• মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০, ০৩:১৮ অপরাহ্ন |

শোককে শক্তিতে রুপান্তর করে সফল সৈয়দপুরের রেজওয়ানা খুরশিদ 

খুরশিদ জামান কাকন ।। করোনাকালে অনেকেই উদ্দ্যোক্তা হিসেবে আবির্ভাব হয়েছেন। অনলাইনের মাধ্যমে ক্রেতাদের পছন্দের পণ্যসামগ্রী ঘরের দোরগোড়ায় পৌছে দিচ্ছেন। তবে তাদের সিংহভাগই শখের বসে অথবা করোনাকালীন অবসর সময়টা কাজে লাগানোর জন্য উদ্দ্যোক্তা হওয়ার পথ বেছে নিয়েছেন। এর ব্যতিক্রমও আছে কেউ কেউ। তেমনি একজন রেজওয়ানা খুরশিদ। করোনাকালীন ঘরবন্দী সময় বলে নয়, নিজ উদ্দ্যোমে কিছু করে জীবিকা নির্বাহের তাগিদে উদ্দ্যোক্তা হওয়ার প্রচেষ্টায় রত তিনি।
নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলার আতিয়ার কলোনির এলএসডি মোড়ের বাসিন্দা রেজওয়ানা খুরশিদ ঘরে তৈরি খাবার বিক্রি করে স্বাবলম্বী হয়েছেন। অনলাইনে অর্ডারের মাধ্যমে বাড়িতে তৈরি বিভিন্ন খাদ্যসামগ্রী ক্রেতাদের হোম ডেলিভারির মাধ্যমে তিনি জীবিকা নির্বাহ করছেন। অল্প সময়ে যাত্রা শুরু করা রেজওয়ানার জিয়া’স খানাপিনা ফেসবুক পেজের কল্যাণে তিনি সৈয়দপুরে ব্যাপক গ্রহণযোগ্যতা পেয়েছেন। সৈয়দপুরের ভোজনবিলাসী মানুষের কাছ থেকেও প্রশংসা কুড়িয়েছেন।
সময়ের সাথে সারাদেশের ন্যায় সৈয়দপুরেও অনলাইন বিজনেসের জনপ্রিয়তা বেড়েছে। প্রান্তিক পর্যায়ের মানুষও অনলাইনে কেনাকাটায় অভ্যস্ত হয়ে উঠেছেন। গুনগত মান বজায় রেখে ক্রেতাদের চাহিদা অনুযায়ী পণ্যসামগ্রী সরবরাহ করতে পারলে অনলাইন বিজনেসে অল্প সময়ে টিকসই হওয়া সম্ভব। এমনই সুদূরপ্রসারী চিন্তাভাবনা থেকে রেজওয়ানার অনলাইন বিজনেসে আগমন। জিয়া’স খানাপিনা জন্মলগ্ন থেকেই স্বল্পমূল্যে সুস্বাদু খাবার গ্রাহকদের নিকট পৌছে দেওয়ার চেষ্টা  করে যাচ্ছে।
জিয়া’স খানাপিনার রান্না থেকে বাজার  সব কাজ রেজওয়ানা একাই করেন। প্রথমদিকে ডেলিভারির কাজটাও নিজে করতেন। পরে তার এই কাজে সহযোগিতার জন্য দুইজনকে নিযুক্ত করেন। জিয়া’স খানাপিনার ফেসবুক পেজের মাধ্যমে খাবারের অর্ডার নেওয়া হয়। নূন্যতম ৫০ টাকার খাবার অর্ডার করা যায়। সৈয়দপুর শহরের মধ্যে হোম ডেলিভারি দেওয়া হয়। ডেলিভারি চার্জ নামমাত্র ১০ টাকা।
জিয়া’স খানাপিনার বিভিন্ন আইটেমের মধ্যে আছে ডাল পুরি, মিস্টি খাস্তা, ফিরনি, দইবড়া, জামাই পিঠা, বার্গার ও হালিম। মুখরোচক খাবার হিসেবে আরো রয়েছে চিকেন ফ্রাই, চিকেন গ্রিল, রোল, পুডিং, লাড্ডু, প্লেইন কেক প্রভৃতি। এছাড়াও প্যাকেজের মধ্যে আছে পোলাওয়ের চালের ভুনা খিচুড়ি ও মুরগীর ভুনা মাংস, ফ্রেঞ্চ ফ্রাই ও চিকেন উইংস। প্রতিটি প্যাকেজের মূল্য মাত্র ৫০ টাকা।
এবছরের ০২ ই জুন হৃদরোগের আক্রান্ত হয়ে রেজওয়ানা খুরশিদের স্বামী ব্যবসায়ী জিয়াউদ্দিন আহমেদ মৃত্যুবরন করেন। উপার্জনক্ষম স্বামীকে হারিয়ে একমাত্র মেয়েকে তিনি দিশেহারা হয়ে পড়েন। কি করবেন, কিভাবে সংসার চালাবেন এসব চিন্তায় কাতর থাকেন। শেষমেশ কোন কূলকিনারা না পেয়ে জীবনযুদ্ধে টিকে থাকার তাগিদে জুলাইয়ের প্রথমদিকে তিনি অনলাইন বিজনেসের সিদ্ধান্ত নেন। স্বামীর নামে তার অনলাইন বিজনেসের নাম রাখেন জিয়া’স খানাপিনা।
সৈয়দপুরে উদ্দ্যোমী নারী উদ্দ্যোক্তা রেজওয়ানা খুরশিদ জানান, ‘আমি দেওয়ালে পিঠ ঠেকে যাওয়ার মতো পরিস্থিতিতে ছিলাম। এই অবস্থা থেকে উত্তরণে মেয়ের মুখপানে চেয়ে আমাকে কিছু একটা করতেই হতো। লকডাউনে কোথাও চাকরির জন্য আবেদনও করতে পারছিলাম না। পরে আত্মীয়স্বজনদের পরামর্শে হোমমেড খাবার বিক্রির সিদ্ধান্ত নেই। এরই পরিপ্রেক্ষিতে ধীরেধীরে কাঙ্ক্ষিত সফলতার দেখা পাই।’
জিয়া’স খানাপিনার ব্যাপারে রেজওয়ানা খুরশিদ আরো জানান, ‘ফেসবুকে খাবারের ছবির সাথে মূল্য যুক্ত করে প্রতিদিন আমাদের পেজে পোস্ট দেওয়া হয়। সেখান থেকে আগ্রহী ক্রেতারা নিজেদের পছন্দের খাবার অর্ডার করে থাকেন। আমরা ক্রেতাদের পজিটিভ ও নেগেটিভ উভয় রিভিউ সাদরে গ্রহণ করি। ক্রেতাদের চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে  জিয়া’স খানাপিনায় দিনকে দিন নিত্যনতুন আইটেম যুক্ত করে থাকি।’
শোককে শক্তিতে রূপান্তর করা সৈয়দপুরের অদম্য নারী রেজওয়ানা খুরশিদ নিজ কর্মের উপর আস্থা রেখেছেন। কঠোর পরিশ্রম করে নিজের ভাগ্য চাকা ঘুরিয়েছেন। এখন তিনি ধীরেধীরে ব্যবসাটাকে প্রশস্ত করার চেষ্টা  করছেন। সেই সাথে নিজের কলিজার টুকরো মেয়েকে মানুষের মতো মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে ব্যস্ত সময় পার করছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ