• মঙ্গলবার, ২০ এপ্রিল ২০২১, ০৪:৩৭ পূর্বাহ্ন |

মেয়র রাফিকা কি পারবেন বাদল’র মতো মিডিয়াবান্ধব হতে?

।। সাব্বির আহমেদ সাবের ।। ১৮ মার্চ সৈয়দপুর পৌরসভার ইতিহাসে স্মরণীয় দিন হয়ে থাকবে। প্রয়াত সাবেক মেয়র আখতার হোসেন বাদলের সহধর্মিনী রাফিকা আকতার জাহান বেবী মেয়র হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন এদিনে। এদিনটি কেন্দ্রীয় সরকারের সাথে সমতায় ফেরার দিন, বিশেষ জনগোষ্ঠিকে অপবাদ থেকে মুক্তি দেয়ার দিন, সাধারণ গৃহিণী থেকে মেয়র হওয়ার দিন, প্রত্যাশায় বুক বাঁধার দিন।
সৈয়দপুর পৌরসভার ৬৩ বছরের ইতিহাসে এই প্রথম একজন নারী মেয়র পদে আসীন হলেন। এতোদিন কেন্দ্রীয় সরকারের প্রতিপক্ষ রাজনৈতিক দলের নেতারাই সৈয়দপুর পৌরসভার চেয়ারম্যান বা মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন। ফলে কেন্দ্রীয় সরকারের সাথে স্থানীয় এ সংস্থাটির সবসময় দূরত্ব থেকেছে। যেকারণে অনেক ক্ষেত্রে উন্নয়নবঞ্চিত হয়েছে এ শহরটি। এছাড়াও একটি বিশেষ জনগোষ্ঠির ভোটব্যাংকের কথিত অপবাদও ঘুচেছে। তাই মেয়র রাফিকার কাছে পৌরবাসীসহ সংবাদকর্মীদের প্রত্যাশা অনেক বেশি।
দায়িত্ব গ্রহণের দিন সকাল ১১টায় পৌরভবনে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল স্থানীয় সংবাদকর্মীদের। সংবাদকর্মীরা ওই আমন্ত্রণে সাড়া দিয়ে উপস্থিত হন পৌরসভায়। শহীদ তুলশীরাম সড়কের পৌরসভা মোড় থেকে পৌর ভবন যেন লোকারণ্য। ফুলের পাঁপড়ি আর মালা নিয়ে রোদের মধ্যেও রাস্তার দু’পাশে দাঁড়িয়ে আছেন সবাই। পৌর কর্মচারী, মেয়র-কাউন্সিলরের সমর্থক ও দলীয় নেতাকর্মীদের ব্যস্ততা চোখে পড়ার মতো। আনুমানিক বারটায় গাড়িবহর পৌঁছালো পৌরভবনে।
সম্মেলন কক্ষে অপেক্ষার প্রহর যেন শেষ হচ্ছিল না সংবাদকর্মীদের। বারবার মনে পড়ছিল জননেতা আখতার হোসেন বাদল ভাইয়ের কথা। এমন পরিস্থিতিতে তেজদ্বীপ্ত গোঁফের নিচে লাল ঠোঠ দুটো টিস্যু পেপারে মুছতে মুছতে বাদল ভাই এসে হয়তো বলতেন-‘ আর কন না। এ্যাতো মানুষ, কার কথা ফ্যালাইবেন? দেরি হয়া গেল কিছু মনে করেন নাইতো?”
ঘড়িতে তখন দেড়টা। মেয়রের গাড়িবহরে রংপুর থেকে ফেরা এক সহকর্মীকে ফোন দিলাম। তিনি জানালেন, ভিড়ের কারণে মেয়রের কাছে যাওয়ার সুযোগ পাচ্ছি না। সাংবাদিকদের সাথে তিনি কখন বসলেন তাও বলতে পারছি না। এর কিছুক্ষণ পর ওই সহকর্মী সবার হাতে নাস্তার প্যাকেট ও সামান্য উপহার ধরিয়ে দিয়ে বললেন-মেয়র অত্যন্ত কান্ত, কাউন্সিলররা চলে গেছেন তাই তিনি আজ সাংবাদিকদের সাথে সৌজন্য সাক্ষাতে মিলিত হতে পারবেন না। সংবাদকর্মীরা যে উৎসাহ নিয়ে এসেছিলেন তা যেন নিমিষেই উবে গেল। যে যার মতো স্থান ত্যাগ করলেন।
অথচ সংবাদকর্মীরা চলে আসার পর ওই একই সম্মেলন কক্ষে পৌর পরিষদের ফুলেল শুভেচ্ছার ছবি ফেসবুকে দেখা গেছে। একজন জেষ্ঠ্য সাংবাদিকের মতে, দায়িত্ব গ্রহণের প্রথম দিনেই তিনি (মেয়র) সংবাদকর্মীদের সাথে সাধারণ সৌজন্যবোধও দেখালেন না। তিনি ইচ্ছে করলে নিজে এসে অপারগতা প্রকাশ করতে পারতেন। এতে তাঁর সৌজন্যবোধের বহিঃপ্রকাশ ঘটতো। তিনি আরও বলেন, তাঁর পাশেপাশে থাকা অতিউৎসাহী দলীয় কোন কর্মী বা পৌরকর্মচারীদের কেউ তাঁকে সংবাদকর্মীদের সাথে দূরত্ব সৃষ্টিতে অপচেষ্টা করছেন নাতো? বিষয়টি মেয়র মহোদয়কে ভেবে দেখার অপেক্ষা রাখে।
নবাগত মেয়রকে ঘিরে অনেকের মাঝে আনন্দ-উচ্ছ্বাস থাকবে, নির্বাচনে যারা তাঁর হয়ে কাজ করেছেন তাদের ভিড়ও থাকবে, ফটোসেশনের জট থাকবে, সেলফির বায়না থাকবে। সবকিছুর পরও মিডিয়ার কথা মাথায় রাখতে হবে, এমনটাই প্রত্যাশিত। কারণ পৌরসভার ইতিবাচক উন্নয়নে সংবাদকর্মীদের ভূমিকা নিঃসন্দেহে উল্লেখযোগ্য। যা উপলদ্ধি করতেন আগের পৌর চেয়ারম্যান বা মেয়ররা। নবনির্বাচিত নির্বাচিত মেয়র রাফিকাকেও হতে হবে বাদলের মতো মিডিয়াবান্ধব।
জনপ্রতিনিধিদের মিডিয়াবান্ধব হওয়াটা তাদের গুণের মধ্যে পড়ে। জননেতা প্রয়াত আখতার হোসেন বাদলের মধ্যে ওই গুণ ছিল। তিনি ছিলেন আপাদমস্তক মিডিয়াবান্ধব। মিডিয়া সংশ্লিষ্টদের বন্ধু ভাবতেন বলেই যে কোন সমস্যা-সংকট-সম্ভাবনায় সংবাদকর্মীদের সাথে শলাপরামর্শ নিতেন। যে কারণে তিনি হয়ে উঠেছিলেন অত্রাঞ্চলের একজন জননেতায়। আমরা মনে করি প্রয়াত স্বামীর পদাঙ্ক অনুসরণ করে সকল সীমাবদ্ধ কাটিয়ে মেয়র রাফিকা আকতার জাহান বেবীও আগামীতে পরিণত হবেন এ অঞ্চলের উন্নয়নের কান্ডারী, জনমানুষের প্রিয় নেত্রী।
লেখক: নীলফামারী জেলা প্রতিনিধি, ডেইলি অবজারভার; বার্তা সম্পাদক, সিসি নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম ও সাপ্তাহিক সাফজবাব।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ

error: Content is protected !!