• শুক্রবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৪:০৪ পূর্বাহ্ন |

সৈয়দপুরে ভিজিএফ চাল বিতরণে অনিয়মে গঠিত তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন দাখিল

সিসি নিউজ, ০৬ আগষ্ট ।। নীলফামারীর সৈয়দপুরে ভিজিএফ এর চাল বিতরণে অনিয়মের ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটি প্রতিবেদন দাখিল করেছে। গত বুধবার উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর দাখিলকৃত প্রতিবেদনে কাশিরাম বেলপুকুর ইউপি চেয়ারম্যান এনামুল হক চৌধুরীকে অভিযুক্ত করা হয়েছে জানা গেছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া হতদরিদ্রের জন্য ভিজিএফ চাল বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ ওঠায় ওই চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাসিম আহমেদ। কমিটির আহ্বায়ক করা হয় উপজেলা প্রানি সম্পদ কর্মকর্তা ডা. রাশেদুল হক, অন্য ২ জন সদস্য হলেন উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা মিজানুর রহমান ও উপজেলা সহকারী খাদ্য কর্মকর্তা মাহমুদ হাসান। তদন্ত কমিটি ৩ কার্য্য দিবসের মধ্যে তথ্য উপাত্ত সংগ্রহের মাধ্যমে প্রতিবেদনটি দাখিল করেন। তদন্ত প্রতিবেদনে চেয়ারম্যানের চাল বিতরনে অনিয়মের প্রমাণ মিলেছে বলে একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে। সূত্রটি আরও জানায়, যেহেতু চেয়ারম্যান নিজেই স্বীকার করেছেন চাল শেষ হয়ে যাওয়ায় পরবর্তীতে ২শ ৫০ জন ব্যক্তিগত তহবিল থেকে চাল ক্রয়ের মাধ্যমে বিতরণ করা হয়। যা সম্পূর্ণ আইন পরিপন্থি। কেননা বিতরনের উদ্দেশ্যে খাদ্য গুদাম থেকে ওই ইউনিয়নের জন্য ৯ হাজার ৯শ ৯৮ জনের জন্য চাল উত্তোলন করা হয়। তাহলে বাকি ২শ ৫০ জনের চাল কোথায় গেল। এছাড়াও আরও ৭টি অনিয়মের প্রমাণ মিলেছে বলে সূত্রটি নিশ্চিত করেছে। তদন্ত কমিটির আহবায়ক ডা.রাশেদুল হক বলেন, নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই তদন্তকাজ সম্পন্ন করে প্রতিবেদন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। প্রদিবেদন সাপেক্ষে এখন তিনিই পরবর্তী কার্যক্রম গ্রহণ করবেন। তদন্ত প্রতিবেদনে কি আছে সেই বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাই বলবেন বলে জানান তিনি। এদিকে, চাল বিতরনের অনিয়মের ঘটনায় ইউপি সচিব রশিদুল ইসলামকে ডোমারে বদলি করা হয়েছে বলে জানা গেছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাসিম আহমেদ প্রতিবেদন প্রাপ্তির সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, বিষয়টি পর্যালোচনা করা হচ্ছে। এই মুহুর্তে এর চেয়ে বেশি কিছু বলা সম্ভব নয়।
উল্লেখ্য গত মাসের ২৭ ও ২৮ জুলাই ভিজিএফের চাল বিতরণ করেন ওই ইউপি চেয়ারম্যান। অবশিষ্ট বেশ কিছু লোককে চাল দেয়ার কথা ছিল ২৯ জুলাই। চাল পাওয়ার আশায় অসহায় দুস্থ মানুষরা ভোর থেকে ভীড় জমায় ইউপি চত্বরে। কিন্তু দুপুর বেলা এসে চেয়ারম্যান জানায় চাল শেষ হয়ে গেছে। এ কথা শুনার পর স্লিপধারীরা পরিষদ চত্বর ঘেরাও করে বিক্ষোভ করে। ঘটনাটি বিভিন্ন সংবাদপত্রে প্রকাশের পর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উক্ত তদন্ত কমিটি তৈরী করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ