• শুক্রবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১:১০ পূর্বাহ্ন |

অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধে ডিসিদের কাছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের চিঠি

সিসি ডেস্ক ।। দেশব্যাপী অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধ করতে মাঠ প্রশাসনকে কড়া বার্তা দিয়েছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। সরকারের বালুমহাল নয়, এমন এলাকা থেকেও ড্রেজার মেশিন দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। এর ফলে সরকারের অনেক গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প বা স্থাপনাও ক্ষতির সম্মুখীন।

এমতাবস্থায় অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধে সব জেলা প্রশাসককে (ডিসি) প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে চিঠি দিয়েছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। খবর সংশ্লিষ্ট সূত্রের।

৬ সেপ্টেম্বর মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের জারি করা ওই চিঠিতে বলা হয়েছে, ‘বর্তমান সরকারের অগ্রাধিকার প্রকল্প হিসেবে পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্প, পদ্মা রেল সেতু সংযোগ প্রকল্প, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পের কাজ চলছে।

সম্প্রতি বিভিন্ন প্রিন্ট এবং ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় প্রচারিত সংবাদে দেখা যায়, কতিপয় দুষ্কৃতকারী অতীব গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প সংলগ্ন এলাকায় এবং সরকারের বালুমহাল হিসেবে ঘোষিত নয় এমন এলাকা থেকে ড্রেজার মেশিন দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করছে।

এছাড়া কোনো কোনো অনুমোদিত ইজারাদারও বালুমহাল ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইন-২০১০ অনুসরণ না করে বালু উত্তোলন করছেন। ফলে পরিবেশের ব্যাপক ক্ষতিসহ সংশ্লিষ্ট এলাকায় নদীভাঙন বৃদ্ধি পাচ্ছে। গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা হুমকির সম্মুখীন হচ্ছে।

সে কারণে অবৈধ বালু উত্তেলন এবং বিপণন সম্পূর্ণ বন্ধ করা প্রয়োজন। এমতাবস্থায় গুরুত্বপূর্ণ সব প্রকল্প সংলগ্ন এলাকা এবং সব নদী, জলাভূমি, নিুাঞ্চল থেকে অবৈধ বালু উত্তোলন এবং বিপণন সম্পূর্ণ বন্ধে সংশ্লিষ্ট আইনে নিয়মিত মোবাইল কোর্ট পরিচালনাসহ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।’

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, স্থানীয় প্রভাবশালীরা অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে পরিবেশ-প্রতিবেশ হুমকিতে ফেলছে। দেশের বড় কয়েকটি প্রকল্প বিশেষ করে পদ্মা সেতু প্রকল্পের নদী শাসনেও বালু উত্তোলন নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে।

তাই এ বিষয়টিকে স্থানীয়ভাবে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে দায়িত্ব পালন নিশ্চিত করতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। সম্প্রতি মাদারীপুরে অবৈধ বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেয়ার পরিপ্রেক্ষিতে মাদারীপুরের স্থানীয় রাজনৈতিক চাপে ২৮ আগস্ট জেলার ডিসির বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছিল। পরে সরকার ও বিচার বিভাগের উচ্চ পর্যায়ের হস্তক্ষেপে ৬ সেপ্টেম্বর ডিসির বিরুদ্ধে করা সেই মামলা প্রত্যাহার করা হয়। ওইদিনই অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধের বিষয়ে নতুন নির্দেশনা জারি করে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।

মাঠ প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, সারা দেশে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধে উদ্যোগ নিতে গেলেই স্থানীয় ক্ষমতাসীনদের বাধার মুখে পড়তে হচ্ছে প্রশাসনকে। বিষয়টি বর্তমান সময়ে বড় সমস্যা হিসেবে দেখা দিয়েছে।

এর মধ্যে মাদারীপুরের ডিসির বিরুদ্ধে মামলার কারণে অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে কড়া প্রতিবাদ জানানো হয়েছিল।

৫ সেপ্টেম্বর অ্যাসোসিয়েশনের সংবাদ সম্মেলনে ‘মাদারীপুরের একজন স্থানীয় প্রভাবশালীর’ কারণে ডিসির বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছিল বলে তারা অভিযোগও করেছিল।

অন্যদিকে দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটের ইউএনও আক্রান্ত হওয়ার বিষয়ে স্থানীয়ভাবে অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধের পদক্ষেপকে একটি বড় কারণ বলে মনে করা হচ্ছে।

রাজনৈতিকভাবে একটি দুষ্টচক্র সরকারের অনেক ভালো অর্জন নষ্ট করে দিচ্ছে। তাদেরকে নিয়ন্ত্রণ করতেই উল্লিখিত আদেশ দেয়া হয়েছে। যাতে মাঠ প্রশাসন সাহসিকতার সঙ্গে কাজ করতে পারে।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ