• সোমবার, ১৭ মে ২০২১, ১২:২৫ পূর্বাহ্ন |

নওগাঁয় থানায় অভিযোগের পরদিন গৃহবধুর গায়ে আগুন দিয়ে হত্যা

নওগাঁ প্রতিনিধি ।। নওগাঁয় জমিজমা নিয়ে বিরোধের জেরে এক গৃহবধুর গায়ে আগুন দিয়ে হত্যা করার অভিযোগ উঠেছে। নিহত ওই গৃহবধু নওগাঁ সদর উপজেলার শৈলগাছী ইউনিয়ন এর চক-চাপাই গ্রামের মোসলেম উদ্দিন এর স্ত্রী রিতা বেগম ( ৩৫)।

নিহতের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, নিহত রিতা বেগম স্বামী মোসলেম উদ্দিন এর ভাই ও ভাতিজাদের সাথে দীর্ঘ দিন জমি-জমা নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। এরই জেরে গত মাসের ২৪এপ্রিল ( শনিবার ) রাত ১০দিকে রিতা বেগমকে হুমকি দেয় অভিযুক্তরা। এসময় রিতা বেগমের স্বামী নসিমুল চালক মোসলেন উদ্দিন প্রামানিক ক্লান্ত শরীর হওয়ায় ঘরে ঘুমিয়ে ছিল। এর পর ঘুম ভাঙ্গলে রিতা বেগম স্বামীকে বিষয়টি জানালে এরই প্রেক্ষিতে গত ২৯এপ্রিল ( বৃহস্পতিবার ) সকালে থানায় ৪জনের নাম উল্লেখ করে লিখিত অভিযোগ করেন। অভিযুক্তরা হলেন মোসলেম উদ্দিনের ভাতিজা আলামিন প্রামানিক (২৩), আলামিনের মা সাগিদা বেগম ( ৪৫), সোসলেম উদ্দিন এর চাচাতো ভাই সানোয়ার প্রামানিক (৩২) ও জলিল প্রামানিক (৩৫ )

এর পর ৩০এপ্রিল ( শুক্রবার ) রাত ১টার বাড়ির বাহিরে উঠানে থাকা বাথরুমে যাওয়ার পর বাথরুম ছেড়ে ঘরে ফেরার পথে ৪-৫জন গায়ে কেরোসিন ঢেলে দিয়ে আগুন লাগিয়ে দেয়। এসময় রিতা বেগম চিৎকার করতে লাগলে মেয়ে আরিফা ইয়াসমিন, রিতা খাতুনের স্বামী মোসলেম উদ্দিনসহ স্থানীয় প্রতিবেশী এগিয়ে আসলে অভিযুক্তরা পালিয়ে যায়। এসময় গায়ের আগুন নেভানোর জন্য রিতা বেগম পুকুর গিয়ে ঝাপ দেয়। পুকুর থেকে রিতাকে উদ্ধার করে নওগাঁ সদর হাসপাতালে নেয়া হলে প্রাথমিক চিৎকিসা দেয়ার পর উন্নত চিৎকিৎসার জন্য বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল নেয়া হলে শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে মারা যায়। হাসপাতালের আনুষ্ঠানিকতা শেষে শনিবার বিকেলে দিকে এ্যাম্বুলেন্সে করে মরদেহ নওগাঁ সদর মডেল থানায় নেয়া হলে থানা পুলিশ মরদেহটি দাফন করার জন্য বাড়িতে নিয়ে যেতে বলে। নিহত রিতা বেগমের বাবার বাড়ি সদর উপজেলা গাংজোয়ারে রাখা হয়েছে মরহেটি। এরপর রাত সাড়ে ৯টার দিকে থানা পুলিশ মামলা নিলে রাত ১১টার দিকে মরদেহটি দাফন করা হয়।
অভিযুক্তুক্তদের আটক করে কঠিন শাস্তির দাবি জানিয়েছেন নিহতের পরিবারের সদস্যরা।

নিহত রিতা খাতুনের স্বামী মোসলেম উদ্দিন জানান, বাড়ির দেড়কাঁঠা (২শতক ) জায়গা নিয়ে বিরোধ চলছিল ভাই-ভাতিজাদের সাথে। এর প্রেক্ষিতে গত মাসের ২৪এপ্রিল রাতে আমি লসিমন চালিয়ে বাসায় ফিরে ঘুমিয়ে গেলে অভিযুক্ত ৪জন হুমকি দিয়ে যায় আমার স্ত্রী রিতাকে। এসময় প্রধান অভিযুক্ত আলামিন আমার স্ত্রীকে ৫দিনের মধ্যে বিবাদকৃত ছেড়ে দিলে আমাকে ও আমার স্ত্রীকে মেরে ফেলবে বলে হুমকি দেয়।
পরে থানায় অভিযোগ করা হলেও তাৎক্ষনিক কোন ব্যবস্থা নেয়নি পুলিশ। শুক্রবার রাতে আমার স্ত্রী প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিয়ে বাহিরে গেলে অভিযুক্তরা গায়ে আগুন দিয়ে পালিয়ে যায়। আমার স্ত্রীকে উদ্ধার করে প্রথমে নওগাঁ সদর হাসপাতাল ও পরে বগুড়া জিয়াউর রতমান হাসপাতালে নিয়ে শুক্রবার সন্ধ্যায় মারা যায়। মারা যাবার আগে আমার স্ত্রী অভিযুক্ত আলামিন,সাহিদা,সানোয়ান ও জলিল এর নাম বলে গেছে। শনিবার বিকেলে থানায় লাশ নিয়ে গেলে প্রথমে মামলা নেয়া হয়নি। রাত ৮দিকে আবার থানায় গেলে পুলিশ রাত সাড়ে ৯টার দিকে মামলা নেয়। তারপর রাত ১১টার দিকে লাশ দাফন করা হয়। এখন আমার ১৬ বছরের এক মেয়ে ও ৮বছরের ছেলেকে নিয়ে কিভাবে চলবো। কি শান্তনা দিবো তাদের। অভিযুক্তদের আটক করে তাদের কঠিন শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।

নিহত রিতা খাতুনের মেয়ে আরিফা ইয়াসমিন, বলেন মাকে হাসপাতালে ভার্তি করা হলে মা একটু একটু কথা বলতে পারতো। মা মারা যাবার আগে ৪জনের নাম বলে গেছে যে তরাই গায়ে আগুন দিয়েছে। আমার মাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। আমার মায়ের হত্যাকারিদের কঠিন বিচার চাই।

নিহত রিতা খাতুনের মা রেকেয়া বেগম বলেন, আমার মেয়েটাকে হত্যা করা হয়েছে আগুন দিয়ে। এর আগেও তিন বছর আগে সানোয়ার ও জলিল নামে দুই জন আমার মেয়েকে মেরে জখম করেছিল। আমার কলিজার টুকরো মেয়েকে যারা এত নির্মমভাবে হত্যা করেছে তাদের দ্রুত আটক করে কঠিন শাস্তি দেয়া হোক।

মামলায় উল্লেখিত ৪ জন আসামীর বাড়িতে বাড়িতে গেলে তাদের কাউকে পাওয়া যায়নি। বাড়িতে তালা ঝুলানো রয়েছে। এমনকি তাদের পরিবারের কোন সদস্যরাও বাড়িতে ছিলনা।

নওগাঁর সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ ( ওসি ) নজরুল ইসলাম জুয়েল বলেন, প্রথমে নিহত রিতা বেগম থানায় অভিযোগ করেছিলেন। তার পরদিন রাতেই গৃহবধুর গায়ে আগুন লাগার ঘটনা ঘটে। বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেলে শুক্রবার সন্ধ্যার দিকে মারা যায়। এর পর শনিবার বিকেলে নিহতের পরিবার থানায় মরদেহ নিয়ে মামলা করতে আসলে আমরা পরিবারের সদস্যদের বলি, যেহেতেু মরদেহটির সুরতাল প্রতিবেদন বগুড়া জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজে করা হয়েছে তাই মরদেহ দাফন করা হোক। কোন সমস্যা নেই। অন্যদিকে আমরা বিষয়টি জানার পর সাথে সাথে শনিবার বিকেলে পুলিশ পাঠিয়েছিলাম কিন্তু অভিযুক্তদের কাউকেই বাড়িতে পাওয়া যায়নি। পরিবারে পক্ষ নিহতের মা রেকেয়া বেগম শনিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে করা জামাই মোসলেম উদ্দিনের ভাতিজা আলামিন প্রামাণিক, তার মা সাগিদা বেগম, মোসলেমের চাচাত ভাই সানোয়ার প্রামাণিক ও জলিল প্রামাণিক
নামে ৪জনকে আসামী করে অজ্ঞাত আরো ৫জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ

error: Content is protected !!