• বুধবার, ২১ এপ্রিল ২০২১, ১১:২৫ পূর্বাহ্ন |

সৈয়দপুর পৌরসভা নির্বাচনে হাতাহাতিতে কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকের মৃত্যু

সিসি নিউজ ।। ভোট বর্জন আর কেন্দ্র দখলের অভিযোগের মধ্য দিয়ে পঞ্চম ধাপে রবিবার অনুষ্ঠিত হয়েছে নীলফামারীর সৈয়দপুর পৌরসভার নির্বান। ওই নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থী রাফিকা আক্তার জাহানের বিরুদ্ধে কেন্দ্র দখল, এজেন্ট বের করে দেওয়া, ভোটার এবং সমর্থকদের হুমকী ও ভোট প্রদানে বাধার অভিযোগ তুলেন প্রতিদ্বন্দী জাতীয় পাটির প্রার্থী সিদ্দিকুল আলম ও বিএনপির প্রার্থী রশিদুল হক সরকার। একই অভিযোগ তুলে ১৪ এবং ১৫ নম্বর ওয়ার্ডের আট কাউন্সিলর প্রার্থীও ভোট বর্জন করেছেন।
বেলা সোয়া ১১টার দিকে শহরের পাঁচমাথা মোড়ের নির্বাচনী কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন জাতীয় পাটির (লাঙ্গল) প্রার্থী সিদ্দিকুল আলম।
ওই সংবাদ সম্মেলনে তিনি অভিযোগ করে বলেন,‘এখানে নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ হচ্ছেনা। কেন্দ্র থেকে আমার এজেন্টদের বের করে দেওয়া হয়েছে। মানুষ স্বতঃস্ফূর্তভাবে ভোটকেন্দ্রে এলেও ভেতরে থাকা নৌকার লোকজন ইভিএম এ ভোটারদের কাছ থেকে আমার ভোট নৌকায় নিচ্ছেন। এ কাজে তাদেরকে সহযোগিতা করছে প্রশাসন।’
তিনি বলেন, ‘কেন্দ্রের বাইরেও প্রশাসনের লোকজন আমার কর্মী সমর্থকদের হুমকী প্রদান করছেন। সৈয়দপুর হিন্দি স্কুল কেন্দ্রে মনিরুজ্জামান নামের এক পুলিশ সদস্য লাঙ্গনের ভোটারদের বের করে দেন। এমনকি ব্রাশ ফায়ার করে মেরে ফেলার হুমকী দেন। শুধু প্রশাসনই নয়, আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরাও আমার কর্মী, সমর্থক এবং ভোটারদের হুমকি প্রদান করে কেন্দ্র থেকে তাড়িয়ে দিচ্ছেন। আমার নিশ্চিৎ বিজয় দেখে তারা এমন হীন কাজে জড়িত হয়েছেন। এ অবস্থায় আমার ভোট বর্জন ছাড়া কোন উপায় নেই।’
সংবাদ সম্মেলনে সিদ্দিকুল আলমের স্ত্রী ইয়াসমিন আলম, জাপার কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক ফয়সাল দিদার দিপু, সৈয়দপুর জাপা নেতা ডা. সুরত আলী, সৈয়দপুর সরকারী হিন্দী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের পোলিং এজেন্ট সুমনা আলম, শহীদ জিয়া শিশু নিকেতন কেন্দ্রের পোলিং এজেন্ট ইতি সহ সৈয়দপুর জাতীয় পার্টির অন্যান্য নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।
এদিকে বিকাল সাড়ে তিনটার দিকে বিএনপি কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন বিনপির প্রার্থী রশিদুল হক সরকার। এসময় তিনি কেন্দ্র দখলের অভিযোগ করে আওয়ামী লীগের প্রাথীর বিরুদ্ধে। তবে রাফিকা আক্তার জাহান এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, নিজের দোষ অপরের ঘাড়ে চাপানোর চেষ্টা বরাবরই তারা করে আসছেন।

অপরদিকে একই অভিযোগে দুপুর একটার দিকে নির্বাচন বর্জন করেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের হাতপাখা প্রতীকে মো. নুরুল হুদা।

দুটি ওয়ার্ডের আট কাউন্সিলর প্রার্থীর ভোট বর্জন

এদিকে ১৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিল প্রার্থী আবিদ হোসেন (গাজর), মো. সালাম রেজা (পাঞ্জাবী). মো. কালাম (টেবিল ল্যাম্প), ইমতিয়াজ আহমেদ (ডালিম) ও ১৫ নম্বর ওয়ার্ডের তারিক আজিজ ( পানির বোতল) পারভেজ আক্তার খান (ডালিম), পারুল বেগম (গাজর) আসলাম বুদু (পাঞ্জাবী) দুপুরে ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন। তাদের অভিযোগ ওই দুই ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগ সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী ভোট কেন্দ্রে প্রভাব বিস্তার করে বিরোধী প্রার্থীর এজেন্টদের বের করে দিয়েছেন। তারা বিরোধী ভোটারদের ভয়ভীতি প্রদান করে কেন্দ্র থেকে তাড়িয়ে দিচ্ছেন। ১৪ নম্বর ওয়ার্ডে পাঁচ প্রার্থীর মধ্যে চার জন ভোট বর্জন করেছেন। সেখানে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী জোবায়দুর রহমান শাহিন (উটপাখি) ১৫ নম্বর ওয়ার্ডে ছয় প্রার্থীর মধ্যে ভোট বর্জন করেছেন চার জন। সেখানে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী আবুল কাশেম সরকার (উট পাখি)।
এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন পৌর নির্বাচনের রিটানিং কর্মকর্তা ও জেলঅ নির্বাচন কর্মকর্তা ফজুল করিম। তিনি বলেন,‘অবাধ এবং শান্তিপূর্ণ ভোট অনুষ্ঠিত হয়েছে। কোথাও কোন ধরণের বিশৃঙ্খলার ঘটনা ঘটেনি। কোন প্রার্থী ভোট বর্জন করলে সেটি তার ব্যক্তিগত ব্যাপার।’
উল্লেখ, পৌরসভাটিতে ভোট গ্রহন শুরু হয় সকাল আটটায়। টানা চলবে বিকাল চারটা পর্যন্ত। মেয়র পদে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকে রাফিকা আক্তার জাহান বেবী, বিএনপির ধানের শীষ প্রতীকে মো. রশিদুল হক সরকার, জাতীয় পাটির লাঙ্গল প্রতীতে সিদ্দিকুল আলম, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের হাতপাখা প্রতীকে মো. নুরুল হুদা, মোবাইল ফোন প্রতীকে স্বতন্ত্র প্রাথী রবিউল আউয়াল রবি প্রতিদ্বন্দীতা করছেন।
১৫ টি ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিল পদে ৮৭ জন, পাঁচটি সংরক্ষিত নারী কাউন্সিল পদে ২১ জন প্রার্থী রয়েছেন। ৪১টি ভোটকেন্দ্রে ভোট প্রদান করবেন ৯৩ হাজার ৮৯৩ জন। এরমধ্যে পুরুষ ৪৬ হাজার ৭৬৩ জন এবং নারী ৪৭ হাজার ১৩০ জন।
কাউন্সিলর প্রার্থীর পক্ষে বিপক্ষে তর্ক ও হাতাহাতির ঘটনায় নিহত ১
নীলফামারীর সৈয়দপুর পৌরসভার পাঁচ নম্বর ওয়ার্ডে দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে তর্কের এক পর্যায়ে হাতাহাতির ঘটনায় ছোটন অধিকারী (৫২) নামের এক ব্যক্তি নিহত হয়েছে। রবিবার বেলা ১২টার দিকে পৌরসভার মহিলা কলেজ কেন্দ্রের অদুরে এ ঘটনা ঘটে। তিনি ওই ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী নজরুল ইসলামের (ব্রীজ) সমর্থক বলে জানান এলাকাবাসী। এঘটনায় আহত হয়ে সৈয়দপুর ১০০ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন আরো দুইজন।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ওই ভোটকেন্দ্রের বাইরে কাউন্সিলর প্রার্থী নজরুল ইসলামের সমর্থক ছোটন অধিকারীর সঙ্গে অপর কাউন্সিলর প্রার্থী সাদেকুজ্জামান দিনার (উট পাখি) ও আখতার হোসেন ফেকুর (পাঞ্জাবী) সমর্থকদের তর্কের এক পর্যায়ে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এসময় ছোটন অধিকারী অসুস্থ হলে সৈয়দপুর ১০০ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করা করেন।
কাউন্সিলর প্রার্থী নজরুল ইসলাম সমর্থক ছোটনকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ করে বলেন, ‘উট পাখি এবং পাঞ্জাবীর সমর্থকরা আমার সমর্থক ছোটনকে পিটিয়ে হত্যা করেছেন। এ ঘটনায় আজম আলী সরকার (৪৫) ও সবুজ হোসেন (৩০) নামে আমার অপর দুই কর্মী আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।’
অপরদিকে কাউন্সিলর প্রার্থী সাদেকুজ্জামান দিনার ও আখতার হোসেন ফেকু অভিযোগ অস্বীকার করে দাবি করেন,‘ছোটন হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। আমাদের জানামতে সে উচ্চ রক্তচাপের রোগি ছিলেন।’
সৈয়দপুর ১০০ শয্যা হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা রাশেদুজ্জামান বলেন,‘৫২ বছর বয়সী ছোটন অধিকারীকে মৃত অবস্থায় তার স্বজনরা হাসপালে এনেছেন।’
সৈয়দপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল হাসনাত খান বলেন,‘কোন কেন্দ্রে কোন ধরণের সহিংসতার খবর আমার কাছে নেই। ছোটন অধিকারীর মৃত্যুর বিষয়ে থানায় এপর্যন্ত কেউ অভিযোগ দায়ের করেনি।’
ইভিএম এ উৎসাহিত ভোটার
পঞ্চম ধাপে জেলার সৈয়দপুর পৌরসভায় ভোট গ্রহন চলছে। ওই ভোট গ্রহনে পৌরসভাটিতে প্রথমবারের ন্যায় ইভিএম ব্যবহার হচ্ছে। ইভিএম ব্যবস্থায় ভোট দিতে পেরে আনন্দিত ভোটারা।
পৌরসভার এক নম্বর ওয়ার্ডের ভোটার দেলোয়ার হোসেন (২৫) পূর্ব বোতলাগাড়ী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে ভোট দিয়েছেন সকাল সোয়া নয়টার দিকে। এবার প্রথম ইভিএম ব্যবহার করে ভোট দিতে পেরে আনন্দিত তিনি। ভোট প্রদানের আনন্দে বলেন,‘ইভিএম নিয়ে অনেক কথা শুনেছিলাম। এমন কথা শুনে একটা ভিতি কাজ করেছিল আমার মধ্যে। কিন্তু বাস্তবে এসে কোন ঝামেলা ছাড়াই ভোট দিলাম। ভোট প্রদানেও কম সময় লেগেছে।’
একই ওয়ার্ডের বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট প্রদান করেছেন প্রিয়া মণি (১৯)। জীবনে প্রথম ভোট ইভিএম দিয়ে দিতে পেরে আনন্দিত তিনি।
এসময় প্রিয়া মণি বলেন,‘ডিজিটালের যুগে আমার ভোট প্রদানের কাজটিও ইলেকট্রনিক্স ডিভাইসের মাধ্যমে শুরু হলো। এতে আমি খুবই আনন্দিত।’
একই কেন্দ্রে ভোট প্রদান করেছেন লাকী খাতুন (২৫)। তিনি বলেন,‘অনেকের মধ্যে ভিতি আছে ইভিএম নিয়ে। এ নিয়ে আগে নানা কথা শুনেছিলাম। কিন্তু বাস্তবে ভোট দিয়ে সেসব কথার মিল পাইনি।’ ইভিএম-এ ভোট প্রদান খুবই সহজ বলে দাবি করেন তিনি।
পৌরসভাটিতে ভোট গ্রহন শুরু হয় সকাল আটটায়। টানা চলবে বিকাল চারটা পর্যন্ত। মেয়র পদে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকে রাফিকা আক্তার জাহান বেবী, বিএনপির ধানের শীষ প্রতীকে মো. রশিদুল হক সরকার, জাতীয় পাটির লাঙ্গল প্রতীতে সিদ্দিকুল আলম, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের হাতপাখা প্রতীকে মো. নুরুল হুদা, মোবাইল ফোন প্রতীকে স্বতন্ত্র প্রাথী রবিউল আউয়াল রবি প্রতিদ্বন্দীতা করছেন।
১৫ টি ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিল পদে ৮৭ জন, পাঁচটি সংরক্ষিত নারী কাউন্সিল পদে ২১ জন প্রার্থী রয়েছেন। ৪১টি ভোটকেন্দ্রে ভোট প্রদান করবেন ৯৩ হাজার ৮৯৩ জন। এরমধ্যে পুরুষ ৪৬ হাজার ৭৬৩ জন এবং নারী ৪৭ হাজার ১৩০ জন।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ

error: Content is protected !!