Logo

চাঁদার দাবিতে কলেজছাত্রী ও স্কুলছাত্রকে বিবস্ত্র করে ভিডিও ধারণ

সিসি ডেস্ক, ১৭ সেপ্টেম্বর ।। পিরোজপুরের নাজিরপুরে দ্বাদশ শ্রেণির এক কলেজছাত্রী ও দশম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রকে দিনভর আটক রেখে বিবস্ত্র করে ছবি ও ভিডিও ধারণ, মারধর ও চাঁদা দাবির অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় বুধবার রাতে ঘটনায় মূল অভিযুক্ত মনির নামে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ।

আহত কলেজছাত্রী ও তার সঙ্গে থাকা স্কুলছাত্র সজিব হালদার (১৫) উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি রয়েছে।

এ ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ মনির শেখ (৪০) নামের এক যুবককে রাত সাড়ে ৯টার দিকে আটক করেছেন। আটককৃত মনির শেখ উপজেলার গোপের খাল গ্রামের ময়ুর শেখের ছেলে।

আহত কলেজছাত্রী (১৭) উপজেলা সদরের একটি কলেজের দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্রী। আর তার সঙ্গে থাকা স্কুলছাত্র সজিব হালদার (১৫) উপজেলার কবিরাজ বাড়ি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্র। তাদের উপজেলার কুমারখালী গ্রামের পাশাপাশি বাড়ি।

আহতদের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, কলেজছাত্রীর দাদা বাড়ি উপজেলার শাঁখারিকাঠী ইউনিয়নের হোগলাবুনিয়া গ্রামে। আর স্কুলছাত্রের ফুফু বাড়ি একই এলাকায়। এ সূত্র ধরে তারা এক সঙ্গে সকাল ৯টার দিকে হোগলাবুনিয়া যাচ্ছিল।

তারা সেখানে যাওয়ার সময় স্থানীয় মনীন্দ্র নাথ ঢালীর বাড়ির উত্তর পাশের রাস্তায় তিন যুবক তাদের পথ আটকে একটি কলাবাগানে নিয়ে যায়। সেখানে দিনভর আটকে তাদের বেদম মারধর করে ও বোরকা খুলে ছবি তোলে ও স্পর্শকাতর স্থানে হাত দেয়। পরে তাদের পিতা-মাতার কাছে এক লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে।

কলেজছাত্রীর পিতা জানান, গোপেলখাল গ্রামের ময়ুর শেখের ছেলে মনির শেখ (৪০), সনজিৎ শিকদারের ছেলে অভিজিৎ শিকদার (২৫) ও শাঁখারীকাঠী গ্রামের শফিকুর রহমান মল্লিক (২৮) তার মেয়ে ও বাড়ির পাশের ওই ছেলেকে আটকে আমাদের মোবাইল ফোনের মাধ্যমে একলাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। আমরা ওই টাকা নিয়ে তাদের দেয়া তথ্য মতে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে ঘোরাঘুরি করি। পরে সন্ধ্যার দিকে স্থানীয়রা তাদের ওই গ্রামের ঢালীর কলাবাগান থেকে উদ্ধার করে।

নাজিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মুনিরুল ইসলাম মুনির জানান, এ ঘটনায় অভিযুক্ত প্রধান আসামি মনির শেখকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।