• বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১২:০৫ পূর্বাহ্ন |

নীলফামারীতে ধর্ষন মামলায় একজনের মৃত্যুদন্ড ও দুই জনের যাবজ্জীবন কারাদন্ড

সিসি নিউজ ।। নীলফামারীতে কিশোরী ধর্ষন ও হত্যার দায়ে একজনের মৃত্যুদন্ড ও অপর একজনের যাবজ্জীবন কারাদন্ড ও এক লাখ টাকা জরিমানা করেছেন আদালত। অপর দিকে পুত্রবধুকে ধর্ষনের দায়ে শ্বশুরকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দেয়া হয়েছে। আজ দুপুরে নীলফামারী নারী ও শিশু দমন নির্য়াতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ ও ২ এর বিচারকগন এ সাজা দেন।
মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১৩ সালের ২৯ আগস্ট রাতে বাড়ি থেকে নিখোঁজ হন জেলার ডিমলা উপজেলার সাতজান সাইফুন এলাকার আব্দুল গনির মেয়ে মৌসুমী (১৪)। পরের দিন সকালে বাড়ির পাশে বুড়িতিস্তা নদীর পাড়ের কাশবনে তার মরদেহ পাওয়া যায়। এ ঘটনায় ঐদিনই অজ্ঞাতনামা কয়েকজনকে আসামী করে ডিমলা থানায় মামলা দায়ের করেন মৌসুমীর বাবা আব্দুল গনি। মামলার তদন্ত শেষে ২০১৪ সালের ২১ আগস্ট ধর্ষন ও হত্যার অভিযোগ এনে প্রতিবেশী ইয়াসিন আলীর ছেলে মকবুল হোসেন (৪০) সহ ৬ নামে আদালতে চার্জশিট দাখিল করে পুলিশ। এবং মামলার দীর্ঘ শুনানী শেষে আজ দুপুরে নারী ও শিশু নির্য়াতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২ এর বিচারক জেলা ও দায়রা জজ মো. মাহাবুবুর রহমান মকবুল হোসেনকে মৃত্যুদন্ড ও অপর অভিযুক্ত হালিমুর রহমানকে (২৮) যাবজ্জীবন স্বশ্রম কারাদন্ডসহ এক লাখ টাকা অর্থদন্ডাদেশ প্রদান করেন। একই সাথে মামলার বাকী চার আসামীকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেন।

অপর মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০০৫ সালের ৯ সেপ্টেম্বর বাড়িতে একা পেয়ে পুত্রবধু রাজিয়া সুলতানাকে ধর্ষন করেন শ্বশুর আজগার আলী। এ ঘটনায় ১৩ অক্টোবর শ্বশুর আজগার আলীকে আসামী করে সৈয়দপুর থানায় মামলা দায়ের করেন পুত্রবধু রাজিয়া। মামলার দীর্ঘ শুনানী শেষে নীলফামারী নারী ও শিশু নির্য়াতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক জেলা ও দায়রা জজ মো. আহসান তারেক অভিযুক্ত শ্বশুর আজগার আলীকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড ও ২০ হাজার টাকা অর্থদন্ডাদেশ অনাদেয় আরও ছয় মাসের কারাদন্ড দেন।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ

error: Content is protected !!