• রবিবার, ০৯ অগাস্ট ২০২০, ১২:৩১ পূর্বাহ্ন |

করোনায় করণীয় শিশুদের জন্য

Red Chilli Saidpur

।। মোঃ ইমরান মিঞা ।।

প্রকৃতির রূপ  বদলায় ঋতুর পরিবর্তনে। ভিন্ন মাত্রার নান্দনিকাতয় ভরে উঠে সবুজ মাঠ ,গাছগাছালি, পাহাড় –পর্বত –সমুদ্র। নির্মল বাতাসেরও  রয়েছে ভিন্ন রুপ। কখনো  এ বাতাস প্রলয়ংকারিরুপে দেখা দেয়। আজকালকার বাতাস আর প্রশ্বাসের সঙ্গে বিশুদ্ধ  বাতাস ঢুকে যায় না ফুসফুসে। কারণ সারা দুনিয়ায় চলছে এক মহামারি। যার নাম কোভিদ-১৯ বা করোনা ভাইরাস। এই আতংক ছড়িয়ে পড়েছে  দেশ হতে দেশান্তরে। ফলে আমরাও বন্দি হয়ে পড়েছি ঘরের মধ্যে। জীবন যাত্রায় যোগ হয়েছে  বন্দিদশা । কর্মব্যস্ত জীবন কর্মকে  টা টা বাই বাই বলে ঘরের মধ্যে  চলছে পরিষ্কার পরিছন্নতা আর হাত ধোঁয়ার কাজ। আর এর সাথে নতুন মাত্রায় সুযোগ  পেয়েছি আমাদের সন্তানদের  সাথে ভালো সময় কাটানোর। ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি যেমন থাকছে ঠিক তেমনি পরিবারের  বাবা মার  মনোমালিন্যও  কিন্তু আপনার সন্তানের নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি  তৈরিতে  সহায়ক হবে। সুতরাং আমাদের সন্তানের সঙে ঘনিষ্ঠ সময় কাটাতে হবে।

আমাদের শিশুরা দিনের বেশিরভাগ সময়ই বিদ্যালয়ে অতিবাহিত করে থাকে। খেলার সাথি হিসেবে পেয়ে থাকে সহপাঠীদেরকে । গল্প করে থাকে তাদের পছন্দের শিক্ষকের সঙ্গে।  স্কুলের উম্মুক্ত মাঠে  মঞ্চে  চলে তাদের ধুলিমাখা পদচারনা। স্কুল হতে ফিরে এসে স্কুলের সারাদিনের ঘটনা  মায়ের আচল টেনে ধরে বলতে শুরু করে একটার পর একটা। মা বিরক্ত হলে চলে যায় ভাই বোনদের কাছে তার গল্প শেয়ার করতে। বাবাকে না পেয়ে মা বোন ভাইদের সঙ্গে বিভিন্ন রকম গল্প করে। তারপর অফিস হতে বাবা ফিরে আসা মাত্রই জাপটে ধরে তার কথা বলতে শুরু করে। যে কথাগুলো শুনতে তার মা বিরক্ত হয়েছিল সেগুলোই। এভাবেই আমাদের ছোট শিশুরা অভিজ্ঞতার সঙ্গে নিজেকে সংশ্লিষ্ট করার তাড়না বোধ করে থাকে। কিন্তু আজ করোনায় তাদের স্কুল কিছুদিনের জন্য বন্ধ। অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে তাদের বিদ্যালয়ের  আপাতত পাঠ কার্যক্রম। তারাও এখন বড়দের মত গৃহবন্দি। আটকা পড়ে গেছে চার দেওয়ালের  মধ্যে। তৈরি হচ্ছে তাদের মধ্যে একঘেয়েমিপনা। চারদিকে যখন লাশ আর লাশ তখন তাদের মনও বিষণ্ণতায় ভরে উঠছে । এমন সময় তারা আসক্ত হতে পারে ইন্টারনেট বা ভিডিও গেমসে। সেদিকে আমাদেরকে বিশেষ নজর দিতে হবে।

এই সময়টাতে যেহেতু স্কুলের শিক্ষক সহপাঠী বা গৃহ শিক্ষক কেউ তার সংস্পর্শে আসছে না তাই অভিভাবকদেরকে বিশেষ যত্ন  নিতে হবে। তাদেরকে বিভিন্ন গল্প পড়তে দেয়া, কোন মনীষীর জীবনী পড়তে দেয়া যেতে পারে। যখন তারা নিজে পড়তে অনাগ্রহ প্রকাশ করবে তখন মা বাবাকে ছোট গল্প/ জীবনী পড়ে শোনাতে হবে। এতে তাদের শোনার আগ্রহ  যেমন বাড়বে তেমনি স্মৃতিশক্তিও প্রকট হতে শুরু করবে। এছাড়া আপনি নিজেও ব্যায়াম করুন আর আপনার সন্তানকেও ব্যায়াম করান দৈনিক ১ ঘণ্টা। খেলতে পারেন তাদের সাথে দাবা খেলা। পরিবারের  অন্য সদস্যদেরকে নিয়েও মানসিক অঙ্ক/ গনিতের খেলাও খেলতে পারেন। এতে তার মানসিক স্ট্রেসটা কমে যাবে, বিষণ্ণতা কেটে যাবে, পড়ার প্রতি একঘেয়েমিটা কেটে যেয়ে পড়ায় মনযোগী হবে এবং করোনার আতংকের মধ্যে কিছুটা হলেও মানসিক  স্বস্তি আসবে।

প্রতিকূল পরিস্থিতিতে শিশুরা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং আতংকে থাকে। বিশ্বযুদ্ধ থেকে শুরু করে প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও মনুষ্যসৃষ্ট  দুর্যোগ সবকিছুতেই আমাদের সোনামণিরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়। কারন তারা অসহায়। এ সময় শিশুরা বড়দের ভালোবাসা ও মনোযোগ একটু বেশি চায়। করোনার এই পরিস্থিতিতে শিশুদের কথায় অভিভাবকদেরকে একটু বেশি মনযোগী  হতে হবে। তাদের সাথে নরম ভাবে কথা বলতে হবে। এবং পারিপার্শ্বিক ভাবে সচেতন থাকতে হবে সেই সাথে। এই সময়টাতে যেন শিশুদের সৃজনশীল কাজে ব্যাঘাত না ঘটে, তারা যেন ঘরে বসে নিজেদের কাজ নিজেরা করতে শেখে,তাদের আচরণগত অভ্যাসের দিকে খেয়াল রাখতে হবে। শিশুদের সুস্থ বিনোদন  এবং ঘরে বসেই মজার কাজ শেখানোর  ব্যবস্থা করতে হবে। যেমন মজার মজার ক্রাফট করা (হাত ঘড়ি ,কলমদানি,ফুলদানি,ঘুড়ি তৈরি ইত্যাদি) ছবি আঁকা, নকশা করার কাজ । আরও আয়োজন করা যেতে পারে পরিবারের সবাইকে নিয়ে বিভিন্ন মজার গেম শো। এতে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে শিশুর আত্মিক বন্ধন এবং সামাজিকতা শেখার অভ্যাস তৈরি হবে।

খাবারের সময় পরিবারের সকল সদস্য এক সাথে বসে খেতে পারেন। এখান  হতে শিশুটির মনে ভালোবাসার বন্ধন দৃঢ় হবে। এই সময়টাতে যেহেতু আমাদের হাতে যথেষ্ট সময় আছে সেক্ষেত্রে শিশুটিকে গুড লিসেনার হিসেবে তৈরি করতে পারবেন। আপনি যদি চান আপনার শিশু মনোযোগ দিয়ে আপনার কথা শুনবে তবে তার সাথে সঠিকভাবে কথা বলা জরুরি। কিছু কাজ এবং নিয়মিত চর্চার মাধ্যমে আমাদের শিশুটিকে গুড লিসেনার হিসেবে তৈরি  করতে পারব। খেয়াল রাখতে হবে বিকেলবেলা ছাঁদে গিয়ে খেলার সময়টুকু। ঘুড়ি উড়ানো বা অন্য কোন  খেলার সময় যাতে কোন  অঘটন না ঘটে। সেই সাথে বিশেষভাবে লক্ষ্য করতে হবে বাবা মার খারাপ সম্পর্ক  শিশুর উপর বিরূপ প্রভাব না পড়ে।

শিশুদের তাদের হাইজিন সম্পর্কে  শেখান, নিয়মিত হাত ধোয়ার অভ্যাস ভালোভাবে গড়ে তুলুন। কাশি বা হাঁচির ক্ষেত্রে টিস্যু বা কনুই দিয়ে মুখ ঢেকে  ফেলতে বলুন। এরপর টিস্যু ডাস্টবিনে ফেলতে বলুন অথবা তার হাত ভালোভাবে ধুয়ে ফেলতে বলুন।

করোনা ভাইরাস এবং শিশুর উপর এর খারাপ প্রভাব নিয়ে ভয় বা আতঙ্কিত হবেন না। শিশুদের উপর এর প্রভাব অনেক কম। কিন্তু আপনার পরিবারের বয়স্ক যারা আছেন তাদের দিকে বিশেষ নজর দিন। ঘরেই থাকুন, সুস্থ থাকুন। সকল শিশু নিরাপদে থাকুক। আপনি নিরাপদে থাকলেই শিশু নিরাপদে থাকবে।

লেখক: জেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা, নীলফামারী


আপনার মতামত লিখুন :

ে ি মতামত

  1. মো. ইলিয়াস অালী মণ্ডল বলেছেন:

    সৃজনশীল লেখনি। শিশুদের জন্য অবশ্য করণীয় ও দিকনির্দেশনামূলক সময়োপযোগী লেখা। ধন্যবাদ, শিশু অফিসা।।

  2. মো. ইলিয়াস অালী মণ্ডল বলেছেন:

    সৃজনশীল লেখনি। শিশুদের জন্য অবশ্য করণীয় ও দিকনির্দেশনামূলক সময়োপযোগী লেখা। ধন্যবাদ, শিশু অফিসার।।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

আর্কাইভ