• শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৫:৩৪ অপরাহ্ন |

স্ত্রীর শরীরে গরম লোহার ছ্যাঁকা: স্বামী ও ভাসুর গ্রেফতার

জয়পুরহাট প্রতিনিধি, ২৮ মে ।। জয়পুরহাটের আক্কেলপুরে স্ত্রীর মুঠোফোনে মিস কলের জের ধরে স্ত্রীকে গাছে বেঁধে রেখে শরীরের বিভিন্ন অঙ্গে গরম লোহার ছ্যাঁকা দেওয়াসহ শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে পাষন্ড স্বামীর বিরুদ্ধে।

আক্কেলপুর উপজেলার শ্রীকৃষ্টপুর গ্রামে বুধবার রাতে এই অমানবিক ঘটনার পর বৃহষ্পতিবার দুপুরে স্ত্রীকে নির্যাতনের অভিযোগে গৃহবধু খাদিজা খাতুনের স্বামী শাকিল হোসেন এবং শাকিলের বড় ভাই আসলাম হোসেনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তারা ওই গ্রামের আব্দুস ছালামের পুত্র।

এলাকাবাসী ও গৃহবধু খাদিজা অভিযোগ করেন, প্রায় আড়াই বছর আগে রাজমিস্ত্রি শাকিল হোসেনের সাথে বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার সান্তাহারের পোতা গ্রামের আইয়ূব আলীর মেয়ে খাদিজার বিয়ে হয়।

বিয়ের সময় খাদিজার বাবা দাবীকৃত যৌতুকের সব টাকা পরিশোধ করলেও বিয়ের কিছু দিন পর থেকে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র শাকিল প্রায় স্ত্রীকে মারধর করতেন। এরই এক পর্যায়ে বুধবার রাতে খাদিজা খাতুনের মোবাইল ফোনে মিস কল আসলে এর জের ধরে তাকে লিচু গাছের সাথে বেঁধে বেধড়ক পেটাতে থাকে শাকিল। পরে লোহা গরম করে খাদিজার শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ-প্রতঙ্গে ছ্যঁকা দিলে ওই গৃহবধূ গুরুতর আহত হন। প্রতিবেশীরা তাকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে আক্কেলপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করিয়ে দেন।

সাবেক ওর্য়াড কাউন্সিলর রফিকুল ইসলাম বলেন, গৃহবধূকে তাঁর স্বামী প্রায় নির্যাতন করত বলে শুনেছি। গত বুধবার রাতে তাঁর স্বামী বাড়ির দরজা বন্ধ করে ওই গৃহবধুকে লিচুর গাছে বেঁধে রেখে শরীরে ছ্যাঁকা দেন। এতে গৃহবধুর চিৎকারে প্রতিবেশীরা ঘটনাটি জানতে পারেন। তাঁরা মহল্লার লোকজনদের সঙ্গে নিয়ে দরজায় ধাক্কা দিয়ে ভেঙে ভেতরে ঢুকে গৃহবধূকে আহতবস্থায় উদ্ধার করে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান।

আক্কেলপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ডাঃ আতিকুর রহমান বলেন, ‘গৃহবধুর দুই গালে, দুই হাতে ও পায়ে ছ্যাঁকা দেওয়ার চিহ্ন রয়েছে। তার পরিবার মেয়েটিকে রেফার্ড করে নওগাঁ জেলা হাসপাতালে নিয়ে গেছে।

আক্কেলপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু ওবায়েদ জানান, এ ঘটনায় খাদিজার বাবা আইয়ুব আলী বাদী হয়ে শাকিল, তার বাবা আব্দুস ছালাম, মা সেলিনা বেগম ও বড় ভাই আসলাম হোসেনকে আসামী করে থানায় মামলা দায়ের করেন। পরে পুলিশ শাকিল ও তার বড় ভাইকে গ্রেফতার করলেও মা ও বাবাকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলেও জানান ওসি।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ