• শনিবার, ২৩ মে ২০২০, ০১:৩২ পূর্বাহ্ন |

বিজয়মুকুট পরে ঘরে ফিরেছে আকবর

Red Chilli Saidpur

সিসি নিউজ, ১৩ ফেব্রুয়ারী।। বিশ্বকাপের বিজয়মুকুট পরে ঘরে ফিরেছে আকবর আলী। বৃহস্পতিবার টাইগার যুব অধিনায়ককে বরণ করে নিতে ঘাটতি ছিল না রংপুরবাসীরও।

সাউথ আফ্রিকা থেকে ট্রফি নিয়ে বুধবার বিকেলে দেশে ফেরেন আকবর ও সতীর্থরা। বিমানবন্দরে ফুলেল স্বাগতম, হোম অব ক্রিকেটে লাল গালিচা সংবর্ধনা আর সন্ধ্যাভর বিসিবির নানা আয়োজন শেষে ঢাকায় রাত কাটিয়ে বৃহস্পতিবার ঘরের ছেলে ঘরে ফিরলেন।

আকবর বরণে সকাল থেকেই সৈয়দপুর বিমানবন্দরে ছিল ভক্ত-ক্রিকেট অনুরাগীদের উপচে পড়া ভিড়। একসময় অপেক্ষার প্রহর শেষে আগমন তাকে বহনকারী বিমানের।

সৈয়দপুর থেকে দিনাজপুর-রংপুর মহাসড়কের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে ক্রিকেট অনুরাগীদের ফুলেল শুভেচ্ছায় সিক্ত হতে হতে রংপুরে পা রাখেন আকবর। জন্মশহরে পৌঁছে পাবলিক লাইব্রেরী মাঠে জেলা প্রশাসন ও জেলা ক্রীড়াসংস্থার আয়োজনে গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যোগ দেন বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট দলের দলপতি।

ইয়াং টাইগার অধিনায়কের প্রত্যাশা আগামীতে জাতীয় দলের হয়েও বিশ্বজয় করার। বললেন, ‘আপনারা যেভাবে সমর্থন দিচ্ছেন, সেভাবেই সমর্থন দিবেন। দোয়া করবেন যেন এভাবেই আরও অনেক সাফল্য আসে।’

এলাকার কৃতি সন্তানের এমন সাফল্যে বাঁধভাঙা আনন্দে ভাসছে রংপুরবাসী, স্থানীয় প্রশাসনসহ বিভিন্ন সংগঠন। আকবরের হাত ধরে আগামীতে জাতীয় ক্রিকেট দল বিশ্বজয় করবে, প্রত্যাশা সকলের।

সাউথ আফ্রিকার পচেফস্ট্রুমে গত রোববার ভারতের যুব দলকে ৩ উইকেটে হারিয়ে দেশের ইতিহাসের প্রথম কোনো বিশ্বকাপ জয়ের ট্রফি উঁচিয়ে ধরেন আকবর আলী। তারপর থেকেই প্রশংসার বন্যায় ভাসছে টাইগার যুবারা।

বিশ্বজয়ের পর আকবরের এটাই তার প্রথম নিজ জেলায় সফর। তার শৈশব-কৈশোরের স্বর্ণালি দিনগুলো কেটেছে এই রংপুর শহরের পশ্চিম জুম্মাপাড়া মহল্লায়। আকবর শুরুতে মাদরাসায় ভর্তি হলেও পরে বাড়ির পাশে বেগম রোকেয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে ৫ম শ্রেণি পর্যন্ত লেখাপড়া করে নগরীর লায়ন্স স্কুল অ্যান্ড কলেজে ভর্তি হন। ক্লাস সিক্সে উঠে রংপুরের অসীম মেমোরিয়াল ক্রিকেট একাডেমিতে ভর্তি হন। সেখানে অঞ্জন সরকারের হাত ধরে রংপুর জিলা স্কুলের মাঠে তার ক্রিকেটের সত্যিকারের হাতেখড়িটাও হয়ে যায়। ২০১২ সালে বিকেএসপিতে সুযোগ পান। এরপর শুধুই এগিয়ে যাওয়ার গল্প তৈরি করে আকবর।
বিকেএসপির বয়সভিত্তিক দলে খেলে সুযোগ পেয়ে যান জাতীয় অনূর্ধ্ব-১৭ দলে। নেতৃত্ব দেওয়ার অভিজ্ঞতাও হতে থাকে সমানতালে।
শুধু ক্রিকেট নিয়েই অবশ্য পড়ে থাকেননি আকবর। পড়াশোনাটাও দারুণভাবে করেছেন তিনি। ২০১৬ সালে তার এসএসসি পরীক্ষার সময় চলছিল প্রথম বিভাগ ক্রিকেট লিগ। তখন খেলা ও লেখাপড়া দুটিই সামলেছেন দারুণ মনোযোগে। এসএসসিতে জিপিএ-৫ পান তিনি। এইচএসসিতে জিপিএ ৪.৪২।

সবকিছুতে ভালো করার ধারাবাহিকতায় এবার বাংলাদেশ যুবদলের নেতৃত্বের ভার তার কাঁধে। দক্ষিণ আফ্রিকার আইসিসি অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে নেতৃত্বের ভার সামলে চমক দেখালেন আকবর আলী।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

আর্কাইভ