• রবিবার, ০২ অগাস্ট ২০২০, ০৯:১৩ পূর্বাহ্ন |

গতি প্রকৃতি সবই বদেলেছে বুড়িখোড়া নদীর

Red Chilli Saidpur

বিশেষ প্রতিনিধি, নীলফামারী।। একদিকে যেমন যৌবন ফিরে পেয়েছে বুড়িখোড়া নদী অন্যদিকে বদলেছে তার চিরচেনা রুপ। হুমকীর মুখে অযতœ অবহেলায় পড়ে থাকা এই নদীটিতে এসেছে স্বাভাবিক গতি। নতুন করে স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছেন মাছ চাষীরাও।
প্রয়োজনীয় উদ্যোগ না নেয়ায় দিনদিন সংকুচিত হচ্ছিলো বুড়িখোড়া নদীটি। এর মাঝে বেদখল হওয়াতো রয়েছে।
নদীর ভিতর চাষাবাদের কারণে নদীর গভিরতা ও প্রশস্ততা হারিয়ে গিয়েছিলো যার ফলে বর্ষা মৌসুমে নদীর প্রবাহমান গতিপথে বৃষ্টির পানি উজান হতে ভাটিতে যেতে বাধাগ্রস্থ হতো এবং পাশ্ববর্তি এলাকা সমুত প্লাবিত হতো।
মৎসজীবী মিজানুর রহমান শাহ বাদল বলেন, নদী পুনঃ খননের ফলে বন্যার পানি থেকে মুক্ত হয়েছে এলাকাবাসী। আগে ফসলি জমি ছাড়াও আশপাশ এলাকাগুলো তলিয়ে যেতো। এখন দ্রুত পানি নিষ্কাশন হওয়ায় আগের মত এখন সেটি আর হচ্ছে না। জমি গুলোতে দুটি ফসল ফলানো যাচ্ছে।
সদর উপজেলা মৎস্যজীবী লীগের সদস্য সচিব গেদন চন্দ্র দাস বলেন, বুড়িখোড়া নদী খননের ফলে পানি থাকছে। এরফলে মাছ উৎপাদন বাড়বে। বিশেষ করে দেশীয় মাছের চাহিদা অনেকাংশে লাঘব হবে।
অন্যদিকে নদীর প্লাবন ভুমিগুলোতে আমন আবাদ হচ্ছে। শুধু মৎস্যই না কৃষিতেও প্রভাব ফেলছে পুনঃখননের ফলে।
সদর উপজেলার লক্ষ্মীচাপ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আমিনুর রহমান বলেন, এতদিন যেভাবে নদীটির চরিত্র দেখে আসছি সে রকম এখন আর নেই।
আগে নদীটির গতি প্রকৃতি ঠিক ছিলো না। অল্প পানিতে বন্যা হয়ে যেতো কারণ পানি নিষ্কাশন করতে পারতো না এখন সেটি আর নেই। এছাড়া নদীটি প্রাকৃতিক আবত তৈরি করতে পেরেছে।
পানি উন্নয়ন বোর্ড নীলফামারী বিভাগ সুত্র জানায়, ৬৪টি জেলার অভ্যন্তরীন ছোট নদী, খাল এবং জলাশয় পুনঃখনন প্রকল্প(প্রথম পর্যায়) গত বছর থেকে বুড়িখোড়া নদীটি ৩২কিলোমিটার দৈর্ঘ্যে পুনঃ খনন কাজ চলমান রয়েছে।
এরফলে নদীর নাব্যতা বৃদ্ধি পাওয়ায় বিগত বছরের বন্যা হতে নদীটির পাশ্ববর্তি এলাকা সমুহ রক্ষা পেয়েছে।
২৮কোটি টাকা ব্যয়ে নদীটির পূনঃখনন কাজ করছে হাসান ব্রাদার্স। খননকারী ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের প্রকল্প পরিচালক বাদল মিয়া জানান, চলতি বছরের নভেম্বরে পূনঃখনন কাজ শেষ হবে। এখন পর্যন্ত ৮৭ভাগ কাজ শেষ হয়েছে।
তিনি বলেন, নদীর পাড় বাধা, ঘাস দিয়ে শোভাবর্ধন এবং বনায়ন কর্মসুচী করা হয়েছে। এরফলে প্রাকৃতিক পরিবেশ ফিরে পাবেন নদী তীরবর্তি মানুষরা।
পানি উন্নয়ন বোর্ড নীলফামারী বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, নাব্যতা বৃদ্ধির পাশাপাশি নদীর গভীরতা ও প্রশস্ততা বেড়ে যাওয়ার কারণে শুষ্ক মৌসুমেও নদীতে পানি প্রবাহ থাকবে যা কৃষিতে সেচ কাজে ব্যবহার করা যাবে। নদীতে মৎস্য উৎপাদন বেড়ে যাওয়ার ফলে বেকারত্ব ও দারিদ্র অনেকাংশে দুরীভুত হবে।
এছাড়াও প্রকল্পটির আওতায় নদী খননের পাশাপাশি নদীর দুই পাড়ে বনায়ন কর্মসুচী রয়েছে যার ফলে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা পাবে।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

আর্কাইভ