• শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ০৪:১৮ অপরাহ্ন |

সৈয়দপুরের অসহায় এক স্বামীর গল্প…

সিসি নিউজ ।। ঢাকায় গার্মেন্টস ফ্যাক্টরীতে চাকুরী করতে গিয়ে সহকর্মীর সাথে প্রেম আর সেই প্রেম থেকে বিয়ে। দীর্ঘ ১৩ বছরের সংসারে ওই দম্পতির ঘরে রয়েছে দুটি সন্তান। তারপর শ^শুড় পরিবারের নির্যাতন, বাড়ি লুটপাট, মিথ্যা যৌতুক মামলায় ঘরছাড়া হয়েছে রফিকুল ইসলাম নামের ওই স্বামী।
ঘটনাটি নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলার বাঙ্গালীপুর ইউনিয়নের বাড়াইশাল পাড়ার। এ গ্রামে টিনসেড পাকা বাড়ি নির্মান করে দুই সন্তান আর স্ত্রী মুক্তা বেগমকে নিয়ে বসবাস করে রফিকুল ইসলাম। ২০০৭ সালে সাভারের আশুলিয়ায় নিকাহ অফিসে ৮০ হাজার টাকা দেনমোহরে বিয়ে করে গার্মেন্টস কর্মী ওই দম্পতি। দীর্ঘদিনের প্রেমের সম্পর্কের ইতি টানলেও শ^শুড় বাড়িতে জমি কেনার জন্য পাঠানো টাকাই আজ তাকে স্ত্রী-সন্তান ও ভিটে ছাড়া হতে হয়েছে। তার পাঠানো টাকার একটি বড় অংশ আত্মসাতের অভিযোগ উঠলে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে শ^শুড় পরিবার। সেই টাকা আত্মসাতের লক্ষ্যে মুক্তা বেগমকে দিয়েই তারা রফিকুলের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আদালতে একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করে। এর আগে শ^শুড় পরিবারের লোকজনের হাতে শারিরীক নির্যাতনের শিকার রফিকুল ইসলাম স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদে অভিযোগ দেয়। কিন্তু মুক্তা বেগম ও তার পরিবার গ্রাম আদালতকে বৃদ্ধাঙ্গুল দেখিয়ে আদালতে মিথ্যা মামলার আশ্রয় নেয়। মামলায় কল্পিত ২০০৩ সালে বিয়ের কাবিননামা এবং ৩ লাখ ২৫ হাজার টাকার দেনমোহর উল্লেখ করা হয়।
গ্রামবাসীদের সহায়তায় ফিরে পাওয়া বাড়িতে বসে সাংবাদিকদের কাছে এমন তথ্য তুলে ধরে নির্যাতনের শিকার রফিকুল ইসলাম। এ সময় ইউপি সদস্য রফিকুল ইসলাম, আ’লীগ নেতা জয়নাল আবেদীন খান, উজ্জ্বল হোসেন, আব্দুস সালাম, আজিজুল হক, শেখ কবির হোসেন, শাহিনুর ইসলাম, শিবু সরকার সহ শতাধিক গ্রামবাসী উপস্থিত ছিলেন।
উপস্থিত ইউপি সদস্য রফিকুল ইসলাম আদালতের মিথ্যা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সৈয়দপুর উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে বলেন, তিনি ঘটনাস্থলে না এসে একতরফা ভাবে আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন প্রেরণ করেছেন। এ ছাড়াও বিবাদীকে কৌশলে অফিসে ডেকে নিয়ে বাদীর লোকজনের দ্বারা জোর পূর্বক কিছু কাগজে স্বাক্ষর নিয়েছেন।
ইউপি চেয়ারম্যান প্রনোবেশ চন্দ্র বাগচী এ প্রসঙ্গে বলেন, নির্যাতনের শিকার রফিকুল ইসলাম ইউনিয়ন পরিষদে দেয়া অভিযোগের প্রেক্ষিতে বিবাদী মুক্তা বেগম সহ তার পরিবারের লোকজনদের গ্রাম আদালতে উপস্থিত হওয়ার জন্য তিন দফায় নোটিশ করা হয়। কিন্তু তারা হাজির না হওয়ায় বাদীকে উচ্চ আদালতে যাওয়ার পরামর্শ দেয়া হয়। কিন্ত গত ৩১ অক্টোবর গ্রাম্য শালিসে উভয় পরিবারের উপস্থিতিতে বিষয়টি শর্ত সাপেক্ষে নিষ্পত্তি করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে সৈয়দপুর উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা নুরুন্নাহার শাহজাদী জানান, তদন্তে যা পাওয়া গেছে সে অনুসারে প্রতিবেদন দেয়া হয়েছে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, লোক মারফতে ঘটনাস্থল তদন্ত করা হয়েছে। এছাড়া তার অফিসে ডেকে উভয় পক্ষের বক্তব্য নেয়া হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ