• শুক্রবার, ২৩ এপ্রিল ২০২১, ০৮:০২ পূর্বাহ্ন |

সৈয়দপুর পৌরসভা নির্বাচনে বিজয়ী কাউন্সিলের প্রার্থীর ওপর হামলা

সিসি নিউজ ।। নীলফামারীর সৈয়দপুর পৌরসভা নির্বাচনে ২ নং সংরক্ষিত ওয়ার্ডে বিজয়ী মহিলা কাউন্সিলর কাজী জাহানারা বেগমের ওপর হামলা করেছে তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী পরাজিত প্রার্থী রুপা বেগম। রোববার রাত আটটার দিকে শহরে আতিয়ার কলোনী এলাকায় সৈয়দপুর থানার পাশের সড়কে এ হামলার ঘটনাটি ঘটেছে। এতে বিজয়ী মহিলা কাউন্সিলরসহ ৫জন আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে কাজী জাহানারা বেগমসহ ৩জনকে সৈয়দপুর ১০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

অভিযোগে জানা গেছে, গত ২৮ ফেব্রুয়ারি নীলফামারীর সৈয়দপুর পৌরসভার নির্বাচনের ভোট গ্রহন উৎসবমূখর পরিবেশে সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন হয়। এ নির্বাচনে পৌরসভার সংরক্ষিত আসনে ২ নং সংরক্ষিত ওয়ার্ডে কাজী জাহানারা বেগম ৫ হাজার ৮৬ ভোট পেয়ে পঞ্চমবারের মতো নির্বাচিত হন। তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ছিলেন মোছা: রূপা । তিনি পেয়েছেন ৩ হাজার ২১৮ ভোট। ঘটনার দিন রোববার রাত আনুমানিক আটটার দিকে নির্বাচনে সংরক্ষিত আসনের বিজয়ী মহিলা কাউন্সিলর কাজী জাহানারা বেগম তাঁর কিছু কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে শহরের নয়াটোলার বাড়ি থেকে বের হয়ে আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে দেখা-সাক্ষাৎ করতে দলীয় কার্যালয়ে যাচ্ছিলেন। এ সময় তিনি শহরের আতিয়ার কলোনী এলাকায় সৈয়দপুর থানার পাশের সড়কের পৌঁছালে নির্বাচনে তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী পরাজিত প্রার্থী রুপা পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী তাঁর লোকজন নিয়ে বিজয়ী কাউন্সিলর কাজী জাহানারা বেগমের ওপর আর্তকিত হামলা করে। এ সময় কাজী জাহানারা বেগমসহ তাঁর কর্মী-সমর্থকরা কোন কিছু বুঝে উঠার আগে রূপা বেগমের নেতৃত্বে তাঁর সন্ত্রাসী লোকজন তাদের ওপর চড়াও হয়ে এলোপাতাড়ি মারপিট শুরু করেন। এ সময় পরাজিত প্রার্থী রুপা নিজে বিজয়ী কাউন্সিলর কাজী জাহানারা বেগমের গলা টিপে ধরে তাঁকে মেরে ফেলার চেষ্টা করে। আর রুপার সঙ্গীয় লোকজন জাহানারা বেগমেন সঙ্গে থাকা তাঁর কর্মী-সমর্থকদের বেদম মারপিট করে এবং মহিলা কর্মী-সমর্থকদের গলার চেইনসহ নগদ টাকা-পয়সা ছিনিয়ে নেয়। পরে কাজী জাহানারা বেগমসহ তাঁর কর্মী-সমর্থকরা প্রাণ বাঁচাতে দৌঁড়ে পাশের জনৈক নাজমা বেগমের বাড়িতে আশ্রয় নেয়। পরবর্তীতে লোকজন সেখান থেকে আহত অবস্থায় বিজয়ী কাউন্সিলর কাজী জাহানারা বেগম (৪৭), তাঁর ছোট বোন আনোয়ারা বেগম (৩৫), রেজাউল করিম সেতু (২৫) মেহেদী হাসান মাসুমকে (২৫) ও মো. মমিনুল ইসলামকে (২৬) উদ্ধার করে সৈয়দপুর ১০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে ভর্তি করেন। বর্তমানে কাজী জাহানারা বেগম (৪৭), তাঁর ছোট বোন আনোয়ারা বেগম (৩৫), রেজাউল করিম সেতু (২৫), মেহেদী হাসান মাসুম (২৫) চিকিৎসাধীন রয়েছে। অপর আহত দুইজনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মহিলা কাউন্সিলর কাজী জাহানারা বেগম অভিযোগ করে সিসি নিউজকে জানান, প্রতিদ্বন্দ্বী পরাজিত প্রার্থী রুপা তাঁর লোকজন নিয়ে তাকে প্রাণে মেরে ফেলার উদ্দেশ্যে এ হামলা চালানো হয়েছে। ঘটনার পরপরই ঘটনাটি ঘটনাটি মৌখিকভাবে সৈয়দপুর থানা পুলিশকে অবহিত করেছেন বলে জানান।

এ ঘটনায় রুপা সিসি নিউজকে জানান, বিজয়ী প্রার্থী আনন্দ মিছিল নিয়ে আমার বাসার সামনে এসে আমার পরাজয় নিয়ে ওই প্রার্থীর লোকজন অকথ্য ভাষায় মিছিল দিতে থাকে। মিছিলের লোকজন আমার বাসার গেটে জোরে জোরে ধাক্কা মারতে থাকলে আমিসহ বাসার লোকজন বের হলে তারা আমার ওপর হামলা চালায়। এসময় মহল্লাবাসী একত্রিত হয়ে এগিয়ে এলে মিছিলকারীরা পালিয়ে যায়। বিষয়টি পুলিশকে অবহিত করেছি।

সৈয়দপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আবুল হাসনাত খান সিসি নিউজকে বলেন, মৌখিকভাবে উভয়পক্ষ আমাকে বিষয়টি জানিয়েছে কিন্তু কোন লিখিত অভিযোগ পাইনি। লিখিত অভিযোগ পেলে অবশ্যই আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ

error: Content is protected !!