• মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০, ০৫:৪৭ অপরাহ্ন |

ব্যাংকের শাখা স্থানান্তরে ক্ষুব্ধ হাবিপ্রবি শিক্ষার্থী

সিসি ডেস্ক, ০৩ অক্টোবর।। দিনাজপুর হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র (টিএসসি) এর দ্বিতীয় তলায় রুপালি ব্যাংকের বিশ্ববিদ্যালয় শাখা স্থানান্তর করায় অসন্তোষ ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র শিক্ষক কেন্দ্র (টিএসসি) ৫ম তলা বিশিষ্ট। এর মধ্যে ক্লাস সংকটের কারণে ৪র্থ এবং ৫ম তলা যথাক্রমে স্থাপত্য বিভাগ এবং এ্যাগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং ও ম্যাকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগকে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। অন্যদিকে ৩য় তলা ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা বিভাগের কার্যালয় হিসেবে ব্যবহৃত হয়।বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয় প্রায় ১১ হাজারের বেশি শিক্ষার্থী অধ্যয়ন করছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের রিহার্সেল, সেমিনার, পার্টি, এক্সিবিশনের জন্য ১ম তলা ও ২য় তলা ব্যবহার করতো ছাত্র-ছাত্রীরা। কিন্তু এতেও জায়গার সংকুলান হচ্ছিল না।

এরই মধ্যে ২০১৯ সালে মে মাসে প্রথম দফায় টিএসসি’র ২য় তলায় ব্যাংক স্থানান্তরের কাজ শুরু হলেও সাধারণ শিক্ষার্থীরা অসন্তোষ ও ক্ষুব্ধ হলে শিক্ষার্থীদের তোপের মুখে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ব্যাংক স্থানান্তরের কাজ বন্ধ করতে বাধ্য হয়। ফলে টিএসসি’র ২য় তলায় ব্যাংক স্থানান্তরের কাজ হবে না বলে এই আশ্বাস দিয়ে দীর্ঘদিন ধরে ছাত্র শিক্ষক কেন্দ্র (টিএসসি) ২য় তলা অব্যবহৃত অবস্থায় তালা মেরে রাখা হয়।

গত ১৭ মার্চ থেকে করোনা ভাইরাস সংক্রমনে সারা দেশে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হওয়ায় শিক্ষার্থীরা নিজ নিজ বাসায় অবস্থান করে। কিন্তু এমতাবস্থায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ২য় তলায় রুপালি ব্যাংকের বিশ্ববিদ্যালয় শাখা স্থানান্তরের কাজ পুনরায় শুরু করলে সাধারণ শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের প্রতি ক্ষোভ এবং অসন্তোষ প্রকাশ করে।

পুনরায় ব্যাংক স্থানান্তরের কাজ শুরু হওয়ায় একজন সাধারণ শিক্ষার্থী হিসেবে ফিসারিজ অনুষদের শিক্ষার্থী দেলোয়ার হোসাইন ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, গতবছর যখন ব্যাংক নির্মাণের উদ্যোগ নেয় তখন সাধারণ শিক্ষার্থী হিসেবে আমরাই প্রথম এর বিরুদ্ধে কথা বলেছিলাম। তখন প্রশাসনের সঙ্গে আলোচনা হয়। প্রশাসন কথা দেয় যে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন শিক্ষার্থীদের পক্ষে রয়েছে। পরে ব্যাংকের কাজ বন্ধ হয়ে যায়।

এসময় তিনি আরো জানান, বর্তমানে কয়েকদিন আগে আমি বিশ্ববিদ্যালয়ে আসে দেখি যে এখানে টিএসসির পাশে একটা গেট নির্মাণ হচ্ছে। খোঁজ খবর নিয়ে জানতে পারি পুনরায় ব্যাংকের কাজ শুরু করেছে। এরপর আমি কয়েকদিন ভিতরে গিয়ে ছবি তোলার চেষ্টা করি কিন্তু পারি নি। আজকে ছবি তুলে পোস্ট দেই। আসলে প্রশাসনের কাজ হচ্ছে শিক্ষার্থীরা কি চায় তা ভেবে দেখা। কিন্তু বর্তমান প্রশাসন শিক্ষার্থীদের সুযোগ সুবিধার কথা চিন্তা করে না। আজকে ১১০০০ শিক্ষার্থীরা কোথায় বসবে? তাদের এসাইনমেন্ট, প্রোজেক্ট কোথায় বসে করবে? টিএসসিতে ফ্রি ওয়াইফাই ব্যবহার করে অনেকেই তাদের এসাইনমেন্ট করতো। আসলে সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের বিপক্ষে গিয়ে কোনো কাজ করলে একধরনের স্বেচ্ছাচারিতার প্রকাশ পায়।”

এ বিষয়ে হাবিপ্রবির প্লানিং এ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট শাখার পরিচালক প্রফেসর ড. মো: মোস্তাফিজুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ক্যাম্পাসলাইভকে জানান, “এটা আমার বিষয় না। আপনারা ভিসি স্যারের সাথে কথা বলুন। ভিসি স্যার অনুমতি দিয়েছেন কাজ শুরু করতে”।

এছাড়াও এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার প্রফেসর ডা. মোঃ ফজলুল হকের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ক্যাম্পাসলাইভকে জানান, ‘এতে সমস্যার কিছু দেখি না। কারণ দশ তলা ভবনের কাজ শেষ হলে টিএসসির চতুর্থ এবং পঞ্চম তলার ক্লাশগুলো ওখানে শিফট করা হবে।তখন সাধারণ শিক্ষার্থীরা ওই ফ্লোরগুলো পাবে’।

তবে এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. মো: আবুল কাসেমের সাথে মুঠোফোনে বারবার যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেন নি।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ