• বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৩:৪৩ অপরাহ্ন |

প্রধানমন্ত্রীর এককালীন অনুদানের তালিকা তৈরীতে অনিয়মের অভিযোগ

জয়পুরহাট প্রতিনিধি, ১৮ জুন ।। করোনায় ক্ষতিগ্রস্থ দরিদ্রদের সহায়তাসেবার অংশ হিসেবে প্রধানমন্ত্রী এককালীন আড়াই হাজার টাকার যে উপহার প্রদানের ঘোষনা দেন সেই তালিকা তৈরীতে ব্যাপক অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জয়পুরহাট সদর উপজেলার বম্বু ইউনিয়ন পরিষদের দুই নম্বর ওর্য়াডের পুরুষ ইউপি সদস্য লোকমান হোসেন ও সংরক্ষিত নারী সদস্য পারভীন আক্তার তাঁদের পরিবার এবং আত্বীয় স্বজনদের তালিকাভূক্ত করছেন বলে  ওই ঘটনায়  জয়পুরহাট সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন এলাকাবাসী। অভিযোগের প্রেক্ষিতে জয়পুরহাট সদর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) রকিবুল হাসান তদন্ত করে তালিকা তৈরীতে অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতির সত্যতা পেয়েছেন।

ওই ওয়ার্ডবাসীরা অভিযোগে জানান, প্রধানমন্ত্রীর এককালীন আড়াই হাজার টাকা প্রদানের প্রকাশিত তালিকা দেখে তাঁরা  বিস্মিত হয়েছেন। ওই তালিকায় ওর্য়াডের পুরুষ সদস্য লোকমান ও  সংরক্ষিত নারী সদস্য  পারভিনের পরিবারের সদস্য ও আত্বীয় স্বজনদের নাম  রয়েছে। প্রস্তুতকৃত তালিকায় ১৬৩ নম্বর ক্রমিকে  ইউপি সদস্য লোকমান হোসেনের ছেলে পলাশের নাম, ১৯৪ ও ১৯৫ ক্রমিকে আপন ভাগিনা একরামুল ও এসতামুল নাম রয়েছে।  তাদের পেশা কৃষক উল্লেখ করা হলেও তাঁরা দু’জন বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন। ইউপি সদস্য লোকমান হোসেন বিয়াইয়ের পরিবার থেকেও  একই সুবিধা লাভের জন্য তালিকাভ’ক্ত করেন বলেও অভিযোগ করা হয় ।

একই ওর্য়াডের সংরক্ষিত নারী সদস্য পারভিন আক্তার তার স্বামী মিঠু মিয়াকে ২১০ নম্বর ক্রমিকে ও ছেলে পাপ্পুকে ২৮৩ নম্বর ক্রমিকে তালিকাভূক্ত করেছেন। তাঁর পেশা শ্রমিক উল্লেখ করা হয়েছে। তবে কৌশলে পাপ্পুর বাবার নাম আলম লেখা হলেও মুঠোফোন নম্বর ঠিক রাখা হয়।অন্যদিকে ২৫৬ নম্বর ক্রমিকে আসমা নামের এক নারীর নাম উল্লেখ করা হলেও নারী সদস্য পারভিন তার নিজ মুঠোফোন নম্বর দিযেছেন। ১৭৯ নম্বর ক্রমিকে মুনছুর আলীর নাম লেখা হলেও পাশে ইউনিয়ন পরিষদের তথ্যসেবাকেন্দ্রর উদ্যোক্তার মুঠোফোন নম্বর দেওয়া হয়েছে।১৩৩ নম্বর ক্রমিকে হানাইল মাদ্রাসার এমপিওভূক্ত কর্মচারী মোতারব হোসেনের নাম ও ১৬৮ নম্বর ক্রমিকে একই মাদ্রসার অপর এমপিও ভুক্ত কর্মচারী মাহমুদা বেগমের নাম থাকলেও তাদের অতি দরিদ্র বলে উল্লেখ করা হয়েছে। এ ছাড়াও ওই সুবিধাভোগী দরিদ্রদের তালিকায় অনেক স্বচ্ছল ব্যক্তিদের নাম রয়েছে বলেও অভিযোগ করা হয়।

এমন অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চাইলে ইউপি সদস্য লোকমান হোসেন বলেন, ‘১০৬ জনের তালিকা দিয়েছি। ওই তালিকায় আমার ছেলের নাম দিয়েছি,সে ছেলে ব্যাটারী চালিত ইজি বাইক চালায়। এছাড়া আমার ভাগ্নে ও বেহাইয়ের পরিবার গরীব বলে তাদের নাম দিয়েছি। এটাই কি আমার অপরাধ?’সংরক্ষিত ইউপি সদস্য পারভিন আক্তার বলেন, ‘  ত্রাণ পাওয়ার লোভে আমার স্বামী ও ছেলের নাম দিয়েছি। এ ছাড়া তালিকা করার সময় আমার এক চাচীর নামের পাশে আমার মুঠোফোন নম্বর দিয়েছি, এটা  মনে হয় আমার ভূলই হয়েছে।’ সহকারী কমিশনার (ভূমি) রকিবুল হাসান বলেন,  “আমি অভিযোগটি তদন্ত করে তালিকা তৈরীতে অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতির সত্যতা পেয়ে ইতোমধ্যে তদন্দ প্রতিবেদন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কাছে জমা দিয়েছি।

জয়পুরহাট সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মিল্টন চন্দ্র রায়  বলেন, “বম্বু ইউনিয়নের দুই নম্বর ওর্য়াডে প্রধানমন্ত্রীর এককালীন উপহার প্রদানের তালিকা তৈরীতে অনিয়ম হয়েছে। আমরা তদন্ত করে অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতির সত্যতা পেয়েছি। তদন্ত প্রতিবেদন জেলা প্রশাসকের কাছে পাঠানো হয়েছে। ইউএনও জানান, জয়পুরহাট সদর উপজেলা ও জয়পুরহাট পৌরসভাসহ ১৪ হাজার ৭৩২ জনের তালিকা করা হয়েছে। এরমধ্যে এখন পর্যন্ত প্রায় তিন হাজার ব্যক্তি প্রধানমন্ত্রীর এককালীন উপহারের টাকা পেয়েছেন।”

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ জাকির হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, “এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয় ও রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনারকে অনুরোধ করে পত্র দেওয়া হয়েছে।”


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ