• বুধবার, ২১ এপ্রিল ২০২১, ১০:৪০ পূর্বাহ্ন |

রেলের স্টাডিং ফাঁকি: পকেট ভারী হচ্ছে ট্রেনে অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীর

বিশেষ প্রতিনিধি ।। নীলফামারী রেল স্টেশন থেকে ট্রেন চলাচল করলেও যাত্রি টিকেট নেই পাশ্ববর্তী স্টেশনে যাওয়ার। করোনার পরিস্তিতে এক মাসেরও বেশি সময় ধরে এসব গন্তব্যে টিকেট দেওয়া বন্ধ রয়েছে। টিকেট দেওয়া বন্ধ থাকলেও যাত্রি চলাচল রয়েছে স্বাভাবিক। সে সুযোগে পকেট ভারী হচ্ছে ট্রেনে কর্মরত এক শ্রেণির অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীর।
যাত্রিরা বলছেন, বিভিন্ন প্রয়োজনে নীলফামারী স্টেশন থেকে পার্শ্ববর্তী চিলাহাটি, ডোমার, সৈয়দপুর, পার্বতীপুর, ফুলবাড়িসহ আশপাশ এলাকার বিভিন্ন স্থানে নীলফামারী থেকে ট্রেনে চলাচল করতে হয়। এসব স্থানে যাতায়াতের টিকেট দেওয়া হচ্ছে না স্টেশনে। বাধ্য হয়ে হয়ে টিকেট ছাড়াই ট্রেনে উঠতে হয়। ট্রেনে উঠে পড়তে হয় ভাড়ার বিপত্তিতে। কর্তব্যরতরা ভাড়া আদায় করলেও কোন টিকেট দেন না। টিকেট চাইলে গুণতে হয় জরিমানা।
ডোমার উপজেলার ভোগডাবুরী ইউনিয়নের উত্তর কাওলা গ্রামের জাহিদুল ইসলাম (৪৫) বলেন, বিভিন্ন প্রয়োজনে চিলাহাটি স্টেশন থেকে ট্রেনে আমাকে যেতে হয় জেলা শহর নীলফামারীতে। যাওয়ার সময় চিলাহাটি স্টেশনে টিকেট পাওয়া গেলেও নীলফামারী থেকে চিলাহাটি আসার টিকেট পাওয়া যায় না। ফলে ট্রেনে উঠে ভাড়া পরিশোধ করলেও রশিদ পাওয়া যায় না। আর রশিদের কথা বললেই জরিমানার হিসাব চলে আসে।’
একই উপজেলার গোমনাতি ইউনিয়নের উত্তর গোমনাতি গ্রামের অজিফা বেগম (৪৫) বলেন,‘আমি গত শুক্রবার তিতুমীর এক্সপ্রেস ট্রেনে নীলফামারী থেকে চিলাহাটি আসি। এসময় স্টেশনে টিকেট না পেয়ে ট্রেনে উঠে চার জনের ১০০ টাকা ভাড়া নেয় টিটি। কিন্তু কোন রশিদ দেয়নি।’
সোমবার বেলা ১২টার দিকে নীলফামারী স্টেশনে গিয়ে দেখা গেছে পাশ্ববর্তী ডোমার এবং চিলাহাটি, সৈয়দপুর এবং দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুর, ফুলবাড়ি, বিরামপুর যাওয়ার টিকেটের জন্য কাউন্টারে ভীর করছিলেন যাত্রিরা। এসময় টিকেট কাউন্টার থেকে জানানো হচ্ছিল এসব স্থানে যাওয়ার টিকেট নেই স্টেশনে। পঞ্চগড় জেলার দেবীগঞ্জ উপজেলার সোনাহার পাঠানপাড়া গ্রামের ওয়াজেদ আলী (৫৫) ও নূর ইসলাম (৫০) বলেন,‘আমরা দিনাজপুর জেলার ফুলবাড়িতে যাব। কিন্তু টিকেট পাচ্ছি না। বাধ্য হয়ে ট্রেনে উঠে টিটিকে টাকা দিয়ে যেতে হবে।’
এ বিষয়ে নীলফামারী রেল স্টেশনের বুকিং সহকারী মো. শামীম হোসেন বলেন, ‘করোনার কারণে একমাসের বেশি সময় ধরে নীলফামারী থেকে সৈয়দপুর, পার্বতীপুর, ফুলবাড়ি, বিরামপুর পর্যন্ত আন্তনগর ট্রেন তিতুমীর ও রূপসা ট্রেনের টিকেট দেওয়া হয় না। এসব ট্রেনের আসন বরাদ্দ না থাকায় ওই টিকেট দেওয়া বন্ধ আছে। তবে বরেন্দ্র ও নীলসাগর ট্রেনের টিকেট দেওয়া হয়। করোনার কারণে বরাদ্দ আসন ছাড়া টিকেট দেওয়া বন্ধের নির্দেশ দিয়েছেন কতৃপক্ষ।’
তিনি জানান, নীলফামারী থেকে ডোমার ও চিলাহাটি পর্যন্ত তিতুমীর ও বরেন্দ্র ট্রেনের ভাড়া ৪৫ টাকা, নীলসাগর ও রূপসার ভাড়া ৫০ টাকা। অপরদিকে সৈয়দপুর, পার্বতীপুর পর্যন্ত তিতুমীর ও বরেন্দ্র ট্রেনের ভাড়া ৪৫ টাকা এবং ফুলবাড়ি ৫৫ টাকা। নীলসাগর ও রূপসা ট্রেনের ভাড়া সৈয়দপুর ও পার্বতীপুর ৫০ টাকা, ফুলবাড়ি ৬৫ টাকা এবং বিরামপুর ৮৫ টাকা।
নীলফামারী স্টেশন মাস্টার মো. ওবায়দুল ইসলাম বলেন, ‘করোনার শুরু থেকে বেশ কিছুদিন স্টান্ডিং টিকেট বন্ধ ছিল। এর পর চালু হলেও গত ২০ জানুয়ারী থেকে আবারো বন্ধ করে দেওয়া হয়। নির্দেশনা না থাকায় আসন বরাদ্দের বাইরে কোনো টিকেট বিক্রি করতে পারছি না।’
তিনি জানান, বিনা টিকেটের যাত্রীরা ট্রেনে টিকেট নিতে চাইলে জরিমানা প্রদান করতে হয়। সে জরিমানার পরিমান গন্তব্যের ভাড়ার সমপরিমান।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ

error: Content is protected !!