• বুধবার, ২১ এপ্রিল ২০২১, ১১:৪৭ পূর্বাহ্ন |

জয়পুরহাট পৌর নির্বাচনে নৌকায় চড়লেন যারা

জয়পুরহাট প্রতিনিধি ।। আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারীতে জয়পুরহাট পৌরসভার নির্বাচনের সময় যতই ঘনিয়ে আসছে ততই নির্বাচনী প্রচার-প্রচারনার চাল-চিত্র ততই পাল্টাচ্ছে। রাজনীতির এই দাবা খেলার চালে এখানো এগিয়ে রয়েছে আওয়ামীলীগ প্রার্থী। ইতোপূর্বেকার স্থানীয় ও জাতীয় নির্বাচনে যা ঘটেনি তাই ঘটছে জয়পুরহাট পৌর নির্বাচনকে ঘিরে।

এর ধারাবাহিকতায় রাজনৈতিক-সামজিক-সাংস্কৃতিক, মালিক-শ্রমিক ও ব্যবসায়িক সংগঠনগুলো একে একে চড়ে বসেছে পালে হাওয়া লাগা নৌকায়। এদের মধ্যে জয়পুরহাট জেলা জাতীয় পার্টি, পৌর শহরের বিভিন্ন বনিক ও ব্যাবসায়ী সমিতি, ঔষধ বিক্রয় প্রতিনিধি সংগঠন, বাস-মিনিবাস মালিক গ্রুপ, হকার্স মাকের্ট ব্যবসায়ী সমিতি, মটর শ্রমিক ইউনিয়ন, গৃহনির্মাান শ্রমিক ইউনিয়ন, দর্জ্জি শ্রমিক ইউনিয়ন, রিকসা-ভ্যান ও অটো রিকসা শ্রমিক ইউনিয়ন, হোটেল রেস্তোরা শ্রমিক ইউনিয়নসহ ৩৯টি শ্রমিক সংগঠনের সমন্বয়ে গঠিত সম্মিলিত শ্রমিক ফেড়ারেশন ছাড়াও বেশ কয়েকটি সংগঠন রয়েছে। এসব সংগঠনের নেতাকর্মীদের আওয়ামীলীগ সমর্থিত নৌকা মার্কার প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাকের পক্ষে ভোট যুদ্ধে মাঠে নেমেছেন।

জেলা জাতীয় পার্টির সাধরন সম্পাদক তিতাস মোস্তফা জানান, জাতীয় পার্টির কোন প্রার্থী না থাকায় তারা মহাজোটের শরীক দল হিসেবে আওয়ামীলীগের প্রার্থীর নৌকা প্রতীকের পক্ষে জোরে-সোরে প্রচারনায় নেমেছেন।

বাস-মিনিবাস মালিক গ্রুপের সভাপতি আনিছুর রহমান লিটন ও জয়পুরহাট মটর শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি জাহাঙ্গীর চৌধীরী জানান, মোস্তাাক যখন মেয়র হওয়ার কথা সপ্নেও চিন্তা করেননি, তখন জয়পুরহাটে বেশ কয়েকটি বাস, ট্রাক ও ট্রেনের ভয়াবহ দূর্ঘটনা ঘটে। সে সময় অনেক মানুষ হতাহত হন, নিহতদের সৎকার, আহতদের রক্তদান ও চিকৎসা সেবা, ঔষধ সরবরাহ করে সাধারন মানুষের হৃদয়ে স্থান পান মোস্তাক, এ ছাড়া অসহায় শ্রমিকদের জন্য মানবিক সেবায় মোস্তাককে সবর্দায় পাওয়া গেছে।

দর্জ্জি শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি হাস্না বানু ও নাম প্রকাশে অনেচ্ছুক একাধিক ঔষধ বিক্রয় প্রনিনিধিসহ নৌকা মার্কার প্রচারাভিযানে অংশ গ্রহনকারীরা জানান, তারা স্বাধীনতার পক্ষের দল আওয়ামীলীগের প্রতীক নৌকা মার্কা, এ ছাড়া বিগত ৫ বছরে মেয়র হিসেবে মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাক যে দৃশ্যমান উন্নয়ন করেছেন, এর আগে তা দেখা যায়নি বলে তাদের অনেকে ব্যাক্তিগত ভাবে আওয়ামীলীগের প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচনী প্রচারনা করছেন।

সততা কল্যান সমিতির (হকার্স মাকের্ট মালিক-শ্রমিক সমিতি) সভাপতি নবীন, রেলওয়ে হকার্স মার্কেট ব্যবসায়ী রিপন, তাজরুল ইসলামসহ অনেকে জানান, তারা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে রেল লাইনের উপর ব্যবসা করতেন, এ ছাড়া মাঝে মাঝে উচ্ছেদের কবলে পরে জীবন-জীবিকা বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়। মেয়র মোস্তাক তাদের সমস্যা অনুধাবন করে তাদের একটি নিরাপদ স্থানের ব্যবস্থা করে দিয়েছেন, যা অচিরেই তারা তা বাস্তায়ন হবে বলেও জানান হকার্স মার্কেটের ব্যবসায়ীরা।

রিকসা শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারন সম্পাদক মীর শহীদ জানান, ‘সকল শ্রমিকসহ মেহনতী মানুষের জন্য মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাক বিপদের পরম বন্ধু, গত ঝড়-বৃষ্টিতে জেলায় প্রায় ২শত বাড়ি-ঘর বিধ্বস্ত হয়, যাদের প্রায় সবাই হত দরিদ্র। মেয়র মোস্তাক নিজ অর্থায়নে এসব অসহায় মানুষদের বাড়ি-ঘর নির্মান করে দিয়ে যে দৃষ্টান্ত সৃষ্টি করেছেন, তা ভূলে যাব কি করে ? এ কারনে তাকে জয়যুক্ত করতে নির্বাচনের প্রচারনায় আমরা কাজ করে যাচ্ছি।’

সম্মিলিত শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি ও জয়পুরহাট জেলা মটর শ্রমিক ইউনিয়নের সধারন সম্পাদক রফিকুল ইসলাম জানান, “জয়পুরহাট পৌরসভা প্রতিষ্ঠার পর থেকে বয়সে সব চেয়ে কনিষ্ঠ এই তরুন (মোস্তাক) জনপ্রতিনিধি সর্ব শ্রেনি-পেশার মানুষের কাছে সাহায্য-সহানুভূতির এক জীবনন্ত কিংবন্তির মত হয়ে উঠেছেন। ফলে জেলায় ৩৯টি সংগঠনের প্রায় ৭০০ নেতা ছাড়াও বিভিন্ন সদস্যরাও নৌকা মার্কার পক্ষ্ েনির্বাচনী প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছেন।” এ ছাড়া জয়পুরহাটে এতগুলো শ্রমিক সংগঠনের পরিবারগুলোতে প্রায় সাড়ে ১২ হাজার ভোট আছে যা নৌকা মার্কায় ভোট দিবেন বলেও দাবী করেন এই শ্রমিক নেতা।

জয়পুরহাটের বর্তমান পৌর মেয়র ও আসন্ন নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাক জানান, ‘“সর্ব সাধারনের জন্য কি করেছি না করেছি তা বলতে চাই না, আপনারাই (স্থানীয় সাংবাদিকরা) ভালো জানেন, আমার পৌরবাসী দেখেছেন, পেয়েছেন, জেনেছেন, তারাও ভালো বলতে পারবেন। শুধু বলতে চাই জয়পুরহাট পৌরসভাার উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে তারা নৌকা মার্কায় দিবেন বলে আমি বিশ^াস করি, আশা করি।”


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ

error: Content is protected !!