• রবিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ০৭:৩৭ পূর্বাহ্ন |

দিন বদলের প্রাথমিক শিক্ষা ও বর্তমান হালচাল

Red Chilli Saidpur

।। শিবলী বেগম ।। শিশুর শারীরিক, মানসিক, নৈতিক ও আধ্যাত্মিক বিকাশ সাধনের জন্য এবং তাকে সুস্থ্য, সুন্দর ও সৎ মানুষ হিসেবে সমাজে গড়ে তুলতে হলে খেলাধুলা ও সংস্কৃতি চর্চার বিকল্প নেই। লেখাপড়া শিখে একটি শিশু যেমন সমাজে শিক্ষিত হিসেবে পরিচিতি লাভ করে তেমনি খেলাধুলার মাধ্যমে সে সুস্থ্য ও সুঠাম দেহের অধিকারী হয়। অনুরুপভাবে সংস্কৃতি চর্চার মাধ্যমে তার কোমল মনে দেশপ্রেম ও ভ্রাতৃত্ববোধ গড়ে উঠে। এ লক্ষ্যকে সামনে রেখে আমাদের সরকার প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে নানামূখী পদক্ষেপ গ্রহন করেছেন। তারই ধারাবাহিকতায় প্রতিবছর আন্তঃ প্রাথমিক বিদ্যালয় ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগীতা, জাতীয় শিশু কিশোর পুরষ্কার প্রতিযোগীতা, বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্নামেন্ট এবং বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিব গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের আয়োজন করে আসছেন। এছাড়াও শিক্ষার্থীদের সংস্কৃতি চর্চা ও সৃজনশীলতা এবং দেশাত্ববোধে উদ্বুদ্ধ করার লক্ষ্যে নেয়া হয়েছে নানা মূখী পদক্ষেপ। ইতোমধ্যে বিজয়ফুল উৎসব প্রতিযোগীতা, জাতীয় সংগীত প্রতিযোগীতা, পহেলা বৈশাখ উদযাপন, বিভিন্ন জাতীয় দিবস উদযাপনের নানা কর্মসূচীর আয়োজন করা হচ্ছে।
শিশুকে সামাজিকভাবে গড়ে তুলতে হলে তার মানবিক বিকাশ সাধন করা অপরিহার্য। নৈতিক ও আধ্যাত্মিক বিকাশ সাধনের মাধ্যমেই একটি শিশু পরিপূর্ণতা লাভ করে। বর্তমান প্রেক্ষাপটে দেখা যাচ্ছে, কর্মব্যস্ততার যুগে অনেক ক্ষেত্রেই শিশুরা পরিবারের কাছে সময় কম পায়। সে কারণে সমাজে নানা অবক্ষয় দেখা যাচ্ছে। খুব অল্প বয়সেই অনেক শিশু বিপদগামি হচ্ছে। বিভিন্ন ধরনের অপরাধের সঙ্গে লিপ্ত হচ্ছে। সামাজিক এই অবক্ষয় সমাজের সবার জন্য হুমকি স্বরুপ। আমরা জানি, আজকের কোমলমতি শিশুরাই আগামী পৃথিবীর ভবিষ্যৎ। তাদের হাতেই সূচীত হবে সোনার বাংলাদেশ। যে সোনার বাংলার স্বপ্ন দেখেছিলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। যে সোনার বাংলার স্বপ্ন দেখেন তাঁরই সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা। সে সকল কোমলমতি শিশুদের সামাজিক অবক্ষয়ের হাত থেকে রক্ষার লক্ষ্যে বর্তমান সরকার প্রতিটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শুদ্ধাচার চর্চা কৌশলের উপর বিশেষ গুরুত্বারোপ করেছেন। এ কারনে বিদ্যালয়গুলোতে শুদ্ধাচার চর্চা কৌশল করানো হচেছ, যা তাদের আর্দশ ও সু-শৃঙ্খল মানুষ হিসেবে গড়ে উঠতে সাহায্য করবে।
শিশুদের ভবিষ্যৎ জীবনে নেতৃত্বদানে পটু করে গড়ে তোলার লক্ষ্যে প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে (৩য় থেকে ৫ম) শ্রেণির শিক্ষার্থীদের নিয়ে প্রতি বছর স্টুডেন্ট কাউন্সিল গঠনে নির্বাচনের আয়োজন করা হয়। এ নির্বাচনে শিক্ষার্থীরা উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট প্রয়োগের মাধ্যমে গনতন্ত্র চর্চার সুযোগ পেয়ে থাকে এবং সাতজন শিক্ষার্থী নিয়ে গঠিত হয় মন্ত্রী পরিষদ তথা স্টুডেন্ট কাউন্সিল । পরবর্তীতে বিদ্যালয়ের নানা উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডে এরা সহায়ক ভূমিকা পালন করে আসছে। যা তাদের আর্দশ নেতা হিসেবে গড়ে উঠতে যেমন সহায়তা করে তেমনি উন্নত জীবনের স্বপ্ন দর্শনে উদ্বুদ্ধ করে। তাছাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের (৩য় -৫ম) শ্রেণির শিক্ষার্থীদের নিয়ে কাব-স্কাউট দল গঠিত। কাব স্কাউট সদস্যরা বিভিন্ন কর্মসূচী বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে একজন সৎ, সুঠাম, সুন্দর ও সু-শৃঙ্খল মানুষ হিসেবে সমাজে পরিচিতি লাভ করে। ইতোমধ্যে মেয়ে শিক্ষার্থীদের নিয়ে বিদ্যালয়গুলোতে হলদে পাখির দল গঠিত হয়েছে। এর মাধ্যমে মেয়ে শিক্ষার্থীরা আত্মবিশ্বাসী হিসেবে সমাজে বেড়ে উঠছে।
শিক্ষার গুনগত মান উন্নয়নের পথে শিশুর শারীরিক ও মানসিক বিকাশ যেন অন্তরায় হয়ে না দাঁড়ায়, সে লক্ষ্যে প্রতিবছর প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে বিনামূল্যে বিতরণ করা হয় কৃমিনাশক ট্যাবলেট এবং প্রতি তিন মাস অন্তর অন্তর ওজন, উচ্চতা ও দৃষ্টি পরীক্ষা করা হয় প্রতিটি শিক্ষার্থীদের। এ কাজে শিশুরা যাতে স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহন করে এবং আত্মবিশ্বাসী হতে পারে তাই প্রতিটি বিদ্যালয়ে ১৫ জন শিক্ষার্থীদের নিয়ে গঠিত হয়েছে ক্ষুদে ডাক্তারের দল।
প্রতিটি শিশু হবে সৎ ও সুন্দর। তাদের চরিত্র বিকশিত হবে পবিত্র ফুলের মত। নৈতিকতার দিক থেকে সে হবে আর্দশবান, সৎ ও নিষ্ঠাবান। এটি আমাদের সকলের কাম্য। আমরা সকলে চাই, আমার সন্তান হোক নিষ্পাপ, পবিত্র। কোন অন্যায়ের মাঝে সে যেন বড় না হয়। কোন অপরাধ যেন তাকে স্পর্শ না করতে পারে। কোন অন্ধকার যেন তার মনকে আচ্ছাদিত করতে না পারে। তার জন্য দরকার ছোট বেলা থেকে তার বেড়ে উঠার পরিবেশটিকে পবিত্র রাখা। শিশুর সম্পূর্ন বিকাশ সাধন হয় তার শিক্ষাস্থলে। এ লক্ষ্যকে সামনে রেখে প্রতিটি বিদ্যালয়ে চালু করা হয়েছে, ’’সততা স্টোর’’ । এটি এমন একটি দোকান যেখানে শিশুর সকল প্রকার শিক্ষা উপকরণ দ্বারা সজ্জিত থাকে এবং থাকে একটি ক্যাশবাক্স। যে দোকানে থাকে না কোন দোকানদার, প্রতিটি পণ্যের মূল্য কাগজে লেখা থাকে। মূল্য দেখে শিক্ষার্থীরা তাদের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কেনে এবং ক্যাশ বাক্সে টাকা জমা করে। এ যেন সৎ মানুষ গড়ার এক অবিশ্বাস্য পদক্ষেপ।
শিশুদের নিয়মিত খোঁজ খবর রাখা এবং অভিভাবকদের সঙ্গে সু-সর্ম্পক স্থাপনের লক্ষ্যে প্রতিমাসে শিক্ষার্থীদের বাড়ি গিয়ে হোম ভিজিট করা হয়। এছাড়া মোবাইল ভিজিট, উঠান বৈঠক, মা সমাবেশ, অভিভাবক সমাবেশের মধ্য দিয়ে বিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবক, গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ এবং উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সম্পৃক্ত করা হয়ে থাকে। মান সম্মত শিক্ষা কার্যক্রম বাস্তবায়নের লক্ষ্যে বিদ্যালয়ে ৩ বছরের জন্য গঠন করা হয় বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটি, গঠন করা হয় শিক্ষক-অভিভাবক কমিটি এবং সামাজিক মূল্যায়ন কমিটি। এছাড়া বিদ্যালয় গুলোর ভৌত অবকাঠামোগুলোর সমস্যা নিরসনের লক্ষ্যে বিভিন্ন পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করছে সরকার। প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে নিয়োগ দেয়া হচ্ছে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত শিক্ষক-শিক্ষিকাবৃন্দকে। শিক্ষার মান উন্নয়নে শিক্ষকদের নানা সময়ে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। বই উৎসরের মধ্য দিয়ে বছরের প্রথম দিন শিক্ষার্থীদের হাতে বিনামূল্যে নতুন বই তুলে দেয়া হচ্ছে। এছাড়াও রয়েছে মিড ডে মিল কার্যক্রম। শতভাগ উপবৃত্তি প্রদান, দারিদ্রপীড়িত এলাকায় বিস্কুট প্রোগ্রাম ইত্যাদি। ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে শ্রেণি কক্ষে স্থাপন করা হয়েছে মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টর। বিশ্বের উন্নত দেশগুলোর আদলে প্রণয়ন করা হয়েছে প্রাক-প্রাথমিক কারিকুলাম ও সু-সজ্জিত শ্রেণিকক্ষ। যেখানে লেখাপড়া, খেলাধুলা ও বিনোদনের মাধ্যমে ৫ বছর বয়সি শিশুদের বিকাশ সাধন করা হয়। এভাবে সকল প্রকার প্রতিকুলতা ও প্রতিবন্ধকতাকে পেছনে ফেলে এগিয়ে যাচ্ছে আমাদের প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থা। প্রাথমিক শিক্ষার ভবিষ্যৎ আরও সুন্দর ও সুদূর প্রসারী হোক, এই প্রত্যাশা আমাদের সকলের।

শিবলী বেগম, প্রধান শিক্ষক, ডাংগারহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সৈয়দপুর, নীলফামারী।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য বন্ধ আছে।

আর্কাইভ