• সোমবার, ১৭ মে ২০২১, ০১:১২ পূর্বাহ্ন |

নীলফামারীতে ২৫ হাজার কুকুরের দেহে প্রয়োগ করা হবে জলাতঙ্ক টিকা

নীলফামারী প্রতিনিধি ।। জলাতঙ্ক নির্মূলে নীলফামারী জেলায় শুরু হচ্ছে চতুর্থ রাউন্ডে কুকুরের দেহে জলাতঙ্ক প্রতিষেধক টিকা প্রয়োগ কর্মসূচি।
আগামী ৬ মে এক যোগে জেলার ছয় উপজেলায় এই কর্মসূচি শুরু হবে। পাঁচ দিনের এই কর্মসূচি চলবে ১০ মে পর্যন্ত।
চতুর্থ রাউন্ডে সদর উপজেলায় পাঁচ হাজারসহ জেলার ছয় উপজেলায় মোট ২৫ হাজার কুকুরের দেহে টিকা প্রয়োগ করা হবে।
সোমবার দুপুরে সদর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সভা কক্ষে সদর উপজেলা স্বাস্থ্য দপ্তর আয়োজিত জলাতঙ্ক নির্মূলের লক্ষ্যে ‘নীলফামারী জেলায় ব্যাপক হারে কুকুরের টিকাদান (এমডিভি) কার্যক্রম-২০২১ অবহিত করণ’ সভায় একথা জানান সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. রাশেবুল হোসেন।
সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহিদ মাহমুদ। সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. রাশেবুল হোসেনের সভাপতিত্বে অন্যান্যদের মধ্যে জেলা প্রাণী সম্পাদক কর্মকর্তা ডা. মো. মোনাক্কা আলী, নীলফামারী পৌরসভার প্যানেল মেয়র ঈসা আলী, সদর উপজেলার নারী ভাইস চেয়ারম্যান সান্তনা চক্রবর্তী,এমডিভি সুপারভাইজার আসাদুজ্জামান, তাহমিদ রাজু, সেলিম মাহমুদ, তারেক উজ জামান ও সায়েম আলী শাহ্ বক্তব্য রাখেন।
নীলফামারী সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. রাশেবুল হোসেন জানান, জলাতঙ্ক একটি ভয়ংকর মরণব্যাধি, এ রোগে মৃত্যুর হার শতভাগ।
জলাতঙ্ক রোগটি মূলত কুকুরের কামড়ে বা আচঁড়ের মাধ্যমে ছড়ায়। এছাড়াও বিড়াল, শিয়াল, বেজী, বানরের কামড় বা আচঁড়ের মাধ্যমে এ রোগ হতে পারে।
পৃথিবীতে প্রতি ১০ মিনিটে কোথাও না কোথও একজন এবং প্রতিবছরে ৫৯ হাজার মানুষের মৃত্যু হয় এই জলাতঙ্ক রোগে।
বাংলাদেশে প্রতিবছর ৫ থেকে ৬ লক্ষ মানুষ কুকুর, বিড়াল, শিয়াল, বেজী, বানরের কামড় বা আচঁড়ের শিকার হয়ে থাকে যাদের মধ্যে অধিকাংশই শিশু। এছাড়াও প্রায় ২৫ হাজার গবাদি প্রাণী এই রোগের শিকার হয়ে থাকে।
দেশে ২০১০ সালের আগে প্রতি বছর প্রায় দুই হাজার মানুষ এবং উল্লেখ্যযোগ্য সংখ্যক গবাদি প্রাণী মৃত্যু হতো এই জলাতঙ্ক রোগে। ২০১৬ সালের মধ্যে বাংলাদেশে জলাতঙ্ক রোগীর সংখ্যা ৯০ ভাগ কমিয়ে আনা ও ২০২২ সালের মধ্যে দেশকে জলাতঙ্ক মুক্ত করার লক্ষ্যে ২০১০ সালে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় এবং প্রাণী সম্পাদ মন্ত্রণালয়ের যৌথ উদ্যোগে জলাতঙ্ক নিয়ন্ত্রণ এবং নির্মূল কর্মসূচি বাস্তবায় চলছে। এরই অংশ হিসেবে দেলে সকল জেলায় মোট ৬৭টি জলাতঙ্ক নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূল কেন্দ্র চালু করা হয়েছে। এসব কেন্দ্রে কুকুড়ের কামড়ে আক্রান্ত রোগিদের বিনামূল্যে জলাতঙ্ক প্রতিরোধী টিকা সরবরাহ করা হচ্ছে।
এছাড়ও ২০১১ সালে প্রাইলোট প্রকল্পের মাধ্যমে কুকুরের দেহে জলাতঙ্ক টিকা প্রয়োগ কর্মসূচি চালু হয়। ওই প্রকল্পটি স্থায়ী করণ করে ২০১৫ সাল থেকে সারাদেশে প্রত্যেক জেলায় ব্যাপক হারে কুকুরের দেহে জলাতঙ্ক টিকা প্রয়োগ কর্মসূচি চালু করা হয়। এযাবৎ সারাদেশে সকল জেলার প্রত্যেক উপজেলায় ১ম রাউ- ও ১০টি জেলায়র প্রতিটি উপজেলায় ২য় রাউন্ড এবং সিরাজগঞ্জ, গাইবান্ধা ও নীলফামারী প্রতিটি উপজেলায় ৩য় রাউ- টিকাদান কার্যক্রমের আওতায় ১৯ লক্ষ ২১ হাজার কুকুরকে জলাতঙ্ক প্রতিষেধক টিকা প্রদান করা হয়েছে।
তিনি আরো জানান, আগামী ৬ মে থেকে ১০ মে পর্যন্ত পাঁচ দিন ব্যাপী নীলফামারী জেলায় ছয় উপজেলায় চতুর্থ রাউ- টিকাদান কার্যক্রম শুরু হবে। এই রাউন্ডে জেলায় মোট ২৫ হাজার কুকুরকে টিকা প্রয়োগ করা হবে। এরমধ্যে নীলফামারী সদর উপজেলায় ৫ হাজার এবং বাকী পাঁচ উপজেলার প্রত্যেক উপজেলায় ৪ হাজার করে কুকুরের দেহে জলাতঙ্ক প্রতিষেধক টিকা প্রয়োগ করা হবে।
পাঁচ দিনের এই কর্মসূচি বাস্তবায়নে ১৭৩টি টীম জেলার ছয় উপজেলায় কাজ করবে। প্রতিটি টিমে মোট ছয় জন সদস্য থাকবেন। কুকুর ধারর জন্য দুই জন করে দক্ষ ক্যাচার, একজন স্থানীয় ক্যাচার একজন টিকাদানকারী, একজন তথ্য সংগ্রহকারী এবং একজন চালকসহ ভ্যান গাড়ী। নীলফামারী সদরে ৪১টি, সৈয়দপুরে ৩০টি, ডোমারে ২২টি, ডিমলায় ২৭টি, জলঢাকায় ২৭টি এবং কিশোরগঞ্জে ২৬টি টিম কাজ করবে।


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ

error: Content is protected !!