• সোমবার, ১৭ মে ২০২১, ১২:১৬ পূর্বাহ্ন |

উপজেলা পরিষদে ঢুকলেই লাগবে চেয়ারম্যানের অনুমতি!

তারাগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি ।। রংপুরের তারাগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আনিছুর রহমান লিটন স্থানীয় সাংবাদিকদের ওপর চটে গিয়ে তার অনুমতি নিয়ে উপজেলা পরিষদে ঢুকতে বললেন। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে খবর প্রকাশ করায়, তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে উপজেলা পরিষদে প্রবেশ করতে হলে এখন থেকে তার লিখিত অনুমতিপত্র নিতে হবে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সংবাদকর্মীদের। এ সময় তিনি স্থানীয় সাংবাদিকদের অশ্লীল ভাষায় প্রকাশ্যে গালিগালাজ (গালাগাল)করেন।
গত মঙ্গলবার (২০ এপ্রিল) বিকেলে তিনি স্থানীয় সাংবাদিকদের এ নির্দেশ দেন। আরও জানিয়ে দেন সাংবাদিকরা অনুমতি না নিয়ে তার উপজেলা পরিষদে প্রবেশ করলে প্রয়োজনে পুলিশে সোপর্দ করা হবে। এ ঘটনায় স্থানীয় সংবাদকর্মীদের মধ্যে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। সম্প্রতি উপজেলা চেয়ারম্যান আনিছুর রহমান লিটনের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স সৈকত এন্টারপ্রাইজের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে খবর প্রকাশ করেন সাংবাদিকরা। এতে তিনি স্থানীয় সংবাদকর্মীদের ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন। এ ঘটনার জেরে তিনি সাংবাদিকদের উপজেলা পরিষদে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করেন।
মঙ্গলবার বিকেলের দিকে উপজেলা পরিষদের হলরুমে ছিল তারাগঞ্জ হাট-বাজারের সাপ্তাহিক প্রকাশ্যে ডাক অনুষ্ঠান। সেখানে উপজেলা নির্বাহী অফিসার, সরকারি কর্মকর্তা, ইউপি চেয়ারম্যান, বিভিন্ন গণমাধ্যমের কর্মী ও উপজেলা চেয়ারম্যান লিটন উপস্থিত ছিলেন। এক পর্যায়ে লিটন সাংবাদিকদের ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে উপজেলা পরিষদে প্রবেশ করতে হলে তার অনুমতি নিতে হবে বলে নির্দেশ দেন। এসময় সাংবাদিক ও উপস্থিত সাধারণ মানুষের মধ্যে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। এতে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি আলহাজ্ব আতিয়ার রহমান, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সাবিনা ইয়াছমিন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান গোলাম ছাইদেল কাওনাইন বায়জিদ, কুর্শা ইউপি চেয়ারম্যান আফজালুল হক সরকার, প্রেসক্লাবের সভাপতি খবির উদ্দিন প্রামাণিক, সাংবাদিক প্রবীর কুমার কাঞ্চন, খায়রুল আলম বিপ্লব, আশরাফুল ইসলাম,আব্দুর রাজ্জাক, আব্দুল মালেক, দিপক রায় সহ হাট ডাক দিতে আসা ইজারাদার ও তাদের প্রতিনিধি ও কুর্শা ইউপি কয়েকজন ইউপি সদস্য।
সাংবাদিক আলমগীর হোসেন লেবু, দীপক রায় দিপু বলেন, উপস্থিত সবার সামনে সাংবাদিকদের অশ্লীল ভাষায় গালাগাল করেন চেয়ারম্যান আনিছুর রহমান লিটন। এক পর্যায়ে সকল সাংবাদিকদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, এখন থেকে উপজেলা পরিষদ চত্ত্বরে প্রবেশ করতে হলে তার অনুমতি নিতে হবে। তার ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান সৈকত এন্টারপ্রাইজের বিভিন্ন উন্নয়ন কাজের অনিয়ম ও দুর্নীতির সচিত্র সংবাদ প্রকাশ করলে তিনি তারাগঞ্জ প্রেস ক্লাবে কর্মরত সাংবাদিকদের ওপর চরম ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন। উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হয়েও তার নামে অটো রাইস মিল,ইটভাটা,ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান,রাসায়নিক সার ডিলার সহ বিভিন্ন সরকারী সুযোগ সুবিধা নামে বেনামে থাকায়,বরাবরই সংবাদ মাধ্যমে তার ওই সব প্রতিষ্ঠানের অনিয়ম ও দুর্নীতির খবর প্রকাশ হয়ে থাকে। ফলে সে স্থানীয় প্রেস ক্লাব সহ সাংবাদিকদের ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন। গত মঙ্গলবার প্রকাশ্যে তারই বহিঃপ্রকাশ ঘটিয়ে তিনি উপরোক্ত ঘোষনা দিয়েছেন বলে স্থানীয়রা মন্তব্য করেছেন।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আনিছুর রহমান লিটন মুঠোফোনে বলেন, ‘বিভিন্ন সময়ে স্থানীয় কিছু সাংবাদিকদের আমি সাহায্য সহযোগিতা করি। আমি দীর্ঘদিন ধরে ঠিকাদারী করি। তারা আমার বিজনেসের ওপর হাত দিয়েছে। একারণে আমি কিছু সাংবাদিককে উপজেলা পরিষদে ঢুকতে হলে অনুমতি নেওয়ার কথা বলেছি। কোন সাংবাদিককে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ (গালাগাল) দেই নাই।

এ ঘটনায় তারাগঞ্জ প্রেস ক্লাব সভাপতি মোঃ খবির উদ্দিন প্রামাণিক তীব্র নিন্দা জানিয়ে বলেন একজন জনপ্রতিনিধির এ ধরনের আচরণ কল্পনাও করা যায় না। এ ঘটনায় তারাগঞ্জ প্রেসক্লাবে উপজেলায় কর্মরত সকল সাংবাদিকদের নিয়ে আলোচনা করে কঠোর কর্মসূচীরঘোষণা করা হবে বলে জানান।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ

error: Content is protected !!