• রবিবার, ০৫ জুলাই ২০২০, ০২:১৫ অপরাহ্ন |

বসন্ত ভালোবাসায় একাকার আজ

Red Chilli Saidpur

সিসি ডেস্ক।। ‘ফুল ফুটুক আর না ফুটুক/আজ বসন্ত।’ হ্যাঁ, আজ পহেলা ফাল্গুন, বসন্তের প্রথম দিন। শুধু তা-ই নয়, আজ বিশ্ব ভালোবাসা দিবসও। ভালোবাসা আর বসন্ত মিলে আজ উৎসবে মাতোয়ারা থাকবে পুরো দেশ।

শীতের জরাজীর্ণতা কাটিয়ে রুক্ষ প্রকৃতি ফুলে ফুলে ঋদ্ধ হয়ে ওঠে বসন্তের আগমনে। ফাগুনের ঝিরঝিরে বাতাসে কোকিলের মিষ্টি কলতানে উন্মাতাল হয়ে ওঠে প্রকৃতি। ফুলেল বসন্তের সঙ্গে ভালোবাসা দিবসের আনন্দ আর উচ্ছাস মুখরতায় মন-প্রাণ ভরে উঠবে আজ।

প্রতি বছর ১৩ ফেব্রুয়ারী পহেলা ফাগুন বা বসন্তের শুরু হলেও এবার পহেলা বসন্ত ও ভালোবাসা দিবস একই দিন উদযাপিত হচ্ছে। তবে গতকাল বৃহস্পতিবারই অনেককে বাসন্তি সাজে দেখা গেছে রাজধানীতে। এদিন উৎসবের আমেজ ছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিসহ বিপণি বিতানগুলোয়।

আজকের ভ্যালেন্টাইনস ডে বা ভালোবাসা দিবসের পেছনে রয়েছে আত্মদানের গল্প। এনসাইক্লোপিডিয়ার তথ্যানুযায়ী, রোমান সম্রাট দ্বিতীয় ক্লডিয়াস সেনাবাহিনীতে লোকবল বাড়াচ্ছিলেন। এরই একপর্যায়ে তিনি ঘোষণা দেন, কোনো যুবক আর বিয়ে করতে পারবেন না। এ অদ্ভুত ঘোষণার বিরোধিতা করে সন্তু ভ্যালেন্টাইন গোপনে যুবকদের বিয়ের আয়োজন চালিয়ে যেতে লাগলেন। একসময় ধরা পড়ে গেলেন তিনি এবং নিক্ষিপ্ত হলেন কারাগারে। এর মধ্যে ভ্যালেন্টাইন মনে মনে ভালোবেসে ফেলেছেন কারারক্ষীর মেয়েটিকে। এর কিছুদিন পর ১৪ ফেব্রুয়ারী সম্রাটের নির্দেশে ভ্যালেন্টাইনের শিরচ্ছেদ করা হয়। কথিত আছে, ওই দিনই প্রথম তিনি মেয়েটিকে এক চিঠিতে জানান তার ভালোবাসার কথা। চিঠির নিচে লেখেন, ‘ইতি, তোমারই ভ্যালেন্টাইন’। এর পর ৪৯৬ সালে পোপ সেন্ট জেলাসিও প্রথম জুলিয়াস ভ্যালেন্টাইনের স্মরণে ‘ভ্যালেন্টাইন দিবস’ ঘোষণা করেন।

প্রায় ১৭০০ বছর আগে ঘটে যাওয়া এ দিনটিকে ইউরোপে পরিচিত করে তোলেন জিওফ্রে চসার চতুর্দশ শতকে। ধীরে ধীরে এর ব্যাপ্তি ইউরোপের বিভিন্ন দেশ ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ছাড়িয়ে পৌঁছে চীন, জাপান, ভারত ও বাংলাদেশের মতো এশিয়ার বিভিন্ন দেশে। বাংলাদেশে এ দিনটিতে ফুলের চাহিদা ব্যাপকভাবে বেড়ে যায়। একজন অন্যজনকে ফুল, কার্ড কিংবা চকোলেট দিয়ে শুভেচ্ছা জানান। সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো নানা আনন্দ আয়োজনের উদ্যোগ নেয়।

আর ১৪০১ বঙ্গাব্দে প্রথম ‘বসন্ত উৎসব’ উদযাপনের রীতি চালু হয়। সেই থেকে প্রতিবছর জাতীয় বসন্ত উৎসব উদযাপন পরিষদ বসন্ত উৎসব আয়োজন করে আসছে। রাজধানীতে এ বছরের বসন্ত উৎসবের অনুষ্ঠানমালা আরও ব্যাপকতা লাভ করেছে।

প্রকৃতির মতোই বাঙালি জীবনের শিল্প-সাহিত্য, এমনকি রাজনীতিতেও বসন্ত খুবই তাৎপর্যময়। এ বসন্তেই ভাষা আন্দোলনের মধ্য দিয়ে বাঙালির স্বাধীনতার বীজ রোপিত হয়েছিল। মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের শুরুও এ বসন্তেই। বসন্তের আগমনবার্তা নিয়ে আসে একুশে ফেব্রæয়ারি। বসন্তে চলে অমর একুশে গ্রন্থমেলা। কচি পাতায় আলোর নাচনের মতোই বাঙালির মনেও লাগে বসন্তের দোলা। উৎসবে মেতে ওঠে নগরবাসী। ফুলের মঞ্জরিতে মালা গাঁথার দিন বসন্ত শুধু প্রকৃতিকেই রঙিন করেনি, আবহমানকাল ধরে বাঙালি তরুণ-তরুণীর প্রাণও রঙিন করেছে।

বরাবরের মতোই বসন্ত উপলক্ষে নগরবাসীর প্রধান আকর্ষণ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় চারুকলার বটতলা ও ধানমন্ডির রবীন্দ্র সরোবর। এ ছাড়া বুলবুল ললিতকলা একাডেমি (বাফা) ও ছায়ানটে আজ নানামুখী আয়োজন করা হয়েছে নগরবাসীর মাঝে উৎসবের আমেজ ছড়িয়ে দিতে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলায় জাতীয় বসন্ত উৎসব উদযাপন পরিষদের আয়োজনে সকাল সাতটায় ক্লাসিক্যাল দিয়ে উৎসব শুরু হবে; চলবে ১১টা পর্যন্ত। বেলা সাড়ে তিনটা থেকে রাত আটটা পর্যন্ত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশ নেবে বিভিন্ন সংগঠন।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

আর্কাইভ