• শনিবার, ০৬ জুন ২০২০, ০৩:৪১ পূর্বাহ্ন |

দলীয় কমিটির কারণে চাল চুরি বাড়ছে: রিজভী

Red Chilli Saidpur

ঢাকা, ১৮ এপ্রিল ।। ত্রাণ কার্যক্রমে দলীয় কমিটির কারণে চাল চুরি আরো বাড়বে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। শনিবার এক ভিডিও কনফারেন্সে তিনি এ মন্তব্য করেন।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, ত্রাণ নিয়ে এবার আরো ভয়ংকর দলীয়করণ ও লুটপাটের মহামারী শুরু হতে যাচ্ছে। সারাদেশে ত্রাণ কার্যক্রমে স্থানীয় প্রশাসনকে সহায়তা দিতে ওয়ার্ড পর্যায় পর্যন্ত আওয়ামী লীগের ত্রাণ কমিটি গঠনের ঘোষণা দিয়েছে ক্ষমতাসীনরা। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, আওয়ামী লীগ ত্রাণের তালিকা করবে। এটি স্থানীয় প্রশাসনকে দেবে। স্থানীয় প্রশাসন তালিকাটি যাচাই-বাছাই করবে। তার মানে এই তালিকায় কেবল আওয়ামীলীগ করা লোকজনের ঠাঁই হবে। ত্রাণ পাবে তারাই। যে সরষের মধ্যে ভূত সেখানে তাদেরকেই যদি দায়িত্ব দেয়া হয়, তাহলে কাদের পক্ষ নিয়েছে তা স্পষ্ট বোঝা যায়। আমরা এবিষয়ে গভীরভাবে উদ্বিগ্ন ও আশংকা বোধ করছি যে, ত্রাণ কার্যক্রমে এই দলীয় কমিটির কারণে চাল চুরি আরো বাড়বে। দলীয় তালিকা করে দলের লোকজন খাবে আর অন্যরা না খেয়ে মরবে। এটা হলে দুর্ভিক্ষ আরো তরান্বিত হবে বলে আমরা মনে করি। অবিলম্বে আওয়ামী লীগকে দিয়ে ত্রাণের তালিকা করার সিদ্ধান্ত বাতিল করতে হবে।

করোনাভাইরাসের মহামারিতে বিশ্ববাসী আজ দিশেহারা মন্তব্য করে তিনি বলেন, বাংলাদেশে বিরাজ করছে ভয়াল পরিস্থিতি। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অদূরদর্শিতা ও হেয়ালীপনার কারণে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা। কমিউনিটি ট্রান্সমিশন হয়ে প্রতিদিন দেশজড়ে বিস্তার ঘটছে এই মহামারীর। বিশ্বের ভয়াবহ সংক্রমিত দেশগুলোতে করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যু দ্বিগুন হয়েছে ১৫-২০ দিনে। আর বাংলাদেশে তা হচ্ছে মাত্র ৪ দিনে।

রিজভী বলেন, করোনা প্রতিরোধে মেডিক্যাল সরঞ্জামের বিষয়ে কেউ যেন কথা বলতে না পারে সেজন্য গতকাল সরকার কঠোর পরিপত্র জারি করেছে। সরকার তাদের ব্যর্থতা ধামাচাপা দেয়ার জন্য রাষ্ট্রযন্ত্র দিয়ে দমনের নীতিকেই কার্যকর করছে। বাংলাদেশের পরিস্থিতি কতটা ভয়ঙ্কর হতে পারে তা এখন পর্যন্ত কেউ অনুধাবন করতে পারছে না। বাংলাদেশ এমন একটি দেশ যেখানে জনগণ জানতে পারছেনা আসলে হচ্ছেটা কি ? অথচ দুনিয়াজুড়ে খ্যাতিমান অর্থনীতিবিদরা বলছেন-এই সংকটে আলাপ-আলোচনার পথ প্রশস্ত রাখার জন্য।

বিএনপির এই সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে লকডাউন কিংবা ‘সামাজিক দূরত্ব’ বজায় রাখা অপরিহার্য। কিন্তু ‘লকডাউন’ কিংবা ‘সামাজিক দূরত্ব’ বজায় রাখতে গিয়ে দেশের কোটি কোটি মানুষ খাবার সংকটে পড়েছে। এই অবস্থায়, গরিব ও অসহায় মানুষের জন্য ‘ত্রাণের চাল বরাদ্দ, ‘ওএমএস কর্মসূচি’ কিংবা কমদামে ‘টিসিবি’র মাধ্যমে তেলের মতো নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য বিক্রির উদ্যোগ অবশ্যই ইতিবাচক। কিন্তু কোনো গণবিরোধী সরকার ও প্রশাসনের হাতে পড়লে যে কোনো শুভ উদ্যোগও ‘কলঙ্কজনক অধ্যায়’ হয়ে ওঠে।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

আর্কাইভ