• রবিবার, ০৯ অগাস্ট ২০২০, ০৬:৩২ পূর্বাহ্ন |

গল্প নয় সত‌্যি

Red Chilli Saidpur

।। পরিমল কুমার সরকার ।। নভেল করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) বর্তমানে সারা পৃথিবীতে রীতিমত আতংকের নাম। চীনের উহান প্রদেশ থেকে বিভিন্ন দেশের মতো আমাদের প্রিয় স্বদেশেও এটি হানা দিয়েছে। এ ভাইরাসকে প্রতিহত করার লক্ষ্যে বাংলাদেশ সরকারও বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। গত ১৮ মার্চ ২০২০ খ্রি. থেকে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। সে সাথে প্রাইভেট, কোচিং সেন্টারও বন্ধ রাখার নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে। সরকার প্রদত্ত নির্দেশনা বাস্তবায়ন করার জন্য প্রতিদিনই সৈয়দপুর উপজেলা চষে বেড়াচ্ছিলাম। ২২ মার্চ খবর পেলাম বাংলাদেশ রেলওয়ে সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের একজন শিক্ষিকা নিজ বাসায় ছাত্র-ছাত্রীদের প্রাইভেট পড়াচ্ছেন। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার জনাব রেহানা ইয়াসমিন এবং সঙ্গীয় পুলিশ ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে হাজির হলাম এবং সত্যতা পেলাম। ফলশ্রুতিতে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে ৫,০০০/-(পাঁচ হাজার টাকা) অর্থদণ্ড প্রদান করলাম। শিক্ষিকা তার স্বামীসহ স্কুলের পাশেই ইংলিশ স্কুল রোডে ভাড়া বাসায় থাকেন। অর্থদণ্ডের টাকা না দেবার জন্য তিনি বারবার অনুরোধ করছিলেন। তাকে মোবাইল কোর্টের জরিমানা আদায়ের ধরণ এবং অনাদায়ে শাস্তির কথা বুঝিয়ে দিলে তিনি অবশেষে অর্থদণ্ডের টাকা পরিশোধ করেন।
ঘটনা সাধারণভাবে এখানেই শেষ হতে পারত। কিন্তু শিক্ষিকা ম্যাডামের মুখটা মলিন ও শুকনো দেখে আমার খারাপ লাগলো। জিঙ্গেস করে জানতে পারলাম তিনি সন্তানসম্ভবা এবং এপ্রিল মাসেই সন্তান প্রসবের সময় নির্ধারণ করা হয়েছে। সে উদ্দেশ্যেই তিনি টাকা জমিয়ে রেখেছিলেন। মনে মনে আমার নিজেকেই অপরাধী মনে হলো। কিন্তু পারিপার্শ্বিক অবস্থা বিচার করে শুধু বললাম, “কোন প্রয়োজন হলে আমার সাথে যোগাযোগ করবেন।”
ঘটনার দুই-তিনদিন পর আমি অফিসে কাজ করছিলাম, এমন সময় সেই ম্যাডাম আমার রুমে ঢুকলেন। তিনি পরিচয় দিয়ে বললেন স্যার আপনি আমাকে প্রাইভেট পড়ানোর অপরাধে জরিমানা করেছিলেন। আমি চিনতে পেরে কেমন আছেন জিজ্ঞেস করলাম। কথা প্রসঙ্গে তিনি বললেন এপ্রিল মাসের শুরুতেই তিনি পার্বতীপুর মিশন হসপিটালে (প্রকৃত নাম ল্যাম্প হসপিটাল) ভর্তি হবেন। পার্বতীপুর কেন জানতে চাইলাম, যেখানে সৈয়দপুরেই সরকারি হাসপাতাল ও অনেক প্রাইভেট ক্লিনিক রয়েছে। জবাবে তিনি জানালেন, সেখানে খরচ কম এবং ডাক্তাররা স্বাভাবিক ডেলিভারির চেষ্টা করেন। তার বাচ্চার পজিশন উল্টো বলে ডাক্তার জানিয়েছেন। খরচ কমের বিষয় কেন চিন্তা করছেন জানতে চাইলে তিনি যা বললেন তাতে আমার নিজের অপরাধবোধ আরও বাড়লো। তিনি প্রকৃতপক্ষে বাংলাদেশ রেলওয়ে সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের আইসিটির খন্ডকালীন শিক্ষক। মাসিক বেতন ছিল দুই হাজার টাকা, গত বছর থেকে সেটি বেড়ে হয়েছে মাসিক পাঁচ হাজার টাকা। স্বামী বাংলাদেশ রেলওয়েতে ছোট চাকুরি করেন, বর্তমান পোস্টিং রংপুর। দুইজন মিলে খাওয়া, বাসা ভাড়া দেবার পর অনেক কষ্টে ১২,০০০/- (বার হাজার) টাকা জমিয়েছিলেন। সে টাকা থেকেই তিনি মোবাইল কোর্টে অর্থদণ্ডের পাঁচ হাজার টাকা পরিশোধ করেছিলেন। আমি সঙ্গে সঙ্গেই ল্যাম্প হসপিটালের নম্বর সংগ্রহ করে দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিকে ফোন করলাম এবং এ বিষয়ে সহযোগিতা চাইলাম। তিনি জানালেন তাদের এ ধরণের আর্থিক সহযোগিতার সুযোগ এখন নাই। তার উপর বর্তমানে তারা করোনা ভাইরাস নিয়ে ব্যস্ত আছেন। সে সময় সৈয়দপুর ফায়ার সার্ভিসের ইনচার্জ জনাব মোঃ মাহমুদুল হাসান আমার রুমেই একটা কাজে এসেছিলেন। তিনি ঘটনা শুনে বললেন করোনার কারণে যদি পার্বতীপুর যেতে যানবাহনের সমস্যা হয় তবে তিনি অ্যাম্বুলেন্স দিয়ে সহযোগিতা করবেন। ম্যাডামকে বললাম আপনার সমস্যা হলে অবশ্যই বিব্রতবোধ না করে আমাকে জানাবেন।
এরপর বেশ কিছুদিন পার হয়ে গেল কিন্তু ম্যাডামের কোন খোঁজখবর পাচ্ছিলাম না, আমিও করোনা ভাইরাসের কারণে সৃষ্ট পরিস্থিতি সামাল দিতে বেশ ব্যস্ত ছিলাম। ১২ এপ্রিল ম্যাডামের বাসার পাশের এলাকায় বিশেষ ওএমএস চাল বিতরণ করতে গিয়ে ভাবলাম একটু খবর নিয়ে যাইতো ম্যাডাম কেমন আছেন? বাসার সামনে পৌঁছাতেই দেখলাম ম্যাডাম তার স্বামীসহ কিছু টেস্টের কাগজ নিয়ে রিকশা থেকে নামছেন। কেমন আছেন জানতে চাইলে তিনি জানালেন ক্লিনিক থেকে ফিরলেন। যাতায়াতের সমস্যা বিধায় পার্বতীপুর যাবেন না। ডাক্তার আল্ট্রাসনোগ্রাফিসহ বিভিন্ন টেস্ট দিয়েছেন, সেগুলোই করে আসলেন। বিকালেই আবার ডাক্তারের সাথে দেখা করতে হবে। ঠিক আছে জানিয়ে ফেরার সময় বললাম -কোন সমস্যা হলে জানাবেন।
রাতে ম্যাডাম আমাকে ফোন করে বললেন “স্যার, রিপোর্ট দেখাতে ডাক্তারের কাছে গিয়েছিলাম, তিনি বলেছেন ২০ তারিখে যেতে। কিন্তু স্যার আমি তো সাহস পাচ্ছি না, আমার বেবির পজিশন তো উল্টা। পরে অন্য একটা ক্লিনিকে গিয়েছিলাম সেখানেও ডাক্তার বিভিন্ন টেস্ট করে বলেছে আগামীকাল ভর্তি হতে। খরচ প্রায় দশ বার হাজার পড়বে।” শোনার পর আমার বন্ধুর বড় বোন যিনি একজন গাইনোকোলজিস্ট, সৈয়দপুরেই প্রাকটিস করেন, তাকে পুরো বিষয়টা বললাম এবং সহযোগিতা চাইলাম। শুনে ডাক্তার দিদি পরের দিন যেতে বললেন। আশ্বস্ত করলেন রোগীকে দেখার পর সিদ্ধান্ত নেয়া হবে এবং তিনি কোন পারিশ্রমিক নিবেন না। পরদিন সকালে শিক্ষিকা ম্যাডাম ফোনে জানালেন তারা ডাক্তারের চেম্বারে ঢোকার অপেক্ষায় আছেন।
এরপর আমি কাজে ব্যস্ত থাকার কারণে খবর নিতে পারিনি। দুপুর দুইটার দিকে ম্যাডাম ফোন করলেন। কিন্তু একটা জরুরী মিটিংয়ে থাকার কারণে ফোন ধরতে পারি নাই। আমি টেক্সট করে আপডেট জানতে চাইলাম। জবাব না পেয়ে আড়াইটার দিকে আবার টেক্সট করলাম। পরে সাড়ে চারটার দিকে ম্যাডাম টেক্সট করে জানালেন তিনি ডাক্তারের পরামর্শে ক্লিনিকে ভর্তি হয়েছেন এবং তখনই ওটিতে নিয়ে যাওয়া হবে। বিকাল ৫.৪১ মিনিটে একটা ফোন পেলাম। ফোনের ওপাশ থেকে বললেন, ম্যাডামের সিজার হয়েছে, বাচ্চা ভাল আছে কিন্তু মায়ের অবস্থা সংকটাপন্ন। অপারেশনের সময় কার্ডিয়াক এরেস্ট হয়েছে। শোনার পর আমি যেন আকাশ থেকে পড়লাম। সঙ্গে সঙ্গেই মাহমুদ সাহেবকে ফোন করলাম অ্যাম্বুলেন্স পাঠানোর জন্য। তিনি পাঠালেন, ইতোমধ্যে ডাক্তার ও ক্লিনিক কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে আরেকটি অ্যাম্বুলেন্সও আনা হয়েছিল। উপস্থিত সকল ডাক্তাররা মিলে রোগীর চেতনা ফেরাতে সক্ষম হন। ডাক্তার তার সহকারীদেরসহ রোগীকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হসপিটালে পাঠালেন। সেখানে আইসিইউতে কোন সিট ফাঁকা ছিল না বিধায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ রোগীকে সাধারণ ওয়ার্ডে রেখে চিকিৎসা নিতে বললেন। আমি ফোন করে অনুরোধ করলাম, ডাক্তার দিদি এবং এনেস্থিশিয়ানও কথা বললেন। অবশেষে আইসিইউতে তার একটা সিটের ব্যবস্থা হয়। রাতে রোগীর স্বামী আমাকে ফোন করে দ্রুত ১ ব্যাগ রক্তের প্রয়োজন মর্মে জানান। আমি খুঁজতে থাকলাম এবং সন্ধান পেয়েও গেলাম। ফোন করলাম, রোগীর স্বামী ততক্ষণে রক্ত সংগ্রহ করতে পেরেছেন বলে জানালেন। অবশেষে রোগী ১৭ এপ্রিল সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরে এলেন।
প্রায় প্রতিদিনই ম্যাডাম ও তার ছেলের খবর নিচ্ছিলাম। গত ২২ এপ্রিল মোবাইল কোর্ট করার ঠিক একমাস পর মাহমুদ সাহেবের মোটরসাইকেলে করে গিয়েছিলাম মা ও ছেলেকে দেখতে। করোনার কারণে কোন উপহারই কিনতে পারিনি বাবুটার জন্য। সেই অর্থদণ্ডের সমপরিমাণ অর্থই একটা খামে করে বাবুকে উপহার দিলাম। নিজের অপরাধবোধ কমিয়ে সান্তনা খুঁজলাম এই জন্য যে, ভাগ্যবিধাতা সন্তানসহ মাকে সুস্থ রেখেছেন। না হলে এই গল্পটা অন্যরকমও হতে পারত।
“হে নবাগত শিশু, তোমার জন্য আশীর্বাদ রইল। অনেক বড় হও। তোমার জন্মের সময় মায়ের কষ্টগুলোর কথা জেনে অনেক মায়ের কষ্ট লাঘবের কারণ হও”।

সৈয়দপুরের সহকারী কমিশনার (ভূমি) পরিমল কুমার সরকারের টাইম লাইন থেকে নেয়া।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

আর্কাইভ