• মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:১৯ অপরাহ্ন |

২০ বছর আগে হারিয়ে যাওয়া স্বামীর খোঁজ দিল করোনা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ২৯ মে ।। করোনা মহমারি যে কেবল মানুষের দুর্ভোগ বাড়িয়েছে তা নয়। কিছু কিছু মানুষের জন্য করোনা শাপে বর হয়ে এসেছে। ভারতের এক কোয়ারেন্টাইন সেন্টার গিয়ে ২০ বছর আগে হারিয়ে যাওয়া স্বামীকে খুঁজে পেয়েছেন স্ত্রী। আর সন্তানেরা ফিরে পেয়েছে তাদের বাবাকে। এই ব্যতিক্রমী ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের আসানসোল শহরে।

স্থানীয় সংবাদ মাধ্যম সংবাদ প্রতিদিন জানাচ্ছে, সাংসারিক কলহের কারণে স্ত্রী ও সন্তানদের রেখে বার্ণপুর শ্যামবাঁধের বাড়ি ছেড়ে দিল্লিতে পাড়ি দিয়েছিলেন সুরেশ প্রসাদ নামের ওই ভদ্রলোক। সেখানে দিনমজুরের কাজ করে নিজের অন্নসংস্থান করছিলেন তিনি।

এর মধ্যে গত ৮ বছর আগে দু’বার বাড়িতে চিঠি দিয়ে নিজের বেঁচে থাকার কথা জানিয়েছিলেন। কিন্তু সেই চিঠিতে নিজের ঠিকানা না দেওয়ায় স্ত্রী উর্মিলা খুঁজে পাননি সুরেশকে। তাই স্বামীর বাড়ি ফিরে আসার আশা একপ্রকার ছেড়েই দিয়েছিলেন উর্মিলা। এভাবেই দীর্ঘ ২০ বছর কেটে যায়।

চলতি বছরে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো ভারতেও আঘাত হানলো করোনা। দিল্লির কেজরিওয়াল সরকার পরিযায়ী শ্রমিকদের বিভিন্ন স্কুলের কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে রাখলেন। সেখানেই ঠাঁই হল সুরেশের। এরপর পরিযায়ী শ্রমিকদের বাড়ি ফেরানোর জন্য চালু হল বিশেষ ট্রেন।

বুধবার রাতে এরকমই একটি ট্রেন করে আসানসোলে পৌঁছালেন সুরেশ। তাকে পাঠানো হল সরকারি কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে। সেখানে নিজের পরিচয়ের প্রমাণপত্র দেখাতে পারেননি। কিন্তু মুখে মুখে সেন্টারের লোকজনের কাছে বাড়ির ঠিকানা বলেছিলেন। এরপর পুলিশ যোগাযোগ করে সুরেশের পরিবারের সঙ্গে।

এভাবে দীর্ঘ ২০ বছর পর স্বামীকে খুঁজে পান উর্মিলা। বৃহস্পতিবার (২৮ মে) সকালে স্বামীর সঙ্গে দেখা হয়েছে তার। স্বামীকে ফিরে পেয়ে আনন্দে আত্মহারা উর্মিলাদেবী।

ছেলে সুধীর প্রসাদ বলেন, ‘সকালে কাজে যাওয়ার জন্য বাড়ি থেকে বের হচ্ছিলাম। পুলিশ অফিসার এসে বলল, বাবা আসানসোলের সেনরেল রোডের একটি বেসরকারি হাসপাতালে আছে। প্রথমে নিজের কানকেই বিশ্বাস করতে পারিনি। পরে মাকে সেই কথা বলি। মাও আমার মতো অবাক হয়ে যান। তারপরই প্রতিবেশীদের নিয়ে হাসপাতালে চলে যাই।’

উর্মিলা বলেন, ‘স্বামী বেঁচে আছে এই বিশ্বাস থেকেই সিঁথিতে সিঁদুর নিয়ে আছি। প্রচণ্ড আর্থিক অনটনের মধ্যে সংসার চালিয়ে দুই মেয়ের বিয়ে দিয়েছি।’

এতদিন পর পরিবারকে ফিরে পেয়ে খুশি সুরেশ প্রসাদও। তিনি বলেন, ‘উর্মিলার বয়স হয়েছে। তবে তার বাঁ হাতে উল্কিতে আঁকা আমার নাম আজও অক্ষত।’

তবে পরিবারের সঙ্গে দেখা হলেও এখনই বাড়ি ফিরতে পারছেন না সুরেশ। করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত তাকে সরকারি কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ