• শুক্রবার, ০৩ জুলাই ২০২০, ০৪:১৫ পূর্বাহ্ন |

আওয়ামী লীগ নেতাকে নৃশংসভাবে কুপিয়ে হত্যা

Red Chilli Saidpur

নড়াইল, ২৫ ফেব্রুয়ারী।।জেলার লোহাগড়ার সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা বদর খন্দকারকে (৪০) নৃশংসভাবে কুপিয়ে হত্যা করেছে সন্ত্রাসীরা।

সোমবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যা ৬টার দিকে লোহাগড়া-নড়াইল সড়কের টি-চরকালনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে হামলার ঘটনা ঘটে। মুমূর্ষু অবস্থায় খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পাথে তার মৃত্যু হয়।

ধারাল অস্ত্রের কোপে তাঁর বাম হাতের তিনটি আঙ্গুল কাটা পড়ে। ডান হাতের কবজি প্রায় বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। দুই পা হাঁটুর নিচ থেকে প্রায় বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, সোমবার সন্ধ্যায় বদর খন্দকার কালনায় তার নিজের ইটভাটা থেকে মোটরসাইকেল যোগে বাড়িতে যাচ্ছিলেন। লোহাগড়া-নড়াইল সড়কের টি-চরকালনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে পৌঁছালে আগে থেকে ওৎ পেতে থাকা সন্ত্রাসীরা তাকে ধারাল অস্ত্র দিয়ে বেপরোয়াভাবে কোপাতে থাকে। তার চিৎকারে লোকজন এগিয়ে এলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়।

স্থানীয় লোকজন ও পথচারীরা তাকে উদ্ধার করে প্রথমে লোহাগড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক সুমনা খানম জানান, ধারাল অস্ত্রের কোপে তার বাম হাতের তিনটি আঙ্গুল পড়ে যায়। ডান হাতের কবজি প্রায় বিচ্ছিন্ন। দুই পায়েরই হাঁটুর নিচ থেকে প্রায় বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

লোহাগড়া থানার ওসি মো. আলমগীর হোসেন বলেন, ঘটনাস্থল থেকে একটি ধারালো দা, মোবাইল ফোন, একটি খালি কালো ব্যাগ ও দুটি স্যান্ডেল উদ্ধার করা হয়েছে। তিনি অজ্ঞান থাকায় তার সঙ্গে কথা বলতে পারিনি। তবে গ্রাম্য আধিপত্য বিস্তারের দ্বন্দ্বে হামলা হতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের আটকের চেষ্টা চলছে। এ ছাড়া এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

জানা গেছে, বদর খন্দকার লোহাগড়া ইউনিয়নের চরবগজুড়ি গ্রামের ময়ের আলীর ছেলে। তিনি ওই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক নির্বাহী সদস্য ছিলেন। এ ছাড়া বিগত মেয়াদে তিনি লোহাগড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ছিলেন।

পরিবারের সদস্যদের অভিযোগ, এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বর্তমান চেয়ারম্যান উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল শিকদারের সঙ্গে বদর খন্দকারের দীর্ঘদিন ধরে দ্বন্দ্ব-সংঘাত চলে আসছিল। এর জের ধরে তার ওপর এ হামলা হয়েছে বলে তাদের দাবি।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

আর্কাইভ