• শনিবার, ১১ জুলাই ২০২০, ১২:১৬ পূর্বাহ্ন |

রংপুরে সাদ এরশাদ পন্থিদের অবাঞ্ছিত ঘোষণা

Red Chilli Saidpur

সিসি ডেস্ক, ১৫ জুন ।। রংপুরে জাতীয় পার্টি (জাপা) এবং রংপুর-৩ আসনের এমপি সাদ এরশাদের দ্বন্দ্ব চরমে পৌঁছেছে। সাদ এরশাদকে বাদ রেখে রংপুর জেলা জাপা তথা এরশাদের দুর্দিনের কান্ডারিদের সঙ্গে নিয়ে প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে এইচ.এম এরশাদের প্রথম মৃত্যু বার্ষিক পালনের প্রস্তুতি।

শনিবার (১৪ জুন) রাতে সেন্ট্রাল রোডে জাপার দলীয় কার্যালয়ে জেলা ও মহানগর জাপা আয়োজিত এক যৌথ আলোচনা সভায় এমনই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন দলটির নেতাকর্মীরা। সেই সঙ্গে সম্প্রতি সাদ এরশাদ কর্তৃক তারা ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী দিয়ে পার্টির নেতা, প্রবীণ নেতার ওপর হামলার ঘটনার তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করা হয় এবং রংপুরের জাপার গৃহীত সিদ্ধান্তের যারা বিরোধীতা করেছেন, এই যৌথ সভা থেকে সাদ এরশাদ পন্থিদের অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে করা হয়েছে। এমনকি এরশাদের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী অনুষ্ঠানে তাদের উপস্থিতি নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয় যৌথ সভায়।

সভায় সভাপতিত্ব করেন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য, রংপুর মহানগর সভাপতি ও রংপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মো. মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা। তিনি বলেন, সাদ এরশাদ জাতীয় পার্টির এমপি। কিন্তু তিনি জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীদের সঙ্গে কোনো প্রকার সম্পর্ক না রেখে বহিরাগতদের লালনপালন করছেন। রংপুরের জাতীয় পার্টি যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে তা পার্টির মঙ্গলের জন্য নিয়েছে। এই সিদ্ধান্তের সঙ্গে দ্বিমত পোষন করে ঢাকায় বসে যারা এর বিরোধিতা করেছেন, তারা যদি বিমানেও সৈয়দপুরে আসে তবুও তাদের সৈয়দপুর থেকে বিতারিত করা হবে।

তিনি বলেন, রংপুরে জাতীয় পার্টি (জাপা)সহ যারা এরশাদের ক্রান্তি কালে ঢালের মত থেকে কাজ করেছে তারা কেউ বসে থাকবে না। আমরা আমাদের সাধ্যমত চেষ্টা করে যাবো। যার যেমন সাধ্য আছে সহযোগিতা করেন এরশাদের মৃত্যু বার্ষিকী পালনে।

তিনি আরও বলেন, আমাদের সিদ্ধান্তের সঙ্গে যারা বিরোধীতা করেছে, তারা রংপুরের মাটিতে পা রাখতে পারবেন না। এখানে যে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে, তা পার্টির স্বার্থে নেওয়া হয়েছে।

রংপুর মহানগরীর ৩৩টি ওয়ার্ডকে পুনরায় ঢেলে সাজানো হবে। আগামী দিনের সকল প্রতিবন্ধকতা মোকাবেলার জন্য প্রস্তুত হওয়ার জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

সভায় সকল নেতা-কর্মীদের মতামতের ভিত্তিতে এরশাদের কবর সংস্কার, আগামী ১৪ জুলাই এরশাদের প্রথম মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে কবর জিয়ারত, ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে মাইকিং, দোয়া খায়ের ও মিলাদ মাহফিল আযোজনে সর্বসম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। এই কর্মসূচিতে সাদ এরশাদের ভাড়াটিয়া গুন্ডা ও বহিরাগতরা মাথাচারা দিলে তাদের প্রতিহত করা জন্য জোর দাবি জানানো হয় যৌথ সভা থেকে।

যৌথ সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, জাপার কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক আ. রাজ্জাক, রংপুর মহানগর জাপার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক লোকমান হোসেন, কেন্দ্রীয় কমিটি যুগ্ম সাংগঠনিক সম্পাদক ও রংপুর জেলা জাপার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাফিউল ইসলাম শাফী, সহ সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব খতিবর রহমান, রংপুর মহানগর শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম, মহানগর যুব সংহতি সভাপতি শাহিন হোসেন জাকির, ও সাধারণ সম্পাদক মো. আলাল উদ্দিন কাদেরী শান্তি, মহানগর শ্রমিক পার্টির সাধারণ সম্পাদক মো. মাজহার ইসলাম মন্টু, স্বেচ্ছাসেবক পাটির জেলা আহ্বায়ক আবুল হোসেন, স্বেচ্ছাসেবক পাটির মহানগর আহ্বায়ক ফারুখ মন্ডল, ছাত্র সমাজ মহানগর সভাপতি ইয়াসীর আরাফাত আসিফ, আসলাম, ইঞ্জিনিয়ার সুমন, মুহিন, কাওছার, নাজির। এছাড়াও সভায় জেলা ও মহানগর জাপা এবং সকল সহযোগি ও অংগ সংগঠনের সভাপতি ও সম্পাদকগণ সভায় অংশ নেন।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

আর্কাইভ