• সোমবার, ০৮ মার্চ ২০২১, ১০:৪০ অপরাহ্ন |

মিয়ানমার সেনাবাহিনীর দখলে: জরুরি অবস্থা জারি

সিসি ডেস্ক ।। মিয়ানমারের ক্ষমতাসীন দলের প্রধান অং সান সু চি এবং দেশটির রাষ্ট্রপতি উইন মিনতকে আটকের পর দেশটির নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে সেনাবাহিনী। সেই সঙ্গে এক বছরের জন্য জরুরি অবস্থা জারি করেছে।

২০২০ সালের নভেম্বরে বিতর্কিত নির্বাচনের পরে বেসামরিক সরকার এবং সেনাবাহিনীর মধ্যে উত্তেজনা বাড়ার পরে এই অভ্যুত্থানটি ঘটল।

সু চিকে আটকের কয়েক ঘণ্টা পরে, সামরিক টেলিভিশন নিশ্চিত করেছে এক বছরের জন্য জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে সেনাবাহিনী। এক বিবৃতিতে সেনাবাহিনী জানিয়েছে, দেশের ক্ষমতা কমান্ডার-ইন-চিফ মিন অং হ্লেইংয়ের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

এর আগে সোমবার ভোরে এক অভিযানে এনএলডি নেত্রী অং সান সু চি এবং রাষ্ট্রপতি উইন মিনতকে আটক করে মিয়ানমার সেনাবাহিনী।

গত বছরের নভেম্বরে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে সরকার গঠনের জন্য পর্যাপ্ত আসন পেয়ে বিজয় লাভ করে সু চি’র নেতৃত্বাধীন দল এনএলডি। তবে সেনাবাহিনী অভিযোগ, নির্বাচনে জালিয়াতি করে সু চি’র দল জয় লাভ করে। সেই অভিযোগেই অভিযান চালিয়ে সু চিসহ এনএলডির শীর্ষ নেতাদের আটক করা হয়।

সংসদের নবনির্বাচিত নিম্ন কক্ষের আজ প্রথমবারের মতো বৈঠক করার কথা ছিল। অন্যদিকে সেনাবাহিনী তা স্থগিতের আহ্বান জানিয়েছিল।

আর্ন্তজাতিক গণমাধ্যমের তথ্য মতে, রাজধানী নেপিডোতে এবং প্রধান শহর ইয়াঙ্গুনের রাস্তায় সেনাবাহিনীর টহল দেখা গেছে। প্রধান প্রধান শহরগুলোতে টেলিফোন ও ইন্টারনেট লাইন বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। সৈন্যরা দেশের বিভিন্ন প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীর বাসায় গিয়ে তাদের আটক করে নিয়ে যায় বলে পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছে।

মিয়ানমারে ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট মিন্ট সোয়ে

মিয়ানমারের ভারপ্রাপ্ত প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নিলেন ভাইস প্রেসিডেন্ট মিন্ট সোয়ে। ক্ষমতা গ্রহণের পরই ১ বছরের জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেন তিনি। মিয়ানমারের সেনাবাহিনী পরিচালিত মায়াওয়াদ্দি টিভিতে এই ঘোষণা দেওয়া হয়।

এতে বলা হয়েছে, ভোটার তালিকা নিরীক্ষা ও অনুমোদনে অনিয়মের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ না করা পর্যন্ত ২০০৮ সালের সেনা সমর্থিত সংবিধান অনুযায়ী দেশের আইন, প্রশাসন ও বিচার বিভাগের ক্ষমতা সামরিক বাহিনীর প্রধানের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

সু চিসহ সকল নেতাদের ‍মুক্তির দাবি যুক্তরাষ্ট্র-অস্ট্রেলিয়ার

মিয়ানমারের ক্ষমতাসীন দল ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসি (এনএলডি) নেত্রী অং সান সু চিসহ গ্রেফতারকৃত সকলকে মুক্তি দিতে অনুরোধ করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও অস্ট্রেলিয়া।

জো বাইডেনের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জেক সুলিভান ক বিবৃতিতে বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র মিয়ানমারে জরুরি অবস্থা ঘোষণা, অং সান সু চি এবং ক্ষমতাসীন দলের অন্যান্য প্রবীণ ব্যক্তিদের গ্রেফতারে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

অন্যদিকে হোয়াইট হাউসের মুখপাত্র জেন সোসাকি বলেছেন, মিয়ানমারের সেনাবাহিনী দেশটির স্টেট কাউন্সেলর অং সান সুচি এবং অন্যান্য বেসামরিক কর্মকর্তাদের গ্রেফতারসহ দেশের গণতান্ত্রিক উত্তরণকে নষ্ট করার পদক্ষেপ নিয়েছে এমন খবরে আমেরিকা সন্ত্রস্ত হয়ে পড়েছে।

নির্বাচনের ফলাফল পরিবর্তন করতে বা মিয়ানমারের গণতান্ত্রিক উত্তরণে বাধা দেওয়ার যে কোনও প্রয়াসের বিরোধিতা করেছে যুক্তরাষ্ট্র।

এদিকে অস্ট্রেলিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রী ম্যারিসে পেইনও বলেছেন, আমরা সেনাবাহিনীকে আইনের শাসন মেনে চলতে আহ্বান জানায়। যেসব রাজনৈতিক নেতাকে বেআইনিভাবে আটক করা হয়েছে, আমরা তাদের অবিলম্বে মুক্তি দাবি করছি।

এর আগে সোমবার ভোরে এক অভিযানে এনএলডি নেত্রী অং সান সু চি এবং রাষ্ট্রপতি উইন মিনতকে গ্রেফতার করে মিয়ানমার সেনাবাহিনী। এরপরই মিয়ানমারে এক বছরের জরুরি অবস্থা জারি করে দেশটির ক্ষমতা গ্রহণ করেছে সেনাবাহিনী।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ

error: Content is protected !!