বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব শুরু

 
 

সিসি ডেস্ক, ১০ জানুয়ারী।। টঙ্গীর তুরাগ নদীর তীরে বাদ ফজর আম বয়ানের মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে ৫৫তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব। পাকিস্তানের মাওলানা খুরশিদ আলম এ বয়ান করেন।

ইজতেমায় অংশ নিতে বুধবার থেকেই ময়দানে আসতে শুরু করেন মুসল্লিরা। বৃহস্পতিবার দুপুর না গড়াতেই ভরে যায় ময়দান। এরপরও আসতে থাকেন মুসল্লিরা। আজ জুমার নামাজে মুসল্লির ঢল নামবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। জুমার নামাজে ইমামতি করবেন কাকরাইল মসজিদের পেশ ইমাম হাফিজ মাওলানা মুহাম্মদ জুবায়ের আহমেদ।

ইজতেমাকে ঘিরে তিন স্তরের বহুমাত্রিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। হেলিকপ্টার ও ড্রোনের মাধ্যমে আকাশপথে সার্বক্ষণিক নজরদারি থাকবে। নদে ব্যবহার হবে স্পিডবোট।

বৃহস্পতিবার (৯ জানুয়ারি) দুপুরে রাজধানীর কারওয়ানবাজারে র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে সংস্থার মহাপরিচালক (ডিজি) বেনজীর আহমদ এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, এবার কোনো নিরাপত্তা ঝুঁকি নেই। এরপরও ইজতেমা এলাকায় জঙ্গি-সন্ত্রাসী কার্যক্রমসহ যে কোনো ধরনের সমস্যা মোকাবেলায় আমরা প্রস্তুত রয়েছি।

বেনজীর আহমেদ বলেন, ইজতেমার শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পোশাকধারী র্যাব সদস্যের পাশাপাশি পর্যাপ্ত সংখ্যক সাদা পোশাকের সদস্যরা নিয়োজিত থাকবেন। র‌্যাবের বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট, সুইপিং টিম ও ডগ স্কোয়াড প্রস্তুত থাকবে। পুরো ময়দান সিসিটিভি ক্যামেরার মাধ্যমে মনিটরিং করা হবে। বাইরে চেকপোস্টে মুসল্লি ও যানবাহন তল্লাশি করা হবে।

প্রথম পর্বে খিত্তাভিত্তিক অবস্থান: গাজীপুর (খিত্তা-১), টঙ্গী (২, ৩ ও ৪), ঢাকা (৫-১৯ ও ২৪-২৫, ২৭-২৯, ৩২), রাজশাহী (২০), নওগাঁ (২১), নাটোর (২২), চাঁপাইনবাবগঞ্জ (২৩), সিরাজগঞ্জ (২৬), টাঙ্গাইল (৩০), নড়াইল (৩১), রংপুর (৩৩), নীলফামারী (৩৪), কুড়িগ্রাম (৩৫), লালমনিরহাট (৩৬), গাইবান্ধা (৩৭), মুন্সীগঞ্জ (৩৮), মাগুরা (৩৯), ঝিনাইদহ (৪০), বগুড়া (৪১), নারায়ণগঞ্জ (৪২), ফরিদপুর (৪৩), যশোর (৪৪), সাতক্ষীরা (৪৫), বাগেরহাট (৪৬), নরসিংদী (৪৭), ভোলা (৪৮), জামালপুর (৪৯), ময়মনসিংহ (৫০-৫১), মেহেরপুর (৫২), চুয়াডাঙ্গা (৫৩), নেত্রকোনা (৫৪), কিশোরগঞ্জ (৫৫), গোপালগঞ্জ (৫৬), বরিশাল (৫৭), রাজবাড়ী (৫৮), শেরপুর (৫৯), শরীয়তপুর (৬০), মাদারীপুর (৬১), সিলেট (৬২), কক্সবাজার (৬৩), রাঙ্গামাটি (তুরাগ নদের পশ্চিমপাড়) (৬৪), খাগড়াছড়ি (তুরাগ নদের পশ্চিমপাড়) (৬৫), সুন্দরবন (৬৬), ফেনী (৬৭), নোয়াখালী (৬৮), লক্ষ্মীপুর (৬৯), চঁাদপুর (৭০), ব্রাহ্মণবাড়িয়া (৭১), খুলনা (৭২), পটুয়াখালী (৭৩), বরগুনা (৭৪), চট্টগ্রাম (৭৫), কুমিল্লা (৭৬), পিরোজপুর (৭৭), ঝালকাঠি (৭৮), সুনামগঞ্জ (৭৯), হবিগঞ্জ (৮০), মেৌলভীবাজার (৮১), পাবনা (৮২), ঠাকুরগঁাও (৮৩), পঞ্চগড় (৮৪), দিনাজপুর (৮৫), জয়পুরহাট (৮৬), কুষ্টিয়া (৮৭)। রাঙ্গামাটি, খাগড়াছড়ি, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, সুনামগঞ্জ, হবিগঞ্জ, মেৌলভীবাজার, পাবনা, ঠাকুরগাঁও, পঞ্চগড়, দিনাজপুরের খিত্তাগুলোর অবস্থান তুরাগ নদের পশ্চিম পাড়ে।

Print Friendly, PDF & Email