• বুধবার, ২১ এপ্রিল ২০২১, ১০:১৮ পূর্বাহ্ন |

জয়পুরহাটে ডায়রিয়ার প্রকোপে শিশুসহ আক্রান্ত প্রায় ২ হাজার মানুষ

জয়পুরহাট প্রতিনিধি ।। ভাইরাস, পরিষ্কার-পরিচ্ছনতার অভাব, আবহাওয়া পরিবর্তনসহ নানা কারনে ডায়রিয়ার প্রকোপে জয়পুরহাট জেলা আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে গত ১ মাসে শিশুসহ প্রায় ২ নারী-পুরুষ, গত এক পপ্তাহে এ সংখ্যা প্রায় ৫ শতাধিক আর প্রতি দিন গড়ে প্রায় ৭০ জন রোগী। জেলার বিভিন্ন অঞ্চল ছাড়াও পাশর্^বর্তী জেলার নি¤œ আয়ের রোগীদেরও ভরসা এখন দেশের সেরা এই এই সরকারি হাসপাতাল। ফলে রোগীর চাপ বেড়ে যাওয়ায় ওয়ার্ডে জায়গা না থাকায় তাদের চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে হাসপাতালগুলোর বারান্দায় বেড দিয়ে এমন কি মেঝেতেও ।

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের তেথ্য ও সরেজমিনে জানা গেছে, শীতের শেষে বছরের এ সময়টা আবহাওয়ার তারতম্যের পাশাপাশি ভাইরাস, অপরিস্কার অপরিচ্ছন্নতা ও খাবার গ্রহনের পর স্বল্প পরিমান পানি পানসহ নানা কারণে ডায়েরিয়ার প্রাদুর্ভাব ঘটে। একই কারনে প্রতি বছর এ সময় কমবেশী ডায়েরীয়ার প্রকোপ দেখা যায়। গত জানুয়ারীর শেষ সপ্তাহ থেকে এ পর্যন্ত নানা বয়সী প্রায় ২ হাজার, গেল এক সপ্তাহে ৫০০ আর প্রতি দিন গড়ে প্রায় ৭০জন নারী ডায়েরীয়া রোগী ভর্তি হয়েছে জয়পুরহাট জেলা আধুনিক হাসপাতালে। বমি, পাতলা পায়খানা ও পেট ব্যথা এবারের ডায়েরিয়ার প্রধান লক্ষন বলে জানান রোগী, শিশু রোগীদের স্বজন ও চিকিৎসা সেবার জড়িতরা।

জয়পুরহাট জেলা আধুনিক হাসপাতালের বেডে সুযোগ না পেয়ে মেঝেতে বিছানা পেতে চিকিৎসাধীন শিশুদের মধ্যে সদর উপজেলার বুলুপাড়া গ্রামের জাহিদুল ইসলামের ৬ মাসের শিশু পুত্র আব্দুল্লাহ, একই উপজেলার তুলাট গ্রামের জাহেদুল আলমের ১০ মাসের শিশু রমজান, কয়তাহার গ্রামের রুবেলের ১ বছর ৫মাসের শিশু জাকারিয়া। এসব শিশুসহ অন্যান্য শিশুসহ নানা বয়সী রোগীদের অভিভাবকরা জানান, বাড়িতে তাদের শিশুরা ঘন ঘন পাতলা পায়খানা ও বমি করলে বাড়িতেই স্যাল্যাইন খাওয়ানো হয়। এতে সুস্থ না হলে জয়পুরহাট জেলা হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করানোর পর চিবিৎসা দেওয়া হচ্ছে। এতে ধীরে ধীরে আক্রান্ত রোগীরা সুস্থ হচ্ছে।

জয়পুরহাট জেলা আধুনিক হাসপাতালটি দেশ সেরা সরকারি হাসপাতালের সু নাম ছড়িয়ে পড়লে জেলা ছাড়াও দেশের বিভিন্ন জেলা থেকেও এখানে চিকিৎসা নিতে আসছেন শিশুসহ বিভিন্ন বয়সী রোগীরা। চিকিসা সেবাও মান সম্মত হওযায় সুস্থতার হারও বেশী বলে জানান শিশু রোগীদের স্বজনরা।

দিনাজপুরের বিরামপুর উপজেলার খিয়ারপুর গ্রামের হোসেন জানান, ‘বাচ্চার ১৫দিন ধরে ডায়েরিয়া হয়েছে, ৭দিন বিরাসমপুর হাসপাতালে থাকার পর, শুনেছি এখানে চিকিৎসা ভালো, তাই জয়পুরহাট হাসপাতালে ভর্তি করেছি, এখন আমার বাচ্চা সুস্থ হচ্ছে।’

নওঁগার ধামুইরহাটের মর্জিনা বেগম তার ভাগ্নিকে ও বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার কিচক গ্রামের মফিজুল ইসলাম তার চাচাকে ডায়েরিয়ার কারনে এ হাসপাতালে ভর্তি করিয়েছেন। তারা জানান, জয়পুরহাট জেলা আধুনিক হাসপাতালের চিকিৎসা সেবার মান বেশ ভালো শুনে তারা তাদের রোগী এখানে ভর্তি করে চিকিৎসা দিচ্ছেন। এখন বেশ সুস্থ হওয়ায় রিলিজ অর্ডার পেলে তারা যাবেন ।

চিকিৎসা সেবা নিয়ে কারো কোন অভিযোগ না থাকলেও চিকিৎসা সেবার মান আরো ভালো করতে সম্ভাব্য সকল চেষ্টায় করে যাচ্ছেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

ষ্টাফ নার্স আছমা আখতার বলেন ‘প্রতি দিনই ডায়েরিয়া রোগী আসছে, ডাক্তাররা আমাদের যা অর্ডার করছেন, সেই হিসাবে আমরা চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছি, আমাদের চেষ্টার কোন ত্রুটি হচ্ছে না, রোগীরা চিকিৎসা নিয়ে যে যার মত বাড়ি যাচ্ছে ।’

এটাকে রোটা ভাইরাস জনিত ডায়েরিয়া উল্লেখ করে ডায়েরিয়া রোগের নানা কারনে ও তার প্রতিকার নিয়ে জরুরী বিভাগের চিকিৎসক ডাঃ মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, “জরুরী চিকিৎসা কর্মকর্তা, জয়পুরহাট জেলা আধুনিক হানপাতাল (আবহাওয়া পরিবর্তন, খাদ্যাভাস, অপরিচ্ছন্নতা, কম পানি খাওয়ার কারনে ডায়েরিয়া হতে পারে।”

জয়পুরহাট জেলা আধুনিক হাসপাতালের আবাসিক চিকৎসা কর্মকর্তা ডাঃ মিজানুর রহমান বলেন, “গত এক মাসে প্রায় ২ হাজার ও গত এক সপ্তাহে প্রায় ৫’শ ডায়েরিয়া রোগী হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছে, ডায়েরিয়া হলে যেন তাকে এন্টি বায়েটিক না দেওয়া হয়, স্যালাইনের পাশাপাশি চিকিৎসা ও পরিচ্ছন্নতার বিকল্প নেই, আমাদের পর্যাপ্ত চিকিৎসা সামগ্রী মজুত আছে, ডায়েরিয়া রোগীদের কোন সমস্যা হবে না।”

প্রায় প্রতি বছর এ সময় ডায়েরীয়ার প্রকোপ দেখা যায়, তাই পর্যাপ্ত জরুরী চিকিৎসা সামগ্রী সংরক্ষনের পাশাপাশি পরিচ্ছন্নতার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাও গ্রহনের দাবী এলাকাবাসীর।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ

error: Content is protected !!