• সোমবার, ১৭ মে ২০২১, ১২:৪৯ পূর্বাহ্ন |

সৈয়দপুরে কলেজ শিক্ষিকার নির্যাতনের ঘটনাটি সাজানো নাটক!

সিসি নিউজ ।। সৈয়দপুরে কলেজ শিক্ষিকা মেরিনা মান্নান নির্যাতনের মিথ্যা গল্প তৈরী করে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন- এমন অভিযোগ সংবাদকর্মীদের কাছে বলেন তাঁর স্বামী জোবায়দুল ইসলাম। রোববার (১৮ এপ্রিল) সৈয়দপুরের একটি পত্রিকা অফিসে বসে স্থানীয় সংবাদকর্মীদের কাছে আসল ঘটনাটি তুলে ধরেন।
সৈয়দপুর উপজেলার বাঙ্গালীপুর ইউনিয়নের লক্ষণপুর বাড়াইশাল পাড়ার জোবায়দুল ইসলাম বলেন, পরস্পরকে ভালোবেসে ২০০৮ সালের ৮ই মে উভয় পরিবারের সম্মতিতে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। বিয়ের পরে স্ত্রী মেরিনাকে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হিসেবে গড়ে তোলেন। শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে লক্ষনপুর স্কুল এন্ড কলেজে প্রভাষক হিসেবে যোগদানও করেন। এ সময়ে তাদের সংসারে আসে এক পুত্র সন্তান। কিন্তু বিয়ের পর থেকে স্ত্রী মেরিনা মান্নানের চলাফেরা সন্দেহজনক। একটি ওষুধ কোম্পানীতে চাকুরী করার কারণে আমাকে প্রায়ই সময় বাইরে থাকতে হয়। এ সুযোগে বিভিন্ন অজুহাতে প্রতিনিয়ত বাবার বাড়ি যাওয়ার কথা বলে যত্রতত্র ঘুরে বেড়ানো একরকম নেশায় পরিনত হয় তাঁর। এ বিষয়ে বাঁধা প্রদান করলে মেরিনা বেপরোয়া হয়ে উঠে এবং ২০১৬ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারী আমাকে একতরফা তালাক প্রদান করে পিত্রালয়ে চলে যায়। পরবর্তীতে তৎকালীন ইউপি চেয়ারম্যানসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যাক্তিবর্গের উপস্থিতিতে উভয়েই পূর্ণরায় ঘর সংসার করি। সংসারে আসে আমাদের ২য় পুত্র সন্তান। কিছুদিন পরে আবারো বেপোরেয়া চলাফেরা শুরু করে স্ত্রী মেরিনা। লকডাউনের সময় প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলেও প্রতিদিন সে কলেজে যাওয়ার নাম করে বাড়ি থেকে বের হয়ে যায়। এর বিষয়ে গত ৫ এপ্রিল তাকে শাসন করতে গেলে সে উল্টো আমার ওপর চড়াও হয় এবং আমার বাম হাতে কামড় দিয়ে ক্ষতবিক্ষত করে। ওইদিন হতে আমি মনের দুঃখে বাড়িতে না গিয়ে শহরে আমার কর্মস্থলে অবস্থান করি। ঘটনার দিন ১৬ এপ্রিল নানা অজুহাতে আমার বাবা-মায়ের সাথে ঝগড়া বাধায় মেরিনা। এক পর্যায়ে সে আমার বাবাকে লাঞ্চিত করে এবং নিজের দোষ ঢাকতে ৯৯৯ তে কল দিয়ে উদ্ধারের আবেদন জানায়।
জোবায়দুল ইসলাম বলেন, জরুরী কল পেয়ে সৈয়দপুর থানার এএসআই আশরাফুল আলম দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছে তাকে ঘরের মধ্যে পায় এবং সকলের উপস্থিতিতে মেরিনাকে তাঁর পরিবারের কাছে হস্তান্তর করে। পরে নির্যাতনের নাটক সাজিয়ে অসুস্থতার ভান করে সৈয়দপুর ১০০ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি হয়।
এ প্রসঙ্গে মেরিনা মান্নান বলেন, মাছ দিয়ে শাক ঢাকার মতো সত্য ঘটনাকে আড়াল করার চেষ্টা করেছে জোবায়দুল। আমার চরিত্র নিয়ে যে অপবাদ দেয়া হয়েছে তা আদৌ সত্য নয়। সঠিক তদন্ত সাপেক্ষে আমি এর সুষ্ঠু বিচার দাবি করছি।
সৈয়দপুর থানার অফিসার ইনচার্জ আবুল হাসনাত খান জানান, মেরিনা মান্নান নিজে বাদী হয়ে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছে। তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ

error: Content is protected !!