‘বুলবুল’ তাণ্ডবে ১৪ জনের প্রাণহানি

 
 

সিসি ডেস্ক, ১১ নভেম্বর।। ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের তাণ্ডবে এ পর্যন্ত ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে খুলনায় ২ জন, বাগেরহাটে ২ জন, পটুয়াখালী ১ জন, পিরোজপুরে ১ জন, মাদারীপুরে ১ জন, ভোলায় ১ জন, সাতক্ষীরায় ১ জন, শরীয়তপুরে ১ জন, বরিশালে ১ জন, গোপালগঞ্জে ১ জন ও বরগুনায় ২ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

এছাড়া ঝড়ে কয়েক হাজার ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে, কয়েকটি স্থানে বাঁধ ভেঙে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে এবং বিপুলসংখ্যক গাছ উপড়ে পড়েছে। তবে রবিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত জেলাগুলোতে খোঁজ নিয়ে ১৪ জনের মৃত্যুর খবর সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

পটুয়াখালী : ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে পটুয়াখালীতে ৩ জন নিহত ও ১২ জন আহতের খবর পাওয়া গেছে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে দেড় হাজার ঘরবাড়ি, ২৫ হাজার হেক্টর জমির আমনসহ শীতকালীন সবজি, দুই কিলোমিটার বেড়িবাঁধ।

স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে দুই থেকে তিন ফুট উচ্চতার জোয়ারে পটুয়াখালী শহরসহ জেলার অন্তত চল্লিশটি গ্রাম ও চরাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, জেলার মির্জাগঞ্জের উত্তর রামপুরা গ্রামে ঘরের ওপর গাছ চাপা পড়ে হামেদ ফকির (৬৫) নামে একজনের মৃত্যু হয়েছে। কালাপাড়ার পূর্ব ধানখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় আশ্রয় কেন্দ্রে সুফিয়া বেগম (৬৫) নামে একজন নিহত হয়েছে।

এর আগে ঘূর্ণিঝড়ের সংবাদে গভীর সমুদ্র থেকে তীরে ফেরার পথে শুক্রবার প্রবল ঢেউয়ের তোড়ে ট্রলার থেকে পড়ে বেলাল (৪০) নামের এক জেলে নিহত হয়। শনিবার দুপুরে কুয়াকাটা ঝাউবাগান এলাকায় সি বিচ থেকে তার মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

খুলনা : ঝড়ো বাতাসে গাছ ভেঙে খুলনায় অন্তত দুজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। এদের একজন উপকূলীয় দাকোপ উপজেলার প্রমিলা মন্ডল (৫২)। অন্যজন দিঘলিয়া উপজেলায় আলমগীর মিস্ত্রী (৩৫)।

রবিবার সকাল ১০টার দিকে দক্ষিণ দাকোপে গাছ চাপায় এ নারীর মৃত্যু ঘটে। একই দিন সকাল সাড়ে ১০টায় দিঘলিয়া উপজেলার সেনহাটি ইউনিয়নের ৯নং কাতানিপাড়া গ্রামে আলমগীর মিস্ত্রী গাছ চাপায় নিহত হন।

বরগুনা : বরগুনা সদর উপজেলার একটি আশ্রয়কেন্দ্রে হালিমা খাতুন নামে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’র কারণে তিনি উপজেলার এম বালিয়াতলী ইউনিয়নের ডিএল কলেজ আশ্রয়কেন্দ্রে আশ্রয় নিয়েছিলেন। শনিবার রাতে তার মৃত্যু হয়।

বরগুনা সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আনিচুর রহমান এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, হালিমা খাতুন নামের ওই নারী অসুস্থতার কারণে মারা গেছেন।

এদিকে বরগুনার ৬টি উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় গাছপালা উপড়ে পড়েছে। বৈদ্যুতিক তার ছিঁড়ে এবং খুঁটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে বিভিন্ন এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহও বিঘ্নিত হয়েছে। তাছাড়া বরগুনায় ৬৪ মাঝি-মাল্লাসহ ৭টি মাছধরার ট্রলার নিখোঁজের খবর পাওয়া গেছে।

সাতক্ষীরা: সাতক্ষীরার শ্যামনগরে একজন বৃদ্ধ নিহত হয়েছেন। তবে প্রশাসন ব‌লে‌ছে তি‌নি অসুস্থতায় মারা গেছেন। ঘূর্ণিঝড়ে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এই জেলা। এখানে কয়েক হাজার বাড়িঘর এবং সহস্রাধিক গাছপালা ভেঙে গেছে।

বাগেরহাট: ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে গাছ ভেঙে বা‌গেরহা‌ট রামপালের উজলকুড় ইউনিয়নের গাছ চাপায় সা‌মিয়া খাতুন (১৫) নামের এক‌টি মে‌য়ের প্রাণহা‌নি ঘ‌টে‌ছে। বাগেরহাটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সা‌র্বিক) কামরুল ইসলাম এ তথ্য নি‌শ্চিত করেন।

পিরোজপুর : ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের তাণ্ডবে পিরোজপুরে দুজন নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে নাজিরপুরে বসতঘরের ওপর গাছ উপড়ে পড়ায় নিচে চাপা পড়ে ননী গোপাল মণ্ডল (৬৫) নামে এক বৃদ্ধ নিহত হয়েছেন। অপর এক স্থানে একই কারণে হাত-পা ভেঙে গুরুতর আহত হয়েছে সুমী (৮) ও নাসির (১৬) নামে দুই শিশু। এছাড়া ভাণ্ডারিয়া উপজেলায় এক শিশু পানিতে ডুবে মারা গেছে।

বরিশাল : ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের তাণ্ডবে ঘরের ওপর গাছ উপড়ে পড়ায় নিচে চাপা পড়ে বরিশালে আশালতা মজুমদার (৬৫) নামে এক বৃদ্ধা নিহত হয়েছেন। রবিবার দুপুর আড়াইটার দিকে বরিশালের উজিরপুর পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডের দক্ষিণ মাদারশী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

গোপালগঞ্জ: গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলায় ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের তাণ্ডবে শতাধিক ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। হাজার হাজার গাছপালা উপড়ে গেছে। ঝড়ের সময় গাছ চাপা পড়ে সেকেল হাওলাদার (৭০) নামে এক বৃদ্ধ নিহত হয়েছেন। নিহত সেকেল হাওলাদার উপজেলার বান্ধাবাড়ি গ্রামের মৃত হাসান উদ্দিন হাওলাদারের ছেলে।

শরীয়তপুর: শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলায় ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের তাণ্ডবে ভেঙে পড়া গাছ চাপায় মো. আলীবক্স ছৈয়াল (৬৮) নামে এক বৃদ্ধ নিহত হয়েছেন। রবিবার দুপুর আড়াইটার দিকে উপজেলার ডিঙ্গামানিক ইউনিয়নের দেওজুড়ি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

মাদারীপুর: রবিবার বিকেলে মাদারীপুর সদর উপজেলার ঘটমাঝি গ্রামে ঝড়ো হাওয়ায় ঘরের চাল পড়ে সালেহা বেগম (৪৪) নামে এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে। সালেহা বেগম ওই গ্রামের আজিজ খানের স্ত্রী।

উৎস: বিবার্তা

Print Friendly, PDF & Email