হয়েছে।

রবিবার (১০ নভেম্বর) ভোর রাত ও সকালে ঝড়ের সময় এ ঘটনা ঘটে। শনিবার (৯ নভেম্বর) দিবাগত রাত থেকে এ সব জেলায় ঘূর্ণিঝড়ের তাণ্ডব শুরু হয়।

নিহতরা হলেন-পটুয়াখালীর মির্জাগ‌ঞ্জের উত্তর রামপুরা গ্রা‌মের হামেদ ফকির (৬০), খুলনার দাকোপ উপজেলার দক্ষিণ দাকোপ গ্রামের সুভাষ মণ্ডলের স্ত্রী প্রমিলা মণ্ডল (৫২) ও খুলনার দিঘুলিয়া উপজেলার সেনহাটি গ্রামের আলমগীর হোসেন (৩৫)।বরগুনা সদর উপজেলার ডিএন কলেজ আশ্রয়কেন্দ্রে হালিমা খাতুন (৬৫) নামে এক বৃদ্ধা মারা গেছেন। তার বাড়ি সদর উপজেলার বানাই গ্রামে।

মির্জাগঞ্জ থানার ওসি শওকত আনোয়ার হামেদ ফকির মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে পটুয়াখালীর কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে কয়েকটি দোকান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। পাশাপাশি রাঙ্গাবালী উপজেলার চালিতাবুনিয়ায় ভাঙা বাঁধ দিয়ে জোয়ারের পানি ঢুকে ফসলি জমি প্লাবিত হয়েছে।

অপরদিকে খুলনার দাকোপ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আবদুল ওয়াদুদ জানান, রাতে প্রমীলা দক্ষিণ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কাম সাইক্লোন শেল্টারে ছিলেন। সকাল ৯টা-সাড়ে ৯টার দিকে নিজের বাড়িতে যান তিনি। সেসময় একটি গাছ তার ওপরে পড়লে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

এদিকে দিঘুলিয়া থানার ওসি মঞ্জুর মোর্শেদ জানান, দিঘুলিয়া উপজেলার সেনহাটি গ্রামে সকাল ৯টার দিকে বাসার পাশে অবস্থান করছিলেন আলমগীর হোসেন। এসময় একটি সজনে গাছ ভেঙে তার ওপরে পড়লে আহত হন তিনি। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে প্রথমে দিঘুলিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে খুলনা মেডিকেল কলেজ (খুমেক) হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।

তিনি আরো জানান, একই গ্রামে গাছ পড়ে আবদুর রহমান নামে এক ব্যক্তি আহত হয়েছেন।

Print Friendly, PDF & Email