• বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১, ০৬:০৭ পূর্বাহ্ন |

বিশেষ প্রতিবেদন: সৈয়দপুরে জাতীয় পার্টিতে গৃহদাহ!

।। মো. নজরুল ইসলাম ।। সৈয়দপুর জাতীয় পার্টিতে গৃহদাহ শুরু হয়েছে । দলটির ২১ নেতা-কর্মী পত্রিকায় বিবৃতি দিয়ে পদত্যাগের ঘোষণা দেওয়ায় এ গৃহদাহের সূত্রপাত। এতে কার্যতঃ দুই ভগে বিভক্ত হয়ে পড়েছে স্থানীয় জাতীয় পাটি।

পদত্যাগী নেতাদের অভিযোগ, দলীয় সাংসদ আহসান আদেলুর রহমান আদেল অর্থলোভী, দুর্নীতির বরপুত্র। কাজের বিনিময়ে খাদ্য (কাবিখা), কাজের বিনিময়ে টাকা (কাবিটা), ইচ্ছাধীন তহবিল সব নিজেই পকেটস্থ করেছেন। নাবালক এই সাংসদ সৈয়দপুর-কিশোরগঞ্জে লুটপাটের রাজত্ব কায়েম করেছেন। তার একপেশে নীতি ও অসাংগঠনিক কর্মকান্ডের কারণে স্থানীয়ভাবে পিছিয়ে পরছে জাতীয় পার্টি। তার সাথে থেকে রাজনীতি করা আহাম্মকি ছাড়া আর কিছুই না।

অপরদিকে সাংসদ আদেল বলছেন, দলের একটি ক্ষুদ্র অংশ অনৈতিক সুবিধা না পেয়ে আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে। ওই ক’জন নেতা পদত্যাগ করলেও দলের কিছু যায়-আসেনা। কারণ জাতীয় পার্টি একটি বৃহৎ রাজনৈতিক দল। বড় দলে এ ধরণের সমস্যা থাকা স্বাভাবিক ।

সৈয়দপুর জাতীয় পার্টির এই গৃহদাহ বর্তমানে “টক অব দ্যা টাউন” এ পরিণত হয়েছে। নির্বাচনী এলাকার সবখানে আলোচনার বিষয় জাপার গৃহদাহ। সাধারণ মানুষসহ প্রতিপক্ষ দলের নেতা-কর্মী অনেকের দৃষ্টি এখন জাপার এই অভ্যন্তরিণ দ্বন্দ্বের দিকে। । তাদের প্রশ্ন স্থানীয় জাতীয় পার্টির এ বিরোধ কী সামাল দিতে পারবেন সাংসদ আদেল- নাকি সামনে আরও বাড়বে?

রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, এমনিতেই পার্টির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদের মৃত্যুর পর অস্তিত্ব সংকটে রয়েছে জাতীয়পার্টি। একসময় উত্তরাঞ্চলের রাজনীতিতে যে জাপা ক্রেজ ছিল এরশাদ বেঁচে থাকতেই তাতে ভাটা পড়েছে। এরশাদের ছোটভাই জি এম কাদের পার্টির দায়িত্ব নেয়ার পরও অবস্থার কোন রকমফের হয়নি। বরং জাপায় যে পারিবারতন্ত্রের ধারা চলে আসছিল তা আরও প্রবল হয়েছে। যার ধারাবাহিকতায় দলের প্রতি নিবেদিতপ্রাণ নেতাদের বাদ দিয়ে মহাসচিব করা হয়েছে এরশাদের বোন মেরিনা রহমানের মেয়ে জামাই জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলুকে (এমপি আদেলের ভগ্নিপতি)। ফলে দলটি শুধু নামসর্বস্ব প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে।

জাতীয় রাজনীতিতে জাপার কোন সাংগঠনিক কর্মসূচী নাই বললেই চলে। মাঝেমধ্যে টেলিভিশন টক শো’ এ অংশ নিয়ে কিছু নেতা চায়ের কাপে ঝড় তুলছেন। এর বাইরে বিভিন্ন জাতীয় ইস্যুতে গণমাধ্যমে বিবৃতি পাঠানোর মধ্যেই সীমাবদ্ধ রয়েছে দলটির সাংগঠনিক কার্যক্রম।

পদত্যাগী নেতাদের একটি সূত্র বলেন, পার্টি চেয়ারম্যান এরশাদের মৃত্যু দলের রাজনীতিতে পারিবারিক সদস্যদের অনাকাঙ্খিত হস্তক্ষেপ, বিভিন্ন ইস্যুতে কেন্দ্রীয় রাজনীতিতে উপদলীয় কোন্দল। যা বিভিন্ন সময় মিডিয়ায় খবর হচ্ছে। সব মিলিয়ে হ-য-ব-র-ল অবস্থার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে জাতীয় পার্টির রাজনীতি।

পদত্যাগী অপর একনেতা বলেন, বাংলায় একটা কথা আছে,”যায় দিন ভালো, আসে দিন খারাপ”। জাতীয়পার্টির স্থানীয় রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে এ কথাটি অত্যন্ত প্রাসঙ্গীক। তার মতে, বর্তমান সাংসদ আদেলের চেয়ে অনেক-অনেক গুন ভাল ছিলেন বিগত সংসদে জাতীয় পার্টির এমপি আলহাজ্ব শওকত চৌধুরী। তিনি স্থানীয়ভাবে দলকে সংগঠিত রাখার পাশাপাশি নেতা-কর্মীদের মূল্যায়ন করতেন। শওকত চৌধুরীর দল ছাড়ায় তার শুণ্যতা এখন আমরা মর্মে-মর্মে উপলব্ধি করছি। ওই নির্বাচনে পার্টি চেয়ারম্যান এরশাদ দলীয় টিকেট দিয়েছিলেন ভাইস চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শওকত চৌধুরী এমপিকে। কিন্তু পরিবারতন্ত্রের বলি হয়েছিলে শওকত চৌধুরী। তাই তাকে বাদ দিয়ে চূড়ান্ত মনোনয়ন দেওয়া হয় এরশাদের ভাগ্না আহসান আদেলুর রহমান আদেলকে। সংসদীয় রাজনীতির ইতিহাসে এ ঘটনা একটি কলঙ্কিত অধ্যায় হয়ে আছে। পরে ক্ষোভে -অপমানে জাতীয় পার্টি ত্যাগ করেন শওকত চৌধুরী। এই কিছুদিন আগে তিনি জাতীয়তাবাদী দলে(বিএনপিতে) যোগ দেন।

পদত্যাগী আর এক নেতা বলেন, গত জাতীয় নির্বাচনের আগে দলের একটি ক্ষুদ্র অংশ শওকত চৌধুরীর বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে বিভিন্ন অপপ্রচার চালিয়েছে। আবার ওই নির্বাচনে সমর্থন দিয়েছে (তাদের ভাষায়) নাবালক আদেলকে। ওই নেতা আরও বলেন, এখন আমরা আফসোস করছি। আমরা মানুষ চিনতে ভুল করেছিলাম। যার খেসারত আমাদের এখন দিতে হচ্ছে।

স্থানীয় জাপার অভ্যন্তরিণ বিরোধ সম্পর্কে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের এক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, মহাজোটের মনোনয়নে নীলফামারী-৪ আসনে সাংসদ নির্বাচিত হয়েছেন আদেল। কিন্তু নির্বাচিত হয়ে তিনি স্থানীয় আওয়ামী লীগের সাথে কোন সম্পর্ক রাখেননি। এছাড়াও সারা দেশে জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক কার্যক্রম যেভাবে ভেঙ্গে পড়েছে তাতে আগামীতে দলটির মহাজোটে ঠাই হবে কিনা তা নিয়ে যথেষ্ট সংশয় রয়েছে। তবে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নীলফামারী-৪ আসনে আমরা অন্য কোন দলকে ছাড় দিবনা।

লেখক: সিনিয়র সাংবাদিক, সৈয়দপুর


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ

error: Content is protected !!