• সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ০৯:৪৬ অপরাহ্ন |

কোথায় হারালো সোনালী শৈশব?

Red Chilli Saidpur

খুরশিদ জামান কাকন ।। আজও চোখ বুঝলে মনে পড়ে ফেলে আসা সেই শৈশবের দিনগুলোর কথা। কতোইনা মধুর ছিলো হারানো সেই দিনগুলো। এখনো মাঝেমাঝে নিজের অজানতেই সেই দিনগুলোতে ফিরে যেতে বড্ড ইচ্ছে হয়। আমরা যারা দুই হাজার সালের কিছু আগে বা পরে জন্মেছি তারাই যথাসম্ভব শেষ প্রজন্ম গ্রাম্য আবহে স্মৃতিমধুর এক সোনালী শৈশব পেয়েছি। তাই আমরা নিজেদেরকে বর্তমান প্রজন্মের থেকে অনেক ভাগ্যবান বলেও মনে করতে পারি। আমাদের সময় ছিলোনা এতো আধুনিকতার ছোয়া। জীবনযাত্রার মানও খুব একটা উন্নত ছিলোনা। ছিলোনা ইন্টারনেট। ছিলোনা ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ। ছিলোনা মোবাইল ফোনের সহজলভ্যতা। তারপরও আমরা আমাদের শৈশব নিয়ে গর্ব করতে পারি। কারণ আমরাই গত শতাব্দীর শেষ প্রজন্ম যারা বলার মতো একটা শৈশবের সাক্ষী হয়েছি।
তখন ছিলোনা একক পরিবারের ব্যাপকতা। সর্বত্রই বিরাজ ছিলো যৌথ পরিবারের। তাই আমাদের স্নেহের কোন কমতি ছিলোনা। সবার কোলেপিঠে আমাদের ছেলেবেলা ছিলো আল্লাদে আটখানা। আমরা দলবেঁধে এপাড়া ওপাড়ায় ঘুরতাম। পুকুরে গোসল করতাম। একে অপরের সাথে কাদামাটি ছুড়াছুঁড়ি করতাম। অল্প পানিতে মাছ ধরতাম। লাটিম ঘুরাতাম। নীল আকাশে ঘুড়ি উড়াতাম। বেয়ারিংয়ের গাড়ি বানিয়ে গোটা পাড়া চষে বেড়াতাম। মাটির মার্বেল বানিয়ে আগুনে পুরতাম। রেললাইনে পেরেক চাপা দিয়ে চাকু বানাতাম।
আমরা ছিলাম অনেক বেশি চঞ্চল। ঘরে বন্দি থাকতাম না। বিকেল হলেই সবাই মাঠে দলবদ্ধ হতাম। তখন মাঠের অভাব ছিলোনা। এখনকার মতো এতো ঘনবসতি ছিলোনা। তাই আমাদের খেলার জায়গার অভাব ছিলোনা। আমরা বেশিরভাগ সময় গোল্লাছুট, গাদল ও বৌচি খেলতাম। আবার কখনো কখনো ছোটবড় সবাই মিলে লুকোচুরি খেলায় মেতে থাকতাম। এছাড়াও সময়-সুযোগ বেধে ডাংগুলি, বউ-জামাই, বাঁদর ঝোলা, দড়ি লাফ, কানামাছি, সুপারিপাতার গাড়ি, খোলাবাড়ি, মোরগ লড়াই, কুতকুত, চোর-পুলিশ, টায়ার খেলা সহ মজার মজার নানান খেলায় সুমধুর দিন কাটাতাম।
শৈশবের চরম দুরন্তপনায় আমরা যখন যা খুশি করতাম। মাঝেমধ্যেই সবাই একত্রিত হয়ে ভুরকা ভাতের আয়োজন করতাম। প্রত্যেকের বাড়ি থেকে চাল আর ডিম সংগ্রহ করতাম। বড়রা রান্না উঠাতো, আর ছোটরা আমরা খড়কুটো জোগাড় করে আনতাম। রান্না শেষে সবাই একসঙ্গে কলাপাতায় ভুরকা ভাতের স্বাদ নিতাম। আমরাই সেই প্রজন্ম যারা এক টাকায় চারটি চকলেট কিনেছি। এক টাকার আইসক্রিম কিনে খেয়েছি। ভাঙরি বিক্রি করে কটকটি খেয়েছি। কলম খেলায় স্কুলের ব্রেঞ্চ কাপিয়েছি। কাচা বাশের ভুট্টূক বানিয়ে খেলা করেছি। গাছের মগডালে দাপড়িয়ে বেরিয়েছি। কলাগাছের ভেলা বানিয়ে নদীতে ভেসে বেরিয়েছি। রাতের আধারে হারিকেন জ্বালিয়ে বই পড়তে বসেছি।
আমাদের শৈশবটা ছিলো স্মৃতিমধুর। কোনকিছুর কমতি ছিলোনা। গ্রাম্য আবহে শৈশবের পুরোটাই আমরা সানন্দে কাটিয়েছি। সময়ের সাথে সাথে নৈতিকতা আর সামাজিক মূল্যবোধ শিখেছি। সমাজের সাথে পুরোপুরি খাপ খাইয়ে নিতে পেরেছি। কিন্তু এখনকার শিশুদের দিন কাটে আবদ্ধ ঘরে। টেলিভিশনে কার্টুন দেখে, মোবাইলে গেমস খেলে। এরফলে একদিকে তাদের মধ্যে তৈরি হচ্ছে একঘেয়েমিতা। অন্যদিকে বাড়ছে স্বাস্থঝুকির প্রবণতা। শিশুরা এখন বাইরের জগতের সাথে পরিচয় হওয়ার খুব একটা সুযোগ পায়না। একারনে তাদের মনোজগৎ বিকাশে বিঘ্ন সৃষ্টি হচ্ছে। শিশুরা সোনালী শৈশবের উদ্দীপনায় বড় হওয়ার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। তাইতো এখনকার শিশুদের জন্য বড্ড আফসোস হয়। তাদের জন্য আমাদের ফেলে আসা সোনালী শৈশব এনে দিতে সাধ জাগে। কিন্তু তা কি আদৌ সম্ভব?


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য বন্ধ আছে।

আর্কাইভ