• সোমবার, ১৯ এপ্রিল ২০২১, ০২:০৩ পূর্বাহ্ন |

বীমায় আস্থা বাড়ছে…

সিসি ডেস্ক ।। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক ব্যবস্থাপনায় সঞ্চয়ের গতিবেগে সরকারী-বেসরকারী ব্যাংকগুলোর প্রাসঙ্গিক কর্মযোগ এক অপরিহার্য বিধি। মানুষের যাপিত জীবনের প্রয়োজন মিটিয়ে সামান্য পুঁজিও সঞ্চয়ের জন্য নির্ধারণ করা থাকে। যা মূলত ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠানে জনগণের আস্থা এবং ভরসায় জমা থাকে। ব্যাংকে ব্যক্তির অর্থ গচ্ছিত রাখার বিষয়টি স্বাভাবিক একটি লেনদেন। ব্যাংক ছাড়াও লাভজনক অর্থ জমানোর ব্যাপারে বীমা কোম্পনিগুলোও যে খুব পিছিয়ে আছে তা নয়। বীমা সংস্থাগুলোও বাংলাদেশে সার্বিক অর্থনীতিতে সময়োপযোগী অবদান রাখা ছাড়াও চরম দুঃসময়ে (যেমন মৃত্যু) গ্রাহককে কিছুটা নিরাপত্তা দিতে তার কর্মযোগকে সম্প্রসারিত করে আসছে। যদিও বীমা সংস্থায় টাকা গচ্ছিত রাখার বিষয়টি সাধারণ মানুষের মধ্যে এক ধরনের আশঙ্কাও তৈরি করে। যেমন অতি প্রয়োজনে অর্থ উত্তোলন অনেক সময় পড়ে অনিশ্চয়তার আবর্তে। গ্রাহকের মধ্যে যে দ্বিধা-দ্বন্দ্ব এবং আস্থাহীনতার প্রভাব পড়ে সেখানে বীমা সংস্থাগুলোও তার লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে এগিয়ে যেতে হিমশিম খায়। ফলে অপেক্ষাকৃত কম অগ্রসরমান খাতে সরকারের গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত এবং পদক্ষেপে এই খাতকে নতুন মাত্রা দিতে ভূমিকা রাখছে। বীমা কোম্পানিগুলোও সরকারের সার্বিক সহযোগিতায় অনেক ধরনের সঙ্কট কাটিয়ে গ্রাহকদের নতুনভাবে উৎসাহী করে তুলছে। এরই ধারাবাহিকতায় হরেক রকম প্রতিবন্ধকতার জাল ছিঁড়ে বীমা সংস্থাগুলোও সময়ের আবেদনে নতুনভাবে জনগণের পাশে দাঁড়াচ্ছে। ফলে বীমা কোম্পানির প্রতি জনগণের আগ্রহ, আস্থা এবং ভরসা জায়গাটিও নতুন আঙ্গিকে তার পরিক্রমাকে সম্পৃক্ত করছে। এভাবে ক্রমান্বয়ে জনবান্ধব হতেও সময় লাগছে না। মহামারী করোনাভাইরাসের দুর্বিপাকেও বীমা কোম্পানিগুলো লাভজনক প্রতিষ্ঠানের মাত্রা পেয়েছে। মুনাফার দিক থেকেও আগের তুলনায় অনেক বেশি স্বচ্ছন্দ এবং গতিশীল। শেয়ারবাজারেও বীমার আবেদন এখন জনগণের মাঝে ব্যাপক সাড়া জাগাচ্ছে। শুধু তাই নয়, গ্রাম-গঞ্জে, প্রত্যন্ত অঞ্চলের প্রান্তিক গোষ্ঠীর মধ্যেও সচেতনতা বৃদ্ধিতে যুগান্তকারী কর্মযোগ প্রসারিত করছে বিবিধ বীমা। ব্যাংকিং খাতেও এসেছে বীমার নবসংযোজন। গাড়িতে, ভবনে, বিশেষ অর্থ বিনিয়োগ কার্যক্রমে বীমার গুরুত্বপূর্ণ কর্মপরিকল্পনা উন্নয়নের খাতগুলোর এক অবধারিত গতিবিধি। কৃষকদের জন্যও রয়েছে কৃষি খাতে শস্য বীমা, যা প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জন্য একটি মুনাফানির্ভর বিনিয়োগ। সময়ের গতিতে চলমান প্রক্রিয়ায় সরকার বিভিন্ন উপায়ে প্রবৃদ্ধির এই খাতটিতে যুগোপযোগী সংস্কার সাধন করে এক উল্লেখযোগ্য কাজ সম্পন্ন করে যাচ্ছে। করোনায় সার্বিক অর্থনীতির ওপর যে গতিহীনতার প্রকোপ সেখানে বীমা খাতের অভাবনীয় উদ্যোগ এক অনবদ্য কর্মপ্রবাহ, যা সাধারণ জনগণের মধ্যে ব্যাপক সাড়া এবং আগ্রহ তৈরি করতে অনবদ্য ভূমিকা রাখছে। বীমার গুরুত্বপূর্ণ সংস্কারের মধ্যে আছে এজেন্ট কমিশন কমিয়ে আনা এবং তৃতীয় পক্ষ থেকে গ্রাহকদের মুক্ত রাখা। এ ছাড়া আরও গুরুত্বপূর্ণ কিছু সংস্কার ও পদক্ষেপে এই খাতটিকে ঢেলে সাজানোর পরিকল্পনা রয়েছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের। তবে সংস্কার কার্যক্রম যেন তার লক্ষ্যমাত্রায় সঙ্কট সৃষ্টি করতে না পারে, সেদিকেও কঠোর নজরদারি একান্ত আবশ্যক।

উৎস: জনকন্ঠ


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ

error: Content is protected !!