• সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:০০ অপরাহ্ন |

নজরুল ভাবনা

।। আব্দুস সালাম ।। আমরা বাঙালি। বাঙালির মানস-চিত্র ভুপেন হাজারিকার একটি জনপ্রিয় গানের একটি কলিতে চমৎকার চিত্রিত – ” হৃদয়ে রবীন্দ্রনাথ, চেতনায় নজরুল”। বিংশ শতাব্দীর প্রথমার্ধে এক অসাধারণ প্রতিভা নিয়ে বাঙলা সাহিত্যের ক্ষেত্রে কাজী নজরুল ইসলামের প্রবেশ। রবীন্দ্র নাথ ঠাকুরের পর এক নতুন অধ্যয়ের সূচনা করেন নজরুল।
আধুনিক যুগে মাইকেল মধুসূদন দত্তই প্রথম ব্যক্তি, যিনি বাঙলা ভাষা ও সাহিত্যের শতাব্দী-সঞ্চিত জড়ত্বে প্রবল আঘাত হেনেছেন। তাঁর সৃষ্ট অমিত্রাক্ষর ছন্দ বাঙলা ভাষার সুপ্ত শক্তিকে জাগিয়ে তাতে সঞ্চার করেছিলেন দুর্দমনীয় গতিবেগ। স্বদেশী, বিদেশি বহু ভাষা-জ্ঞানের সঙ্গে সঙ্গে তিনি লাভ করেছিলেন উন্নত শিল্প চেতনা। ভাষা-শব্দ-উপমা প্রয়োগে নতুনত্ব ও বৈচিত্র সৃষ্টির প্রয়াস তার পরিণত শিল্পজ্ঞান ও উন্নত রুচির পরিচায়ক। অমিত্রাক্ষর থেকে মিত্রাক্ষরে, মহাকাব্য থেকে নাটকে, নাটক থেকে সনেটে তিনি অনায়াসে গমনাগমন করেছেন।
মাইকেল মধুসূদন দত্তের পর বিস্ময়কর সৃষ্টি ক্ষমতার অধিকারী রবীন্দ্রনাথ। রবীন্দ্রনাথের সাধনায় বাঙলা ভাষা ও সাহিত্য বিশ্বসাহিত্যের পর্যায়ে উন্নীত হয়েছে। তিনি ছিলেন প্রতিভাবান সুলেখক, কবি, চিন্তাশীল দার্শনিক, সুপণ্ডিত, আদর্শ নৈষ্টিক গৃহস্থ এবং সর্বোপরি ঋষি। যে আত্মমগ্ন ধ্যানদৃষ্টি, যে পরম জ্ঞান ও প্রতিভা, যে দিব্য বৈরাগ্য এবং সর্বোপরি যে বিরাট ব্যক্তিত্ব ভারতীয় ঋষিত্বের আদর্শকে মহীয়ান করেছে তার প্রত্যেকটি রবীন্দ্রনাথের মধ্যে অল্প-বিস্তর সঞ্চারিত হয়েছে। তাঁর প্রতিভা সর্বোতমুখী, তথাপি তাঁর প্রতিভার সবদিক ছাড়িয়ে ওঠে কবি প্রতিভা। রবীন্দ্রনাথ মাইকেলের মত বিদ্রোহী নন। তাঁর পদক্ষেপ সচেতন ও সুচিন্তিত। তাঁর সমগ্র জীবনদর্শনের মূল ভাববাদের আশ্রয়ে শেকড় মেলেছে। রবীন্দ্রনাথের ভাষা, কল্পনা ও চিন্তার মূল সুদৃঢ়ভাবে প্রোথিত ছিলো আধ্যাত্মিক বিশ্বাসের ভক্তিভূমিতে।
প্রথম মহা যুদ্ধের পূর্ব পর্যন্ত বাঙলা সাহিত্যের ভাবে ও রূপে ছিল রবীন্দ্রনাথের নিরঙ্কুশ আধিপত্য। প্রেম ও সৌন্দর্যের প্রার্থনায় সবাই ছিলেন তন্ময়। রবীন্দ্রানুকৃতি তখন নিষ্ফলতার জন্ম দিতে শুরু করেছে। পরাধীনতা, আর্থিক সংকট, বেকারত্ব ও রাজশক্তির নির্মম অত্যাচারের মধ্যে মানুষের চেতনা মুক্তির আকাঙ্খায় অধীর হয়ে উঠেছিল। পৃথিবীর নানাদিকে বিপ্লবী চেতনা প্রসারমান। স্বাধীনতা, গণতন্ত্র ও সাম্যের দাবির অপ্রতিরোধ্য আন্দোলন ও মুক্তির সংগ্রাম শুরু হয়েছে দেশে দেশে। বৈজ্ঞানিক অগ্রগতির সঙ্গে সঙ্গে রীতিনীতি ও মূল্যবোধে ফাটল ধরেছে। ঈশ্বর, অদৃষ্ট, পরকাল, পুরোহিত প্রভৃতি প্রাচীন প্রত্যয়গুলো হয়ে গেছে শিথিল। বাংলাদেশেও এই নতুন যুগের হাওয়া লেগেছিল।
রবীন্দ্রনাথ প্রেম ও প্রত্যয়, স্বাদেশিকতা ও শান্তির বাণী জগতকে শুনিয়েছিলেন এতদিন। তীব্র সংঘাতময় জগতে তাঁর “ললিত বাণী পরিহাসের মতো শোনাতে লাগলো”। এই যুগ নতুন বাণীর জন্য অপেক্ষা করছিল, অপেক্ষা করছিল নতুন সংগ্রামী অভিধার জন্য। এই অশান্ত, উদ্ধত ও বিদ্রোহী যুগের ভাববাণী কণ্ঠে ধারণ ক’রে আবির্ভূত হলেন – কাজী নজরুল ইসলাম। রবীন্দ্রনাথের আদ্যন্ত মসৃণ, কোমল, ললিতবাণী ও শান্ত সমাহিত ঋষিসুলভ জীবনবোধের পরিবর্তে নজরুল নিয়ে এলেন উদ্দামতা, ঔদ্ধত্য ও অগ্নিগর্ভ কবিতা। নজরুলের উচ্চ কণ্ঠস্বর বিশ্বকবির গুঞ্জনকে ছাপিয়ে উঠলো। তাঁর অট্টহাসিতে চমকে উঠলো শ্বেত-শতদল বাসিনী বীনাপাণি। রবীন্দ্রনাথ আমাদের দিয়েছেন “প্রার্থনার ভাষা,” নজরুল দিয়েছেন “প্রতিবাদের ভাষা”। ভাববাদী পরিমণ্ডলে নজরুল রুদ্রের দূত ও অনমনীয় বিদ্রোহী চরিত্রের লক্ষণযুক্ত একজন স্বতন্ত্র কবি।
নজরুলের বিদ্রোহের তাৎপর্য গভীর ও ব্যাপক। মানব সমাজের অবিচার, অসাম্য থেকে শুরু করে জগতপিতার শাসনাধিপত্য পর্যন্ত তাঁর বিদ্রোহের অধিকারসীমা বিস্তৃত। রবীন্দ্রনাথ ও তাঁর পূর্বসূরীদের দেশমাতার বন্দনায় নিষ্ক্রিয় ভক্তিঅর্ঘের নিবেদনের দিকটাই বেশি ফুটে উঠেছে। কিন্তু নজরুলের কাণ্ডারী হুসিয়ার, ভাঙ্গার গান, কারার ঐ লৌহ কপাট, বিষের বাঁশি, অগ্নিবীনা, সর্বহারা, সন্ধ্যার আবেদন দূর্নিবার ও উন্মাদ। “তাঁর কাব্যের আবেদনে মৃত্যু হ’য়ে ওঠে মধুর, স্বাধীনতার আকর্ষণ হ’য়ে ওঠে প্রেমের মতই দূর্নিবার, ধ্বংস হয়ে ওঠে বাঞ্ছিত সুন্দর।” তাঁর পূর্বসূররীগণ দেশ ও জাতিকে জাগাতে চেয়েছেন। কিন্তু কাজী নজরুল ইসলাম দেশ ও জাতির সঙ্গে সঙ্গে কৃষক, শ্রমিক, নারী ও নিপীড়িত জনগণকে জেগে ওঠার উদাত্ত আহ্বান জানিয়েছেন। এখানেই তাঁর স্বতন্ত্র, এখানেই তাঁর আহ্বানের ধ্বনি কালোত্তীর্ণ। শুধু দেশের স্বাধীনতার স্পষ্ট কল্পনা নয়, শোষিত শ্রমিক, কৃষক মুক্তির অভিধান তাঁর কাব্যের মৌলিক বৈশিষ্ট্য। মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য সংগ্রামী ও বিপ্লবাত্মক সমাজ চেতনা সৃষ্টিতে নজরুলের সাহিত্যকর্ম অনন্য।
কাজী নজরুল ইসলাম রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক পরাধীনতা থেকে দেশ জাতির সর্বাঙ্গীন মুক্তি চেয়েছিলেন। তিনি ক্ষুদিরামের আত্মত্যাগে বুকে ধারণ ক’রে, দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন দাশের নিয়মতান্রিকতার প্রতি শ্রদ্ধা পোষণ ক’রে, সর্বোপরি কামাল আতাতুর্কের সুশৃঙ্খল সংগ্রামের পথই তিনি ভেবেছিলেন স্বদেশের স্বাধীনতা উদ্ধারের সর্বাপেক্ষা সমীচীন পথ। “মম একহাতে বাঁকা বাঁশের বাঁশী আর হাতে রণতূর্য” – এই পঙক্তিটি দিয়েই নজরুল মানসের মৌল প্রবণতা অনেকখানি নির্ণিত হয়ে যায়। তবে প্রকৃত পক্ষে তাঁর বৈশিষ্ট্য প্রখর উজ্জ্বলতায় দীপ্তিমান বিদ্রোহী মূর্তিতে, যা অন্যসব কিছুকে আড়াল করে দাঁড়িয়ে আছে “উন্নত শিরে”। কিন্তু অবিনাশী সুন্দরের পূজারীও ছিলেন তিনি। সুন্দরের স্বপ্নকে প্রতিষ্ঠিত করার পথে যে বাধার বিন্ধ্যাচল তাকে বিদ্রোহের আগুনে ভস্মীভূত না করলে তো শাশ্বত সুন্দরের প্রতিষ্ঠা সম্ভব নয়। তাই তিনি বিদ্রোহী। সুতরাং নজরুল প্রেম ও সৌন্দর্য চেতনাকে হৃদয় দিয়ে ধারণ করে মানবতার নানা আকুতি, নানা বেদনার বিচিত্র অনুভূতি নানা সুরে, নানা ছন্দে গানে ও কবিতায় কোমলে কঠোরে মূর্ত করে তুলেছেন।
মানবজীবন ও চরিত্র চিরকালই প্রহেলিকা পূর্ণ। তার আশা-নিরাশা, তৃপ্তি – অতৃপ্তি ও প্রবৃত্তি-নিবৃত্তির মধ্যে চলছে এক বিরামহীন জটিল দ্বন্দ্ব। মানুষের মধ্যে এই রহস্যময় দোলাচল চিত্তবৃত্তিকেই বলা যায় রোমান্টিকতা। নজরুলের স্বভাবের এই রোমান্টিক প্রবৃত্তি ছিল অত্যন্ত প্রবল। তাঁর মূল পরিচয় তিনি কবি এবং কবি হিসেবেই তিনি জন্ম-রোমান্টিক। নজরুলের ছিল প্রখর একটি সৌন্দর্যবোধ, যার সাহায্যে উচ্ছ্বাসকে তিনি কাব্য করেছেন, উত্তেজনা বশ করেছেন শিল্প দিয়ে। তাঁর কবিতা ও গান সরল, সংক্রামক এবং ইন্দ্রিয় সংবেদী।
প্রেমে শুধুমাত্র জৈবিক বৃত্তি না জেনে তাকে বিস্ময়, বেদনা ও শ্রদ্ধার সঙ্গে গ্রহণ করায় নজরুলের কবিতা ও গানে প্রেমানুভূতির বৈচিত্র ও গভীরতা প্রকাশ পেয়েছে। নিত্য নতুন ভাবের কিরণে চিত্তাকাশে রঙিন মেঘের রহস্যময় খেলা চলেছে। নজরুলের নিজ দৃষ্টিতে – ” প্রেম চিরকালই পবিত্র, দুর্জয়, অমর । আর পাপ চিরকালই কলুষ, দুর্বল এবং ক্ষণস্থায়ী। প্রেম চিরন্তন, কিন্তু প্রেমপাত্র চিরন্তন নয়। – – – – – এই ধূলির ধরায় প্রেম ভালবাসা – আলেয়ার আলো। সিক্ত হৃদয়ের জলাভূমিতে এর জন্ম। দু:খী মানব এরই লেলিহান শিখায় পতঙ্গের মতো ঝাঁপিয়ে পড়ে। নারীর ভালবাসা এক কুহেলিকা, এক আলেয়া । এ যে কখন কাকে পথ ভোলায়, কখন কাকে চায় – তা চির রহস্যময় তিমিরে আচ্ছন্ন। পুরুষও তেমনি হৃদয় হতে হৃদয়ান্তরে তার মানসীকে খুঁজে ফিরে। হৃদয়ের এই তীর্থ পথে তার যাত্রার শেষ নেই।”
অতন্দ্র প্রেমের পূজারী কাজী নজরুল ইসলামের গান ও কবিতাকে যদি আমরা দর্শন, শ্রবণ ইন্দ্রিয়ের সাথে আমাদের হৃদয়ানুভূতির সঠিক সমন্বয় সাধন ক’রে উপভোগের চেষ্টা করি, তবে আশা করি কোনো বঞ্চনার বেদনা আমাদের চিত্তদ্বারে করাঘাত তো করবেই না, বরং আমরা বিকশিত হবো, সমৃদ্ধ হবো। আসুন, আমরা সবাই নজরুল চর্চা করি।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ