• রবিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৩:১০ অপরাহ্ন |

নারীদের আর্থসামাজিক উন্নয়নে কাজ করছেন শিউলি বেগম

।। খুরশিদ জামান কাকন ।। যুগের সাথে তাল মিলিয়ে নারীরা এগিয়ে যাচ্ছে। সমাজ উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। কিন্তু তারপরও এখনো বাংলাদেশের বেশিরভাগ পরিবারে বিবাহিত নারীদের ঘরসংসার সামলানোই প্রধান কাজ। এর বাইরে খুব বেশি কিছু করার সুযোগ থাকেনা তাদের।
উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হয়েও অনেক নারীকে ঘরের কোনে চুপটি করে বসে থাকতে হয়। যার ফলে নারীদের অর্থনৈতিকভাবে স্বাভলম্বী হওয়ার সুযোগ নেই। চলতে ফিরতে সবসময় পরনির্ভরশীল থাকতে হয়। মূলত এই ভাবনা থেকেই তৃণমূল পর্যায়ে পিছিয়ে পড়া নারীদের আর্থসামাজিক উন্নয়নের লক্ষ্যে কাজ করছেন শিউলি বেগম।
নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলার বাসিন্দা শিউলি বেগম পেশায় একজন মানুষ গড়ার কারিগর। তিনি সৈয়দপুর মহিলা কলেজে প্রভাষক হিসেবে নিযুক্ত  আছেন। চাকরির পাশাপাশি ঘরসংসার সামলানোর কাজটাও নিজে করে থাকেন। এর ফাকে যতোটুকু সময় পান শখের বশে বিভিন্নধরনের উল সুতার ডোরমেট, রুম সেটাপ, কাপড় ও পুতির তৈরি ব্যাগ বানাতে মনোযোগ দেন।
চলমান করোনাকালীন দূর্যোগে ঘরবন্দী সময়টাতে শিউলি বেগম তার এই হস্ত্রশিল্পের কাজে পূর্ণমনোযোগ দেন। একে একে অনেকগুলো পণ্য তৈরি করেন। প্রতিবেশী গৃহণীদেরও একাজে উৎসাহিত করেন। কলেজের ছাত্রীদেরকেও নিজ হাতে প্রশিক্ষণ দেন। ধীরেধীরে তার এই কাজে স্বামী-সন্তানের পূর্ণ সমর্থন পান।
সৈয়দপুরের উদ্দ্যোমী এই নারী উদ্দ্যোক্তা এতেই খ্রান্ত থাকেননি। পিছিয়ে পড়া নারীদের সাথে নিয়ে ‘সৈয়দপুর ওম্যান ই-কমার্স ফোরাম’ নামে একটি সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেন। এই সংগঠনের মাধ্যমে হস্ত্রশিল্পে পারদর্শী নারীদের একত্রিত করেন। অনলাইন মার্কেটিংয়ের মাধ্যমে তাদের তৈরিকৃত পণ্যসামগ্রী ক্রেতাদের নিকট বিক্রির বন্দোবস্ত শুরু করেন।
নারীদের অার্থসামাজিক উন্নয়নে কাজ করা তার এই সংগঠনের উদ্দ্যোগে প্রতি দুইমাস অন্তর অন্তর সৈয়দপুরে বেশ ঘটা করে ঘরকুনো গৃহণী ও ছাত্রীদের তৈরিকৃত পণ্যসামগ্রী প্রদর্শনীর ব্যবস্থা করা হয়। সৈয়দপুর ওম্যান ই-কমার্স ফোরামের প্রদর্শনীতে স্টল জুড়ে পাওয়া যায় হ্যান্ড এম্বোডারির জামা কাপড়, হ্যান্ডপেইন্টেড জামা ব্লাউজ পিছ, কুশন কাভার, কুরুশ কাটার তৈরি জামা, টুপি, নক্সি কাথা, টেবিল ম্যাট, ডোর ম্যাড। আরো রয়েছে সুতার ডোর ম্যাট, রুম সেটাপ, সো পিছ, রূপচর্চার হোম মেড ফেস প্যাক সহ বিভিন্ন খাদ্যসামগ্রী।
প্রভাষক শিউলি বেগমের একান্ত প্রচেস্টায় পিছিয়ে পড়া নারীদের অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী করার লক্ষ্যে এরইমধ্যে সৈয়দপুর ওম্যান ই-কমার্স ফোরামের পক্ষ থেকে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থাও করা হয়েছে। যেখানে নামমাত্র ২০ টাকা রেজিস্ট্রেশন ফি দিয়ে প্রত্যন্ত অঞ্চলের কর্মহীন নারীরা হাতের কাজ শেখার পর্যাপ্ত সুযোগ পাচ্ছেন। সেই সাথে সংগঠনটির প্রদর্শনী ও অনলাইন প্লাটফর্মে নিজেদের তৈরি পণ্যসামগ্রী বিক্রি করতে পারছেন।
সৈয়দপুর ওম্যান ই-কমার্স ফোরামের সদস্য গৃহণী কাকুলী আক্তার জানান, ‘আগে থেকে টুকটাক হাতের কাজ জানতাম। অবসর সময়ে বিভিন্ন কিছু বানাতাম। কিন্তু কখনো ভাবিনি যে আমার এই কাজটাকে সবার কাছে ছড়িয়ে দিতে পারবো। এটা সম্ভব হয়েছে শুধুমাত্র শিউলি ম্যাডামের কল্যাণে।’
সংগঠনটির আরেক সদস্য সৈয়দপুর মহিলা কলেজের ছাত্রী রুপা আক্তার জানান, ‘অনেকদিনের ইচ্ছে হাতের কাজ শিখবো। কিন্তু ব্যস্ততার কারনে তা সম্ভব হয়নি। বর্তমানে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের এসময়টা কাজে লাগিয়ে শিউলি ম্যাডামের কাছে কাজ শিখে খুদে উদ্দ্যোক্তা হওয়ার স্বপ্ন দেখছি।’
সৈয়দপুর ওম্যান ই-কমার্স ফোরামের প্রতিষ্ঠাতা শিউলি বেগম জানান, ‘লোকে কি ভাবলো, কে কি বললো তাতে যায় আসেনা আমাদের। মুখে নারী-পুরুষের সমঅধিকার নিয়ে অনেককেই গলাবাজি করতে দেখা যায়। কিন্তু নারীদের অর্থনৈতিক মুক্তি নিয়ে কারোরই মাথাব্যথা নেই। নারীদের আর্থসামাজিক উন্নয়ন ঘটলে শুধু পরিবারের স্বচ্ছলতা নয়, দেশেরও উন্নতি ঘটবে। এ লক্ষ্যেই আমরা দিনরাত এক করে কাজ করে যাচ্ছি।’
সৈয়দপুর মহিলা কলেজের অর্থনীতি বিভাগের এই প্রভাষক আরো জানান, ‘পিছিয়ে থাকা নারী সমাজের যারা ঘরে বসে হাতের কাজ করে ইনকাম করতে চায় তাদেরকে নিয়েই আমাদের পথচলা। যেকোনো উদ্দ্যোমী নারী আমাদের সংগঠনের সদস্য হতে পারবেন। প্রশিক্ষণ নিয়ে নিজেকে উদ্দ্যোক্তা হিসেবে আবির্ভাব ঘটাতে পারবেন। অদূর ভবিষ্যতে সরকারি-বেসরকারি সহযোগিতা পেলে নারী উদ্দ্যোক্তা গড়ে তোলার এই কার্যক্রম বৃহৎ পরিসরে ছড়িয়ে দেওয়ার চেস্টা থাকবে।’


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ