• শুক্রবার, ০৬ অগাস্ট ২০২১, ০৫:১৫ পূর্বাহ্ন |

নীলফামারীতে বন্ধুর সঙ্গে বেড়াতে গিয়ে কলেজ ছাত্রী হত্যা না দূর্ঘটনা?

সিসি নিউজ ।। নীলফামারীর জলঢাকায় বন্ধুর সঙ্গে ঘুরতে গিয়ে মোটরসাইকেল থেকে পড়ে আহত কলেজ ছাত্রী রুবাইয়া ইয়াসমিন রিমু (২২) মৃত্যু হয়েছে। গত সোমবার দুপুরে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় সে।
সেদিন সকাল নয়টার দিকে জলঢাকা উপজেলার রাজারহাট নামক স্থানে ওই দূর্ঘটনা ঘটে। মঙ্গলবার ময়নাতদন্ত শেষে রংপুর থেকে বিকালে গ্রামের বাড়িতে নিহতের লাশ পৌঁছে।
ওই কলেজ ছাত্রী জেলা সদরের কচুকাটা ইউনিয়নের তালুক মানুষমারা গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের মেয়ে এবং রংপুর কারমাইকেল কলেজের বাংলা বিভাগের অনার্স দ্বিতীয় বষের শিক্ষার্থী। এঘটনায় নিহত রিমুর বাবা আব্দুর রাজ্জাক তার মেয়ের বন্ধু একই ইউনিয়নের কচুকাটা গ্রামের ফজলুল করিম ফয়সাল (২৩) ও ফয়সাল ও ব্রমতল গ্রামের আব্দুল্লাহ মিয়ার ছেলে বাহাজাত জুলফিকার রিজভীকে আসামী করে সোমবার রাতে জলঢাকা থানায় অপহরণ ও হত্যা মামলা দায়ের করেন। ফয়সাল সোহরাওয়ার্দী কলেজের রাষ্ট্র বিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র এবং রিজভী নীলফামারী সরকারী কলেজ থেকে এবারে এইচএসসি পাশ করেছেন।
রিমুর বাবা অভিযোগ করে বলেন,‘আমি দুপুর ১২টার দিকে রুবাইয়ার মৃত্যুর খবর পাই। ওই ছেলের সঙ্গে আমার মেয়ের কোনো সম্পর্ক ছিল না। তারা আমার মেয়েকে মোটরসাইকেলে অপহরণ করে। এতে আমার মেয়ে বাধা সৃষ্টি করলে তাকে রাস্তায় ফেলে দিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এঘটনায় আমি সোমবার রাত ১২টার দিকে জলঢাকা থানায় মামলা দায়ের করেছি।’
ওই মৃত্যুর ঘটনাকে কেন্দ্র করে নিহতের পরিবারের বরাত দিয়ে কলেজ ছাত্রীকে অপহরণ ও হত্যা করার অভিযোগ তুলে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হলে বিভিন্ন মহলে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।
মঙ্গলবার দুপুরে ওই এলাকার বিভিন্ন লোকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে রিমু তার তিন বান্ধবীসহ প্রতিদিনের ন্যায় এলাকার টেংগনমারী বাজারের একটি একটি কোচিং সেন্টারে যায়। এরপর সেখান থেকে তার বন্ধু ফয়সালের মোটরসাইকেলে জলঢাকা শহরের দিকে যাওয়ার সময় রাজারহাট নামক স্থানে দূর্ঘটনায় পড়ে তারা দুজনে আহত হন। এসময় রিমুকে গুরুত্বর আহত অবস্থায় জলঢাকা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে সেখান থেকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ওই কলেজ ছাত্রীর মৃত্যু হয়।
এবিষয়ে কচুকাটা ইউনিয়নের পশ্চিমপাড়া গ্রামের রফিকুল ইসলাম (৫০) বলেন,‘ ফয়সাল এবং ওই কলেজ ছাত্রীর বাড়ি পাশপাশি এলাকায়। সমবয়সী হওয়ায় তারা দুজনে বন্ধু। শুনেছি এরই মধ্যে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠেছে। সে সুবাদে প্রায় সময় দুজনকে বিভিন্ন স্থানে তাদেরকে ঘুরতে দেখা গেছে। গত সোমবার একই ভাবে তারা দুজনে কোথাও ঘুরতে বের হলে পথে ওই দূর্ঘটনা ঘটে। ফয়সাল ফোনে দূর্ঘনার খবর রিজভীকে জানালে রিজভী সহযোগিতার জন্য এগিয়ে যায়। এখন শুনছি রিমুর বাবা তাদের নামে অপহরণ ও হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। ফয়সাল ও রিজভী অপহরণ করার মত ছেলে নয়।’ একই দাবি করেন কচুকাটা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আনিছুর রহমান এবং সাধারণ সম্পাদক তছলীম উদ্দিনসহ অনেকে।
এববিষয়ে বাহাজাত জুলফিকার রিজভী বলেন,‘সকাল নয়টা ৩১ মিনিটে ফয়সাল ভাই ফোনে আমাকে দূর্ঘটনার খবর জানায়। চিকিৎসার সহযোগিতার জন্য কিছু টাকাসহ আমাতে যেতে বলেন। তার ফোন পেয়ে আমি দ্রুত রাজার হাটের ঘটনাস্থলে পৌঁছি। সেখনে গিয়ে তাকে না পেয়ে জলঢাকা হাসপাতালে যাই। আহত রিমু আপার অবস্থা খারাপ হওয়ায় চিকিৎসকের পরামর্শে ফয়সাল ভাইসহ রিমু আপাকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসাপাতালে নেই। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। এরপর রাতে মামলার খবর জানতে পারি। তাতে অভিযোগ করা হয়েছে আমরা নাকি রিমু আপাকে অপহরণ করে মোটারসাইকেল থেকে ফেলে দিয়ে হত্যা করিছি। বিষয়টি সঠিক না, তাদের উপকার করতে গিয়ে আমাকে মামলায় ফাসতে হলো।’
এ বিষয়ে ফজলুল করিম ফয়সালের বড় বোন আরিফা আক্তার বলেন, ‘আমার ছোটভাই ফজলুল করিম ফয়সাল, রুবাইয়া ইয়াসমিন রিমু এবং আমি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে এক সঙ্গে একই শ্রেণিতে পড়তাম। সে হিসেবে রিমুর সঙ্গে আমাদের বন্ধুত্ব। রুবাইয়া ইয়াসমিনের মৃত্যুতে আমরাও ব্যথিত। ফয়সালের জন্মদিন ছিল গতকাল, হয়তো সে কারণে তারা ঘুরতে যেতে পারে, যেটা আমাদের জানা নেই। তবে অপহরণের ঘটনা সত্য নয়। তদন্ত করলে আসল ঘটনা জানা যাবে।’
রিমুর বাবার দায়ের করা মামলার প্রথম স্বাক্ষী ও রিমুর বান্ধবী নুরী আক্তার (২১) বলেন, ‘টেংগনমারী বাজারে ইংরেজি বিষয়ে প্রাইভেট পড়ার জন্য বাড়ি থেকে রিমুসহ চার বান্ধবী বাড়ি থেকে বের হই। কচুকাটা বাজার থেকে টেংগনমারী যাওয়ার পর রিমুর মোবাইলে একটি কল আসলে সে ভ্যান থেকে নেমে যায় এবং বলে ‘প্রাইভেট শেষ হলে আমাকে ফোন দিস’। এরপর আমরা প্রাইভেট শেষে রিমুকে ফোন দিলে সে ফোন রিসিভ করেনি। আমরা অপর তিন বান্ধবী বাড়ি চলে এসেছি।’

কচুকাটা ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রউফ চৌধুরী বলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে কোনো পক্ষই আমাকে কিছু বলেনি। তবে লোকমুখে জেনেছি তাদের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। সেই সম্পর্কের সূত্র ধরে তারা বেড়াতে গিয়ে দুর্ঘটনার শিকার হয়। আর বাহজাত জুলফিকার রিজভী এটার সঙ্গে কোনোভাবে জড়িত ছিল না এটা আমি নিশ্চিৎ হয়েছি। সে তাদের উপকার করতে গিয়ে বিপদে পড়েছে।’
এদিকে জলঢাকা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা মেসবাহুর রহমান প্রধান জানান, সোমবার সকাল আনুমানিক সোয়া ৯টার দিকে গুরুত্বর অবস্থায় রিমু ও ফয়সাল হাসপাতালে আসে। সাড়ে ৯টার দিকে রিমুর অবস্থা আশংকাজনক হলে এম্বুলেন্সে রিমু ও ফয়সালকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।
জলঢাকা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, এ ঘটনায় মেয়ের বাবা আব্দুর রাজ্জাক বাদী হয়ে সোমবার রাত ১২টার দিকে জলঢাকা থানায় একটি অপহরণ ও হত্যা মামলা করেছেন। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।’
মিথ্যা অভিযোগ দাবি করে এলাকাবাসীর মানববন্ধন
রিমুর বাবার অভিযোগ মিথ্যা দাবি করে মঙ্গলবার দুপুরে কচুকাটা বাজারে মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী। তারা ওই কলেজ ছাত্রীর মৃত্যুতে দুঃখ প্রকাশ করে ফয়সাল এবং রিজভীকে নির্দোষ দাবি করেন।
মানববন্ধনে এলাকার রওশন জামিল (২৫) ও আব্দুল হাকিম প্রামানিক (২৪) দাবি করে বলেন,‘আমারা ফয়সাল, রিজভী এবং রিমুকে সকলে চিনি। ফয়সাল এবং রিমু দুজনে বন্ধু। সম্প্রতি তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠার কথা শোনা গেছে। তারা স্বেচ্ছায় সেদিন বেড়াতে গেলে দূর্ঘটনা কবলিত হন। তাদেরকে সহযোগিতার জন্য রেজভী এগিয়ে যায়। অথচ তাদের নামে অপহরণ ও হত্যা মামলা দায়ের দুঃখজনক। আমরা রিমুর মৃত্যুতে যেমন ব্যথিত, তেমনি ওই ঘটনায় নির্দোষ কারো শাস্তি হউক সেটাও চাই না। পাশাপাশি এঘটনা নিয়ে বিভিন্ন গণ্যমাধ্যমে ফয়সালকে অপহরণকারী এবং ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সহসভাপতি উল্লেখ করে বিভিন্ন গণমাধ্যমে যে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে সেটিরও প্রতিবাদ জানাচ্ছি আমরা। ফয়সাল ছাত্রলীগের কোন পদে নেই, ইউনিয়নে ছাত্রলীগের পূর্নাঙ্গ কোন কমিটিও নেই।’


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ

error: Content is protected !!