• মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০, ০৩:০০ অপরাহ্ন |

সৈয়দপুরে মুঠোর চাল জমিয়ে দূর্গাপূজার আয়োজন

সিসি নিউজ, ২৪ অক্টোবর ।। ভাতের চাল থেকে এক মুঠো করে চাল জমিয়ে পূজার আয়োজন করেছে নীলফামারীর সৈয়দপুরের একটি গ্রামের নারীরা। উপজেলার বাঙ্গালীপুর ইউনিয়নের মালিপাড়ার  ২৪ পরিবারের নারীরা বিগত ১৪ বছর থেকে এভাবে পূজার আয়োজন করছে।

সরেজমিনে ও্ই গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, গ্রামটি পুরুষশুণ্য। মালিপাড়া বা ঢুলিপাড়ার পুরুষদের আয়ের একমাত্র পথ বিভিন্ন অনুষ্ঠানে ঢোল বাজানো। বিশেষ করে দূর্গাপূজায় ঢোল বাজাতে গিয়ে পুরুষশুন্য হয়ে পড়ে মালিপাড়া। তাই এ পাড়ার মহিলারা বিগত ১৪ বছর থেকে মুঠো চাল জমিয়ে ও সরকারের অনুদানে প্রাপ্ত চাল দিয়ে পূজার কার্যাদি সম্পন্ন করে। ঢাক, ঢোল, তাল সবই বাজাচ্ছে নারীরা। পূজার আরতি থেকে প্রসাদ বিতরণে নারীরা।

অর্থের অভাবে দীর্ঘদিন থেকে সংস্কার না করায় পূজামন্ডপের টিনের চাল ফুটো হয়ে গেছে। সামান্য বৃষ্টিতে চুয়ে পড়া পানি দিয়ে মন্দিরের মেঝে কদমাক্ত হয়ে পড়ে। সামনের দেয়াল বা দরজা না থাকায় অরক্ষিত থাকে মন্দির ঘরটি। পলেস্তার না করায় বাকী দেয়ালগুলো নষ্টের পথে।

মালিপাড়া পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি দিপালী রানী জানান, প্রায় ৫০ হাজার টাকা ব্যয় হবে এ পূজায়। এর মধ্যে সরকারের অনুদানের ৫০০ কেজি চাল বিক্রি করে ১৭ হাজার ৫শত টাকা পেয়েছে। বাকী টাকা মুঠের চাল হতে প্রাপ্ত টাকা দিয়ে সমন্বয় করা হবে। পূজার পরেও টাকার ঘাটতি হলে আবারো মুঠো চাল জমিয়ে দিয়ে তা পূরণ করা হবে।

কমিটির সাধারন সম্পাদক গীতা রানী সিসি নিউজকে জানান, পূরনো মন্ডপ ঘরটি মেরামত না করায় বৃষ্টি পড়ে টিনের চালের ফুটো দিয়ে। অর্থের অভাবে সাউন্ড সিস্টেম করতে পারেনি। ফলে অন্যান্য স্থানে জাঁকজমক আয়োজন দেখে এখানকার শিশু-কিশোররা পূজার পরিবেশে মন বসছে না। তিনি হিন্দু সম্প্রদায়ের বিত্তবানদের কাছে মন্দির ঘরটি মেরামতের জন্য আবেদন জানান।

কথা হয় বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ সৈয়দপুর উপজেলা শাখার সভাপতি রাজ কুমার পোদ্দারের সাথে। তিনি জানান, বিষয়টি আমাদের নজরে রয়েছে। করোনাকালীন সময়ে ওই গ্রামে বসবাসরত মালি সম্প্রদায়ের লোকদের খাদ্য সামগ্রী দেয়া হয়েছিল। তিনি পিছিয়ে পড়া ওই জনগোষ্ঠির মন্দিরটিতে সাহায্য দিয়ে উন্নত পরিবেশে পূজা অর্চনা করার সুযোগ করে দেয়ার জন্য সরকারে কাছে আবেদন জানান।

সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাসিম আহমেদ সিসি নিউজকে জানান, মালিপাড়ায় মুঠোর চাল জমিয়ে পূজা আয়োজনের বিষয়টি জানা ছিল না। তিনি ওই গ্রামের পূজামন্ডপ পরিদর্শনে যাবেন। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সরকারী সহায়তা দিয়ে মন্দিরটিকে সংস্কার করে উন্নত পরিবেশে পূজা-অর্চনা করার ব্যবস্থা করা হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ