• শুক্রবার, ২৯ মে ২০২০, ১০:০০ পূর্বাহ্ন |

ঘরই নিরাপদ ঘরেই থাকুন

Red Chilli Saidpur

।। আসাদুজ্জামান নূর ।। নভেল করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে সারা পৃথিবীর মানুষ আজ বিপদগ্রস্ত। এই মুহূর্তে বলা হচ্ছে, সচেতনতাই এই মহামারি প্রতিরোধের প্রধান উপায়।

আমাদের দেশের মানুষকে সচেতন হওয়ার জন্য বলে দেওয়া হচ্ছে বারবার। প্রধানমন্ত্রী বলছেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বলছে, চিকিৎসকরা বলছেন, আমাদের সেনাবাহিনী থেকে বলা হচ্ছে, পুলিশ বলছে, মিডিয়া বলছে—সবাই ২৪ ঘণ্টাই বলে যাচ্ছে সচেতন হওয়ার জন্য। সচেতন হওয়ার জন্য, যার যার ঘরে অবস্থান করার বার্তা নানাভাবে পৌঁছানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষ যারা মিডিয়া হয়তো অনুসরণ করে না তাদের কাছেও বার্তাটি পৌঁছানোর চেষ্টা করা হয়েছে নানাভাবে। আমি নিজে আমার সংসদীয় এলাকায় মাইকিং করিয়েছি। মানুষ যাতে বুঝতে পারে সে জন্য আঞ্চলিক ভাষায় সেই মাইকিং করিয়েছি এবং শুধু বলে যাওয়া নয়, মানুষের কাছে যাতে পৌঁছায়, সে জন্য এক জায়গায় দাঁড়িয়ে তিন-চারবার করে বলা হয়েছে, হচ্ছে। লিফলেট বিলি করা হয়েছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তো ভালোই প্রচার হচ্ছে। কিন্তু তার পরও হলো কিছু মানুষ সচেতন হচ্ছে না, যা চিন্তার বিষয়। তারা ঘরে অবস্থান না করে ঘুরে বেড়াচ্ছে।

এই বিপদকালে যারা বাইরে ঘুরে বেড়াচ্ছে তাদের মধ্যে এক পক্ষ আছে অপ্রয়োজনে, অহেতুক ঘুরে বেড়াচ্ছে। তারা বুঝতেও পারছে না যে তাদের মধ্য থেকে এই রোগটি আরেকজনের কাছে ছড়িয়ে পড়তে পারে। এমনকি সে নিজেও আরেকজনের কাছ থেকে আক্রান্ত হতে পারে, তার পরিবারকেও আক্রান্ত করতে পারে। আরেক পক্ষ পেটের দায়ে বাইরে আসছে। বিশেষ করে নিম্ন আয়ের মানুষ। তাদের কাজ বন্ধ কয়েক দিন থেকে। তাদের কোনো সঞ্চয় নেই। ফলে খাবারের সংকট দেখা দিয়েছে। রিকশাচালক, ভ্যানচালক, চটপটি বিক্রেতা, ফুটপাতের হকার—এদের মতো নিম্ন আয়ের মানুষ বাধ্য হয়েই হয়তো বেরিয়ে আসছে। এর মধ্যে আবার গার্মেন্ট কারখানা খোলা ও বন্ধ করা নিয়ে এতগুলো মানুষকে বের করে এনে কষ্ট দেওয়া হলো। অনেক ক্ষতি করা হলো।

এ মুহূর্তে সবারই দায়িত্ববোধের পরিচয় দেওয়াটা জরুরি। সবাইকেই দায়িত্বশীল আচরণ করতে হবে। চিকিৎসকরা সতর্কভাবে সেবা দিচ্ছেন সেটি যেমন সত্য, তেমনি কিছু চিকিৎসক আবার তাঁদের দায়িত্ব এড়িয়ে গেছেন। দেশের বেশিরভাগ প্রাইভেট হাসপাতাল তাদের দায়িত্ব এড়িয়ে গেছে। কিছু সরকারি হাসপাতালও সঠিক সময়ে সঠিক দায়িত্বটি পালন করেনি। আসলে ব্যক্তি দৃষ্টিভঙ্গির উপরই অনেক কিছু নির্ভর করে। নির্দেশনার ক্ষেত্রে তো ত্রুটি হয়নি। কিন্তু সবাই সঠিক আচরণটি করতে পারিনি।

এই বিপদের সময়ে মানুষের পাশে সবারই দাঁড়ানো উচিত। আমরা সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট থেকে ঢাকার অভাবী মানুষের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছি। আমি নিজে যাত্রাবাড়ীর দনিয়ায় এবং উত্তরার দক্ষিণখান এলাকায় গিয়ে মানুষের হাতে খাদ্য সহায়তা তুলে দেওয়ার কাজে অংশ নিয়েছি। আমাদের অসচ্ছল নাট্যশিল্পীদের একটি তালিকা তৈরি করে প্রায় ২০০ জনের কাছে কিছু আর্থিক সহায়তা পৌঁছানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। সারা দেশের অসচ্ছল শিল্পী-সংস্কৃতিসেবীদের যে তালিকা আছে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের এবং এর বাইরেও যারা সংকটের মধ্যে আছে তাদের সহায়তার বিষয়টিও ভাবা হচ্ছে। সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে আমরা কথা বলেছি।

আমি বাসায়ই আছি। স্ত্রী, কন্যা, জামাতা সবাই মিলে গল্প করে সময় পার করছি। কিছু সময় বই পড়ছি, সিনেমাও দেখছি। এর মধ্যে ফোনে সবার খোঁজ নেওয়ার চেষ্টা করছি। মানুষকে সহায়তা দেওয়ার কাজটিও করছি। এ ছাড়া দুটি কবিতা আবৃত্তির রেকর্ড করেছি। এই সময়ে মানুষ ঘরে বসেও যাতে কিছু আনন্দ পেতে পারে। এর একটি মিনার বসুনিয়ার ‘ইশ্বর হোক সবার’ রেকর্ডটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ করা হয়েছে। অন্যটিও দু-এক দিনের মধ্যে প্রকাশিত হবে।

আমি যেহেতু একটি এলাকার সংসদ সদস্য, তাই আমার এলাকার মানুষকে সচেতন করার পাশাপাশি যারা সমস্যায় আছে তাদের কাছে খাদ্য সহায়তা পৌঁছে দেওয়ার কাজও করছি। বিশেষ করে দরিদ্র ও প্রতিবন্ধীদের বিষয়টিকে আমরা অগ্রাধিকার দিচ্ছি। আরেকটি কাজ করেছি, আমার এলাকার মানুষের দুটি ফোন নম্বর দিয়ে বলেছি, যারা লাজলজ্জার ভয়ে হয়তো সহায়তা চাইতে পারছে না তারাও যোগাযোগ করলে সহায়তা পৌঁছে দেওয়া হবে।

সবাইকে অনুরোধ করব, ঘরেই থাকুন। যতটা সম্ভব আনন্দময় সময় পার করুন। সম্ভব হলে নিরাপদ থেকে সংকটাপন্ন মানুষের পাশে দাঁড়ান।

লেখক : সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, সংসদ সদস্য, সাবেক মন্ত্রী


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

আর্কাইভ