Logo

অস্ট্রেলিয়ায় খবর প্রচার বন্ধ করল ফেসবুক

সিসি নিউজ ডেস্ক ।। অস্ট্রেলিয়ায় খবর দেখা ও শেয়ার করা বন্ধ করে দিয়েছে ফেসবুক। এই সিদ্ধান্তের আওতায় অস্ট্রেলিয়ান ফেসবুক ব্যবহারকারীরা কোনো স্থানীয় বা আন্তর্জাতিক খবর পড়তে বা শেয়ার করতে পারবেন না। ফেসবুকে নিউজ কনটেন্ট শেয়ার সংক্রান্ত অস্ট্রেলীয় সরকারের প্রস্তাবিত নতুন আইনের প্রতিবাদে বুধবার এমন ঘোষণা নেয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমটি। ফেসবুকের দাবি অস্ট্রেলীয় সরকারের এমন আইন তাদের নীতিবহির্ভূত।

এক ব্লগ পোস্টে ফেসবুক জানিয়েছে, ‘প্রস্তাবিত আইনটি মূলত আমাদের প্ল্যাটফর্ম এবং প্রকাশকদের মধ্যে সম্পর্কের ভুল ধারণা দেয় যারা সংবাদ বিষয়বস্তু ভাগ করে নিতে এটি ব্যবহার করে।’ খবর বিবিসির

বুধবার সকালে ঘুম থেকে উঠে অস্ট্রেলিয়ার নাগরিকরা ফেসবুক খুলেছেন, কিন্তু সেখানে একটিও খবর দেখতে পাননি তারা। এমনকী, সরকারি এবং জরুরি পরিষেবার পেজগুলিও খালি ছিল। সেখানে কোনোরকম আপডেট দেওয়া ছিল না।

দীর্ঘদিন ধরেই অস্ট্রেলিয়ার সরকারের সঙ্গে লড়াই চলছে ফেসবুক এবং গুগলের। অভিযোগ, গত ডিসেম্বরে অস্ট্রেলিয়ার পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষে একটি আইন পাশ হয়েছে। যেখানে সামাজিক মাধ্যমে খবরের প্রচার নিয়ে একাধিক বিষয় বলা হয়েছে। পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষে আইনটি নিয়ে এখনো বিতর্ক চলছে। ফেসবুকের বক্তব্য, ওই আইন জারি হলে তাদের পক্ষে তা মানা সম্ভব নয়। গুগলও আইনটির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেছে।

বস্তুত তারই জেরে বুধবার সকাল থেকে ফেসবুক অস্ট্রেলিয়ায় খবর প্রচার বন্ধ করে দেয়। অর্থাৎ, তারা নিজেরাও কোনো খবরের প্রচার করবে না। ফেসবুক ব্যবহারকারীরাও কোনো খবর শেয়ার করতে পারবেন না। শুধু তাই নয়, বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম ও সরকারি পরিষেবা প্রদানকারী সংস্থা ফেসবুক পেজের মাধ্যমে তাদের খবরাখবর প্রচার করে থাকে। বুধবার সকাল থেকে সেই পেজগুলিও বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

ফেসবুকের এই কাজে সমস্যায় পড়েছেন অস্ট্রেলিয়ার সাধারণ মানুষ। বহু মানুষ খবরের কাগজ রাখেন না। টেলিভিশনও দেখেন না। তারা সামাজিক মাধ্যমেই দিনের সংবাদ দেখে নেন। আচমকাই তা বন্ধ হয়ে গিয়েছে। অস্ট্রেলিয়ার বিভিন্ন স্বাস্থ্য সংক্রান্ত সংস্থা এবং সরকারি স্বাস্থ্য বিভাগ কোভিড পরিস্থিতির আপডেট ফেসবুক পেজে দিত, তা বন্ধ হয়ে গিয়েছে। সরকারি দমকল বিভাগের বুশ ফায়ার সংক্রান্ত খবরও বন্ধ।

অস্ট্রেলিয়ার ট্রেসারার জোস ফ্রাইডেনবার্গ জানিয়েছেন, বুধবার সকালেই ফেসবুকের প্রধান মার্ক সাকারবার্গের সঙ্গে তার দীর্ঘ আলোচনা হয়েছে। দ্রুত সমস্যা সমাধানের রাস্তা খোঁজার চেষ্টা হচ্ছে।

তবে অস্ট্রেলিয়ার সাধারণ মানুষ এবং বিরোধী রাজনীতিবিদেরা জানিয়েছেন, যে প্রক্রিয়ায় ফেসবুক আচমকা খবর প্রচার বন্ধ করে দিয়েছে তা অনভিপ্রেত।

গুগল অবশ্য ফেসবুকের রাস্তায় হাঁটেনি। সরকার এবং সংবাদসংস্থাগুলির সঙ্গে তারা আলোচনা চালাচ্ছে। গুগল অবশ্য আগেই জানিয়েছিল, নতুন আইন বলবৎ হলে তাদের পক্ষে অস্ট্রেলিয়ায় থাকা সম্ভব নয়।