বিরামপুরে পতিত জমিতে চাষীরা কলা চাষ করছেন

 
 

মাহমুদুল হক মানিক, বিরামপুর ।। দিনাজপুরের বিরামপুর উপজেলায় যে সকল জমিতে ধান আবাদ হয়না, ঐ সকল পতিত জমিতে চাষীরা এখন বিভিন্ন জাতের কলা চাষ করছেন। দাম ভালো পাওয়াই কৃষকের মুখে ফুটছে হাসির ঝিলিক।
কারন হিসাবে তারা বলছেন, রবিশস্য হয় না জমিগুলো পতিত থাকে সে সব জমিতে চাষীরা কলা চাষ করছেন। কলা চাষ করে ভাল লাভ হয়,একবার লাগালে ২/৩বার কলা পাওয়া য়ায, ১ একর জমিতে ৩ শতাধিক কলা চারা লাগাতে ৩০ হাজার টাকা খরচ হয়। লাভ হয় দেড় থেকে দু লাখ টাকা। বিভিন্ন জাতের কলা বিশেষ করে চিনি চম্পা,সবরী কলায় কীট নাশক কম লাগে, কলার মগজ বের হওয়ার সাথে সাথে পলিথিন ব্যাগ কাদিতে ঢুকিয়ে রাখলে কোন প্রকার ঔষুধ লাগেনা।
বেনুপুরের মোঃ ইবনে মুরাদ বলেন, বাড়ির পাশে পুকুর পাড়ে কলা লাগাই, কোন ঔষুধ ছাড়াই ভালো ফলন পাই। হরিদাসপুর গ্রামের চাষী হাসনুর রহমান জানান, ৫০ শতক জমিতে কলা চাষ করে লাভ দু লাখ টাকা।
বিরামপুর উপজেলা কৃষি অফিসার নিকছন চন্দ্র পাল জানান, এবার এ উপজেলায় দু’শ জন চাষী প্রায় ২০ হেক্টর জমিতে কলা চাষ করেন। কলা চাষীদের যেকোন সহযোগিতা করার জন্য আমরা প্রস্তুত আছি ।

বিরামপুরে বিনামূল্যে চক্ষু শিবির
বিরামপুর উপজেলার প্রত্যন্ত গ্রামের রোগিদের জন্য শনিবার কেটরা উচ্চ বিদ্যালয়ে বিনামূল্যে চক্ষু শিবিরের আয়োজর করা হয়।
পল্লী কর্ম-সহায়ক ফাউন্ডেশনের অর্থায়নে গ্রাম বিকাশ কেন্দ্রের সমৃদ্ধি কর্মসূচির আওতায় সৈয়দপুর মরিয়ম চক্ষু হাসপাতালের কারিগরী সহযোগিতায় দিনব্যাপী ২ শতাধিক রোগির চক্ষু পরীক্ষা ও চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হয়। তাদের মধ্যে ২০ জনকে ছানি অপারেশনের জন্য নির্বাচিত করা হয়।

সকালে চক্ষু শিবিরের উদ্বোধন করেন, জোতবানী ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক, গ্রাম বিকাশের সমৃদ্ধি কর্মসূচির সমন্বয়কারী গোলাম নবী, স্বাস্থ্য কর্মকর্তা শাহীন আলম ও সামিউল বাসির। চিকিৎসা সেবা প্রদান করেন, ডাঃ সাফিউল হাসান সাকিব, ডাঃ ইবনে ফয়সাল মুরাদ ও নিলুফা ইয়াছমিন।

Print Friendly, PDF & Email