• বুধবার, ২১ এপ্রিল ২০২১, ১০:৫০ পূর্বাহ্ন |

মোদি গোপালগঞ্জের ওড়াকান্দি যেতে চান কেন?

সিসি নিউজ ডেস্ক ।। চলতি মাসের শেষদিকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি রাষ্ট্রীয় সফরে বাংলাদেশে আসছেন। প্রায় দীর্ঘ ছ’বছরের ব্যবধানে তার এই সফর। সফরে মোদি যাতে গোপালগঞ্জ জেলায় মতুয়া সম্প্রদায়ভুক্ত হিন্দুদের পবিত্র তীর্থস্থান ওড়াকান্দি গ্রাম দর্শনে যেতে পারেন, সে জন্য বাংলাদেশকে সরকারকে অনানুষ্ঠানিক অনুরোধ জানিয়েছে ভারত।

ইতোমধ্যে গত সপ্তাহে বাংলাদেশে ভারতীয় হাইকমিশনের নয় সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল গোপালগঞ্জের ওড়াকান্দি ও বরিশালের সুগন্ধা শক্তিপীঠ সরেজমিনে সফরও করে গেছেন। নরেন্দ্র মোদি তার সফরে এই দুটো তীর্থস্থানেই যেতে আগ্রহী বলে জানা যাচ্ছে।

ওড়াকান্দি গ্রামে মতুয়া সম্প্রদায়ের ঠাকুরবাড়িআজ বৃহস্পতিবার মোদির বাংলাদেশ সফরের নানা দিক চূড়ান্ত করতে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর ঢাকায় আসছেন। মোদির সফরসূচিতে ওড়াকান্দি অন্তর্ভুক্ত করা সম্ভব হবে কি না, তা সেদিন জয়শঙ্করের সঙ্গে ঢাকার কর্মকর্তাদের বৈঠকেই স্থির হবে বলে আভাস পাওয়া যাচ্ছে। নরেন্দ্র মোদির এই প্রস্তাবিত ওড়াকান্দি সফরের তাৎপর্য অবশ্য পুরোপুরি রাজনৈতিক।

মতুয়ারা হলো তথাকথিত নিম্নবর্ণীয় হিন্দুদের একটি শাখা-সম্প্রদায় বা ‘সেক্ট’, যারা উনিশ শতকের ধর্মগুরু হরিচাঁদ ঠাকুর ও তার পুত্র গুরুচাঁদ ঠাকুরের প্রবর্তিত মতবাদের অনুসারী। হরিচাঁদ ঠাকুর ও গুরুচাঁদ ঠাকুর দুজনেরই জন্মস্থান ওড়াকান্দি। আর সেই গ্রামের ‘ঠাকুরবাড়ি’ বিশ্বময় ছড়িয়ে থাকা কোটি কোটি মতুয়ার কাছে এক পবিত্র পুণ্যভূমি।

ভারতের কোনও প্রধানমন্ত্রী এর আগে কখনও বাংলাদেশ সফরে গিয়ে ওড়াকান্দি যাননি। ফলে নরেন্দ্র মোদি যদি সত্যিই সেখানে যান, তা হলে মতুয়াদের কাছে তিনি ইতিবাচক একটি বার্তা পৌঁছে দিতে পারবেন।

গোটা পশ্চিমবঙ্গজুড়ে প্রায় দেড় কোটি মতুয়ার বাস। রাজ্যের ৬৫ থেকে ৭০টি আসনে মতুয়া ভোট জয়-পরাজয়ের নিষ্পত্তি করে দেয় বলে ধারণা করা হয়। সেই জায়গায় পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনের ঠিক মুখে প্রধানমন্ত্রী মোদির ওড়াকান্দি যাওয়াটা বিজেপির জন্য রাজনৈতিক সুফল বয়ে আনতে পারে।

ভারতে প্রায় সোয়া বছর আগে পার্লামেন্টে পাস হওয়া নাগরিকত্ব আইন এখনও বাস্তবায়ন শুরু না হওয়ায় বাংলাদেশ থেকে ভারতে পাড়ি দেওয়া মতুয়ারা বেশ হতাশ। এই আইন তাদের ভারতের স্থায়ী নাগরিকত্ব দেবে বলে তারা আশা করেছিলেন। যে স্বপ্ন এখনও পূরণ হয়নি। তাদের সেই ক্ষতেও প্রলেপ দিতে পারে মোদির ঠাকুরবাড়ি দর্শন।

ঘটনাচক্রে, নরেন্দ্র মোদি যে দিন ওড়াকান্দি সফর করার পরিকল্পনা করছেন (২৭ মার্চ) সে দিনই পশ্চিমবঙ্গে আট পর্বের বিধানসভা নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শুরু হচ্ছে। সেখানে ভোট চলবে ২৯ এপ্রিল পর্যন্ত। এই পটভূমিতে স্বভাবতই ভারত সরকার চাইছে যেন-তেন-প্রকারেই ওড়াকান্দিতে প্রধানমন্ত্রী মোদির সফর চূড়ান্ত করতে।

ওড়াকান্দিতে মতুয়া সম্প্রদায়ের বারুনী মেলাবস্তুত ২৬ মার্চ ঢাকায় পৌঁছে নরেন্দ্র মোদির পরদিন এমনিতেই গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়াতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কবরে শ্রদ্ধার্পণ করতে যাওয়ার কথা রয়েছে। কলকাতার আনন্দবাজার পত্রিকা বলছে, ওই একই সফরে যাতে ওড়াকান্দিকে অন্তর্ভুক্ত করা যায় তার সর্বাত্মক চেষ্টা চলছে।

তবে যেহেতু ওই গ্রামে যাওয়ার রাস্তাটি মোদির কনভয় যাওয়ার পক্ষে বেশ সরু এবং কাছাকাছি হেলিপ্যাড তৈরির উপযুক্ত জায়গারও অভাব– সে কারণেই কিছুটা প্রতিকূলতা দেখা দিয়েছে।

নরেন্দ্র মোদি যদি শেষ পর্যন্ত সত্যিই ওড়াকান্দি যান, তবে সেখানে তার সফরসঙ্গী হবেন হরিচাঁদ-গুরুচাঁদ ঠাকুর বংশের উত্তরাধিকারী মতুয়া নেতা ও বিজেপি-র এমপি শান্তনু ঠাকুর।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ

error: Content is protected !!