• সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০, ০১:০৪ পূর্বাহ্ন |

স্বেচ্ছাসেবক লীগের নতুন কমিটি নিয়ে সমালোচনা!

সিসি ডেস্ক ।। স্বেচ্ছাসেবক লীগের নতুন কমিটি নিয়ে জোরাল হচ্ছে সমালোচনা। ছাত্রলীগের বর্তমান কমিটিতে থাকা একজনকে সরাসরি সম্পাদক পদ দেওয়া, ক্যাসিনোকাণ্ডে অভিযুক্তদের কমিটিতে রাখা, বিতর্কিত এক গার্মেন্ট মালিককে পদায়ন, বিএনপি-জামায়াত সংশ্লিষ্টদের কমিটিতে স্থান পাওয়া, আগের কমিটির বিতর্কিতরা ভালো পদে যাওয়া; প্রশ্ন উঠেছে এসব নিয়ে। পাশাপাশি আগের কমিটির কিছু ত্যাগী নেতাকে বাদ দেওয়া নিয়েও তৈরি হয়েছে ক্ষোভ।

নতুন কমিটির সহ-সভাপতি গাজী মেজবাউল হোসেন সাচ্চু, ম. আব্দুর রাজ্জাক, কাজী শহিদ্দুল্লাহ লিটন, দেবাশীষ বিশ্বাস, সালেহ মোহাম্মদ টুটুল, মো. নাসির, অ্যাডভোকেট. মানিক ঘোষকে নিয়ে নানা সমালোচনা রয়েছে।

সাচ্চু ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের এক নেতার হত্যাকাণ্ডে অভিযুক্ত। তার বিরুদ্ধে মিরপুরের একাংশ নিয়ন্ত্রণের অভিযোগও আছে। আব্দুর রাজ্জাক ছাত্রলীগের সাবেক নেতা প্রয়াত ডা. জাহাঙ্গীর সাত্তার টিংকুর সম্পত্তি আত্মসাৎ করেছেন বলে অভিযোগ আছে। গত ১৫ সেপ্টেম্বর ফেসবুক স্ট্যাটাসে এই অভিযোগ করেন টিংকুর স্ত্রী খুজিস্তা নূর-ই-নাহরীন। অপরদিকে কাজী শহিদ্দুল্লাহ লিটন, দেবাশীষ বিশ্বাস এবং মানিক ঘোষের ছিল ক্যাসিনো সংশ্লিষ্টতা।

দেবাশীষের বিরুদ্ধে রাজধানীজুড়ে টেন্ডারবাজির অভিযোগ দীর্ঘদিনের। এ ছাড়া সালেহ টুটুল সাবেক সভাপতি কাউছার মোল্লার মাধ্যমে সংগঠনে কমিটির সংখ্যাসীমা লঙ্ঘন করেছিলেন বলে অভিযোগ আছে। তখন ২১৭ সদস্যবিশিষ্ট কমিটি ছিল বলে স্বেচ্ছাসেবক লীগের অনেকে অভিযোগ করেন। টুটুলের বিরুদ্ধে কিংস পার্টি করারও অভিযোগ আছে।

যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোবাশ্বের হোসেন চৌধুরীর বিরুদ্ধে টেন্ডারবাজি ছাড়াও ক্যাসিনো কারবারে জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে।

এ ছাড়া সদস্যপদ পাওয়া ‘অ্যাডভোকেট’ দেলোয়ার হোসেন এবং ‘অ্যাডভোকেট’ মশিউর রহমান অ্যাডভোকেট নন বলে জানা গেছে। তারা এখনও আইনজীবী হিসেবে রেজিস্ট্রেশন পাননি। সদস্যপদ পাওয়া আরেক ব্যক্তি মনির হোসেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ব্যক্তিগত কর্মচারী জাহাঙ্গীর হোসেনের ভাই। তার কোনো রাজনৈতিক ব্যাকগ্রাউন্ড নেই বলে জানিয়েছেন স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতারা।

অন্যদিকে, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে এ কে এম আজিম এবং খায়রুল হাসান জুয়েলকে অন্তর্ভুক্ত করে প্রশংসিত হয়েছে স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি নির্মল রঞ্জন গুহ এবং আফজালুর রহমান বাবু। ভালো সংগঠক হিসেবে খ্যাতি আছে দুজনেরই।

সাংগঠনিক সম্পাদক ফরিদুর রহমান ইরান আগে থেকেই বিতর্কিত। তার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজী, দখলবাজী, টেন্ডারবাজী ও ক্যাসিনো সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ রয়েছে। ক্যাসিনোবিরোধী অভিযানের সময় তাকে ধরতে তার বাসায় অভিযানও চালানো হয়েছিল।

অন্যদিকে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক নেতা এবং কোভিড-প্রতিরোধী কার্যক্রমে অংশ নিয়ে সুনাম কুড়ানো নাফিউল করিম নাফা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক দুই সভাপতি মেহেদী হাসান মোল্লা ও আবিদ আল হাসানের অন্তর্ভুক্তিতে প্রশংসিত হয়েছে এবারের কমিটি।

এদিকে শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক ডা. বদরুজ্জামান ভূঁইয়ার আওয়ামী রাজনীতিতে অতীতে কোনো পদ ও অভিজ্ঞতা নেই বলে সংগঠনটির নেতারা জানান। আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক আক্তার হোসেন ভূঁইয়া মিরন লন্ডনে থাকেন। মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক জুয়েল আহমেদ একজন মন্ত্রীর একান্ত সহকারী। সংগঠনে সক্রিয় নন। গত কমিটিতে স্বেচ্ছসেবক লীগের সদস্য এবং একইসঙ্গে যুবলীগের সহ-সম্পাদক থাকায় বিপুল সমালোচিত হন তিনি। তথ্য প্রযুক্তি সম্পাদক সাকিল আহমেদ ছাত্রলীগের বর্তমান কমিটিতে থাকা সত্ত্বেও স্বেচ্ছাসেবক লীগে একই পদ পেয়েছেন। গ্রেনেড হামলায় আহত আনোয়ার পারভেজ টিংকু প্রতিবন্ধী উন্নয়ন বিষয়ক সম্পাদক হওয়ায় বাহবা পেয়েছেন বেশ।

উপ-প্রচার সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান বিপ্লবের শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। উপ- প্রশিক্ষণ ও কর্মশালা বিষয়ক সম্পাদক ওয়াহেদুল ইসলাম সজিব এবং উপ-মানবাধিকার বিষয়ক সম্পাদক আমিনুর রহমান সোহেল দুজনই স্বেচ্ছাসেবক লীগের পাশাপাশি আওয়ামী লীগের উপ-কমিটির সদস্য। যা সংগঠনের গঠনতন্ত্র পরিপন্থী।

উপ-পাট ও বস্ত্র বিষয়ক সম্পাদক তারেক মাহমুদ চৌধুরী পাপ্পু সম্প্রতি চট্টগ্রাম নগরীর হালিশহর থানায় দায়ের করা একটি অপহরণ মামলার ২ নম্বর আসামি। গত ১৭ অক্টোবর বিকেলে সাইফুল ইসলাম নামের এক সিঅ্যান্ডএফ ব্যবসায়ীকে অপহরণের অভিযোগে এই মামলা করা হয়।

কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য হওয়া জাবেদ মাসুদের পুরো নাম জাবেদুল আলম মাসুদ। তাঁর বড় ভাই জামায়াতের নেতা রাশেদুল আলম মঞ্জু। নগরীর শুলকবহর ওয়ার্ড জামায়াতের সভাপতি ও পাঁচলাইশ থানা জামায়াতের প্রচার সম্পাদক ছিলেন তিনি। এখন নগরীর জামায়াতের ব্যবসায়ী সংগঠনের ওয়ার্ড শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক।

আওয়ামী লীগ বা সহযোগী কোনো সংগঠনের কমিটিতে কোনো পদে ছিলেন না কেন্দ্রীয় কমিটিতে সদস্যপদ পাওয়া বোখারি আজম। স্থানীয় নেতারা জানান, তাঁর শ্বশুর নগরীর ফিরিঙ্গিবাজার ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি আবদুল মাবুদ। সদস্যপদে স্থান পাওয়া মো. আজগর আলী সৌদি আরব প্রবাসী। তিনি মদিনা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক পদে ছিলেন।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক আফজালুর রহমান বাবু বলেন, ‘কমিটিতে বিতর্কিতরা থাকতে পারবে না। কারও বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠলে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যব্স্থা নেওয়া হবে। আমরা কাজের মাধ্যমে স্বেচ্ছাসেবক লীগের ইমেজ বাড়াতে চাই। বিতর্কিতরা থাকলে এ কাজ বাধাগ্রস্ত হবে।’ উৎস: বাংলা ট্রিবিউন


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ