• মঙ্গলবার, ২০ এপ্রিল ২০২১, ০৪:৪৮ পূর্বাহ্ন |

দিনাজপুরে পাঁচ প্রজন্মে স্বামী-স্ত্রীর মহাধুমধামে পুনঃবিবাহ

এনামুল মবিন সবুজ ।। দিনাজপুরের বিরলে পাঁচ প্রজন্মে স্বামী-স্ত্রীর মহাধুমধামে পুনঃবিবাহ সম্পন্ন হয়। বৈদ্যনাথ দেবশর্মার বিয়ে হয়েছিল প্রায় ৭৪ বছর আগে। তার একমাত্র কন্যা ঝিলকো বালার ৩ ছেলে ও ৫ মেয়ে। মেয়ের পরিবারে ৮ নাতি-নাতনি রয়েছে। তাদের ঘরে এখন ১৯ জন সদস্য। সব গুলো মিলে এখন পাঁচ প্রজন্মে সদস্য সংখ্যা ৫৪ জন। বৈদ্যনাথ দেবশর্মার  বংশের রীতি অনুযায়ী,বিয়ের পর পঞ্চম প্রজন্মে উর্ত্তীণ হলে তাদের পুনঃবিবাহের আয়োজন করতে হয়। বংশপরম্পরায় রীতিকে মেনে নিয়ে ৯২ বছর বয়সী বৈদ্যনাথ দেবশর্মার বিয়ে হলো মহাধুমধামে। অবশ্য কনে অন্য কেউ না তারই বিয়ে করা স্ত্রী ৮০ বছর বয়সী পঞ্চবালা দেবশর্মা।
তার পরিবার সূত্রে জানা যায়, বৈদ্যনাথ দেবশর্মার বয়স যখন ১৮ তখন তার বাবা স্বর্গীয় ভেলশু দেবশর্মা ছেলেকে একই এলাকার স্বর্গীয় বিদ্যামন্ডলের ৮ বছর বয়সী মেয়ে পঞ্চবালা দেবশর্মার সঙ্গে বিয়ে দেন। ১৮ বছরের বৈদ্যনাথ দেবশর্মার বয়স এখন ৯২ বছর আর পঞ্চবালা দেবশর্মার বয়স ৮০ পেরিয়েছে। এই ৭৪ বছরে তাদের একমাত্র মেয়ের বিয়ের পর সন্তান-নাতি-নাতনি এবং তাদের ঘরের সন্তান মিলে পাঁচ সিঁড়ি পেরিয়েছে।তাদের বংশপরম্পরায় রীতি অনুযায়ী, যদি কারও পাঁচ প্রজন্ম দেখার সৌভাগ্য হয় তাহলে ঈশ্বরের তীষ্টির জন্য পুনঃবিবাহের আয়োজন করতে হয়। সে অনুযায়ী এক মাস ধরেই চলছিল এ পুনঃবিবাহের আয়োজন। অবশেষে গত রোববার পঞ্জিকামতে বিবাহলগ্নে পুনঃবিবাহ সম্পন্ন হয়।
বৈদ্যনাথ দেবশর্মা বলেন, ১৩ টাকা পন দিয়ে পঞ্চবালার সঙ্গে আমার বিয়ে হয়েছিল । বিট্রিশে ধুমধাম ছিল না। এই বিয়েতে যে আনন্দ হচ্ছে তা বলার মতো নয়।
পঞ্চবালা বলেন,আমার যখন বিয়ে হয় তখন এসব  কিছুই বুঝি না। এ যুগে নাতি-পুতিরা বিয়ে দিল অনেক ভালো লাগছে।আমার স্বামী আমাকে অনেক ভালোবাসে। একে ছাড়া আমি থাকতে পারি না। আমাকে ছাড়াও সে থাকতে পারে না। এই আয়োজন খুব ভালো লেগেছে। এলাকাবাসীরা বলে, এমন বিয়ে আমরা এর আগে দেখিনি। অনেক ভালোই লাগছে দেখতে, এমন বিয়েকে ঘিরে আনন্দও কম ছিল না সবার।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ

error: Content is protected !!