• শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১, ০৮:৩২ অপরাহ্ন |

স্থানীয় জাপায় শুদ্ধিকরণ: অসমাপ্ত রেখে চলে গেলেন বাবুভাই

।। মো. নজরুল ইসলাম ।। বাবুভাই আর নেই- ঈদের সকালে এমন দুঃসংবাদে মন ভারাক্রান্ত হয়ে যায়। পবিত্র ওই দিনে সবাইকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে চলে যান স্থানীয় জাতীয় পার্টির নেতা ডা. সুরত আলী বাবু।

আলহাজ্ব শওকত চৌধুরী তখন জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা ও নীলফামারী জেলা আহবায়ক। আর ডা. সুরত আলী একই পার্টির সৈয়দপুর শাখায় প্রচন্ড সক্রিয়। সেই সুবাদে তার সাথে আমার পরিচয়। পার্টির প্রেস রিলিজ সরবরাহের মধ্যমে ধীরে-ধীরে তার সাথে ঘনিষ্ঠতা তৈরী হয়। পার্টিতে শওকত চৌধুরীর অত্যন্ত বিশ্বস্থ লোক ছিলেন সুরত আলী বাবু।

২০১০ সালের গোড়ার দিকে শওকত চৌধুরীর সম্পাদনায় সাপ্তাহিক সাফজবাব আত্মপ্রকাশ করে। শুরুতে পত্রিকাটির অফিস ছিল অধুনালুপ্ত বিজলী সিনেমা হলের দ্বিতীয় তলায়। সেখানকার ম্যানেজারের কক্ষটি ব্যবহার হতো পত্রিকার অফিস হিসাবে। সাফজবাবের নির্বাহী সম্পাদকের দায়িত্ব নিয়ে পত্রিকাটির প্রাথমিক পর্যায়ের যাবতীয় প্রস্তুতি আমাকেই করতে হয়েছে। প্রস্তুতি পর্বে সেসময় সার্বিক সহযোগিতা করেছিলেন স্হানীয় জাপার আরেক নেতা ফেরাজউদ্দিন ফেরাজ। এসময় নিয়মিত আমাদের অফিসে আসতেন বাবুভাই। বয়সে আমার চেয়ে ছোট হলেও আমি তাকে বাবুভাই বলে সম্মোধন করতাম। একই অফিসে বসতো সাংবাদিক এম আর আলম ঝন্টু। সেও সাফজবাবে কাজ করতো। বাবুভাই সাফজবাবে এলে আমাদের মধ্যে আড্ডা জমতো। বিভিন্ন হাস্যরস ও কৌতুকের মাধ্যমে আসর জমিয়ে রাখার অসাধারণ দক্ষতা রয়েছে ঝন্টুর মধ্যে।

কিন্তু আমাদের সে অফিস দীর্ঘস্থায়ী হয়নি। মালিকপক্ষের সিদ্ধান্তে ২০১৪ সালে ভেঙ্গে ফেলা হয় বিজলী সিনেমা হল। সাফজবাবের অফিসও স্থানান্তরিত হয় সৈয়দপুর প্লাজার এস আর প্লাজায়। দৈনিক প্রথম আলোর সৈয়দপুর প্রতিনিধি হিসাবে কাজের চাপ বেড়ে যাওয়ায় কিছু দিনের মধ্যে ঝন্টুও সাফজবাব ছেড়ে যায়। সাফজবাব কেন্দ্রীক আমাদের আড্ডাও যায় ভেঙ্গে। বাবুভাই সাফজবাবে আসা কমিয়ে দেন। কালে-ভদ্রে তার সাথে দেখা-সাক্ষাৎ হতো। স্থানীয় সংবাদপত্র ও সাংবাদিকদের প্রায় সবার সাথেই ভালো সম্পর্ক ছিল সুরত আলী বাবুর। তিনি ছিলেন সাফজবাব পত্রিকার ঘনিষ্ট সহযোগী ও একজন মিডিয়াবান্ধব ব্যক্তি।

তবে সম্প্রতি নামধারী-ধান্ধাবাজ কিছু সাংবাদিকের অনৈতিকতার চর্চায় অত্যন্ত ক্ষুব্ধ ও ব্যথিত ছিলেন এই মানুষটি। সঠিক দিনক্ষণ মনে নেই, সম্ভবত সপ্তাহখানেক আগে তার সে ক্ষুব্ধতার বহিঃপ্রকাশ ঘটালেন আমাকে পেয়ে। স্মৃতি অম্লান চত্বরে দেখা। চা খওয়াতে নিয়ে গেলেন জিআরপি কেন্টিনে। সেখানে চায়ের আড্ডায় আনেকটা ক্ষোভ ঝেড়েই বললেন, ভাই সাংবাদিকতার নামে সৈয়দপুরে হচ্ছেটা কী? অখ্যাত-অপরিচিত পত্রিকা ও নিউজ পোর্টালের নাম ভাঙ্গিয়ে গণহারে চলছে চাঁদাবাজি। প্রতারণার মাধ্যমে ও হুমকি-ধমকি দিয়ে সাধারণ মানুষকে করা হচ্ছে নিঃস্ব। একেই কী সাংবাদিকতা বলে ? – যাদের নুন্যতম শিক্ষাগত যোগ্যতা নেই, পারেনা দু’কলম লিখতে -সৈয়দপুরে তারাও এখন দাপুটে সাংবাদিক। আচ্ছা ভাই সাংবাদিকতা করতে কী লেখা-পড়া লাগে না ?

তিনি আরও যোগ করলেন, সৈয়দপুর ছোট্ট শহর। সবাই একে অপরকে চেনে। কে কী করেন সেটাও সবাই জানে। -বিভিন্ন অপকর্ম করে যারা ইতোমধ্যে জেল-হাজত খেটেছে। যৌতুক-ধর্ষণ মামলায় জড়িয়ে পালিয়ে বেড়িয়েছে-তারা যখন সাংবাদিক পরিচয় দেয়, তখন সাংবাদিকতার মত মহৎ পেশা কী বিতর্কিত হয়ে পড়ে না? শুনেছি তারা কেউ স্থানীয় প্রেসক্লাবের সদস্যও নয়। তাহলে কিভাবে তাদের এত বাড়-বাড়ান্ত ? –ভাই আপনারা এই পেশায় সিনিয়র, দোহাই লাগে এদের অপতৎপরতা ঠেকান কিছু একটা করুন।

বাবুভাই, হটাৎ করেই আপনি আমাদের ছেড়ে চলে গেলেন। আর কোনদিন আপনি ফিরবেননা, আপনার এই যাওয়া কারও কাছে প্রত্যাশিত ছিলনা। অপসাংবাদিকতা ঠেকাতে আপনি আর্তি জানিয়েছেন। বিবেকের তাড়নায় সৈয়দপুরের সিনিয়র সাংবাদিকরাও একই কারণে ক্ষুব্ধ। প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের কাছেও এ সংক্রান্ত বহু অভিযোগ আছে। ক’দিন আগে এক অপ সাংবাদিককে উপজেলার একটি দপ্তর থেকে বের করে দিয়েছেন এক কর্মকর্তা। অপসাংবাদিকদের বিরুদ্ধে শুরু হয়েছে প্রতিরোধ। কিন্তু পরিতাপের বিষয় আপনি তা দেখে যেতে পারলেন না। এছাড়াও আপনাদের প্রাণপ্রিয় রাজনৈতিক সংগঠন স্থানীয় জাতীয় পার্টিতে যে শুদ্ধি অভিযান শুরু হয়েছে। আপনি ছিলেন তার অগ্রসৈনিক। কিন্তু দুঃখের বিষয় সে অভিযান মাঝপথে রেখে আপনাকে চলে যেতে হয়েছে। তবে আশ্বস্থ করতে পারি- আপনার সহযোদ্ধারা পার্টি অভ্যন্তরে শুরু হওয়া ন্যায্যতার লড়াই নিশ্চয়ই এগিয়ে নেবে। সফলতা আপনাদের আসবেই। দুঃখ শুধু যে, আপনি সে সাফল্য দেখে যেতে পারলেননা। সৈয়দপুরবাসীও অযোগ্য নাবালক সাংসদের (আপনাদের ভাষায়) পরিণতি দেখার অপেক্ষায়। আজ আপনি নাই তবে পার্টিতে রয়েছে আপনার অসংখ্য ভক্ত-অনুসারি। আপনি ওপারেও ভাল থাকবেন। মহান সৃষ্টিকর্তার কাছে এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

লেখক: নির্বাহী সম্পাদক, সাপ্তাহিক সাফজবাব


আপনার মতামত লিখুন :

“স্থানীয় জাপায় শুদ্ধিকরণ: অসমাপ্ত রেখে চলে গেলেন বাবুভাই” এ একটি মন্তব্য

  1. সাব্বির আহমেদ সাবের বলেছেন:

    ঈদের দিন বিকেলে বাবু ভাইয়ের মৃত্যুর খবর পেয়েছি। মনটা খারাপ হয়েছিল, কারণ আগেরদিন রাতে ইকু হেরিটেজে বাবু ভাইয়ের সাথে আমার দেখা হয়েছিল কথাও হয়েছিল। একদিনের ব্যবধানে লোকটি দুনিয়া ছেড়ে চলে গেলেন! আল্লাহ তাকে জান্নাত নসীব করুন, আমিন।
    নজরুল ভাইকে ধন্যবাদ বাবু ভাইকে নিয়ে দু’চারটি কথা লিখেছেন। লেখাটি সুন্দর হয়েছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ

error: Content is protected !!