• শনিবার, ০৮ অগাস্ট ২০২০, ০৭:০৬ অপরাহ্ন |

নওগাঁয় আমন ধান কাটা মাড়াই শুরু: দাম নিয়ে শঙ্কা

Red Chilli Saidpur

আশরাফুল নয়ন, নওগাঁ ।। নওগাঁয় শুরু হয়েছে আমন ধান কাটা মাড়াই। সোনালী ফসল ঘরে উঠাতে ব্যস্ত কৃষক-কৃষানী। আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় গত বছরের মতো এবারও আমনের ফলন ভালো হচ্ছে। সরকার ২৬ টাকা কেজি দরে আগাম ধান কেনার ঘোষনা দিলেও বাজারে দাম নিয়ে শঙ্কায় রয়েছে।
কৃষকরা বলছেন, বাজারে কৃষি উপকরণের দাম বেশি হওয়ায় ফসল উৎপাদন করতে খরচ কিছুটা বেশি পড়ছে। উপকরণের দাম কম হলে উৎপাদনে খরচ কমবে। ধানের ন্যায্য দাম পেলে খরচ মিটিয়ে লাভবান হবেন তারা।
উত্তরাঞ্চলের মধ্যে খাদ্য উদ্বৃত্ত জেলা নওগাঁ। বর্ষা মৌসুমে বৃষ্টির উপর নির্ভর করে আমন ধান চাষবাদ করা হয়ে থাকে। ফলে বোরো আবাদের চেয়ে তুলনামুলক আমনের আবাদের খরচ কম হয়ে থাকে। জেলার মাঠে মাঠে দোল খাচ্ছে সোনালী ফসল। যেদিকে চোখ যায় শুধু ধান আর ধান। গত সপ্তাহ থেকে সর্বত্রই আমন ধান কাটা মাড়াই শুরু হয়েছে। আনন্দের সাথে কৃষকরা ধান কাটা-মাড়াই শুরু করেছেন। আবহাওয়া ভাল থাকায় মাড়াইয়ের আগে কাটা ধান জমিতে শুকানো হচ্ছে। ধান গোলায় উঠাতে ব্যস্ত সময় পার করছেন তারা। আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় গত বছরের ন্যায় এ বছরও ফলন হচ্ছে বেশ। বিঘা প্রতি প্রায় ১৮-২২ মন হারে ফলন হচ্ছে। ফলন ভালো হলেও কৃষকরা বাজারে ভাল দাম পাওয়া নিয়ে শঙ্কায় রয়েছেন।

জেলার বদলগাছী উপজেলার মথুরাপুর গ্রামের আবু বক্কর সিদ্দিক বলেন, দুই বিঘা জমিতে স্বর্ণা ৫ জাতের ধানের আবাদ করেছেন। জমি লাগানো থেকে শুরু করে সার, ঔষধ ও কাটা মাড়াই করে ধান ঘরে উঠাতে প্রায় ৮-৯ হাজার টাকার মতো খরচ হয়ে থাকে। এবছর ফলনও ভাল হয়েছে। বিঘা প্রতি প্রায় ১৮-২২ মণ হারে ফলন হচ্ছে। হাটে-বাজারে নতুন ধান ৫৫০-৬০০ টাকা মণ দরে বিক্রি হচ্ছে। দাম ৮০০ টাকা মণের নিচে দাম হলে তেমন কিছুই থাকবে না। তবে ন্যায্যমূল্য পেলে আবাদের খরচ মিটিয়ে কিছু টাকা ঘরে যাবে।
একই গ্রামের কৃষক সাইদুর রহমান ও উৎপল কুমার বলেন, প্রথমে কারেন্ট পোকার আক্রমন দেখা দিলেও কীটনাশক প্রয়োগে রক্ষা পায়। ফলন মোটামুটি ভাল হয়েছে। তবে উৎপাদন খরচ বেশি পড়ছে। ধান উৎপাদনে উপকরনের দাম কমলে আমাদের কিছুটা হলেও লাভ থাকবে। সরকার ২৬ টাকা কেজি দরে আগাম ধান কেনার ঘোষণাতে খুশি। তবে খোলা বাজারে দাম নিয়ে দুশ্চিন্তায় রয়েছি। গত বোরো মৌসুমে আমরা ৩-৪ হাজার টাকার মতো ক্ষতিতে পড়েছিলাম।
নওগাঁ জেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো: সিরাজুল ইসলাম বলেন, চলতি রোপা-আমন মৌসুমে জেলায় প্রায় ১ লাখ ৯৭ হাজার হেক্টর জমিতে আবাদ করা হয়েছিল। যেখান প্রতি হেক্টরে ৩ মেট্রিন টন হিসেবে প্রায় ৬ লাখ মেট্রিক টন চাউল সংগ্রহ হবে বলা আশা করা হচ্ছে।
ইতোমধ্যে আগাম ধান কাটা-মাড়াই শুরু হয়েছে। এ বছর বড় ধরনের কোন প্রাকৃতিক দূর্যোগ না হওয়ায় ফলন ভালো হয়েছে। প্রথম দিকে বাদামি ঘাস ফড়িংয়ের (কারেন্ট পোকার) আক্রমণ দেখা দিলেও পরবর্তীতে তেমন প্রাদুর্ভাব দেখা যায়নি। কৃষকরা ভালো ফলন পাবেন বলে আশা করা যাচ্ছে।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

আর্কাইভ