• সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:৪৪ অপরাহ্ন |

সৈয়দপুরে পুলিশের বুদ্ধিমত্তায় রক্ষা পেল ট্রেন দূর্ঘটনা

সিসি নিউজ ।। তখন ঘড়ির কাঁটায় রাত ১টা। সৈয়দপুর রেলওয়ে স্টেশন থেকে চিলাহাটির উদ্দেশ্যে ছেড়ে গেছে ‘রকেট মেইল’ ট্রেনটি। শহরের বাইপাস সড়কের রেলগেইট (ই-১২৬-এ) তখনও খোলা। ওই সড়কে চলাচল করছে দূরপাল্লার বাস, ট্রাকসহ বিভিন্ন যানবাহন। ট্রেনের আলো দেখে বিষয়টি নজরে আসে সড়কে দায়িত্বরত গোলাহাট পুলিশ ফাঁড়ির পুলিশ সদস্য নূর আল আমিন, শাহজাহান আলী ও বিনয় ভূষণ বর্ম্মনের। তাঁরা কোন কিছু বুঝে ওঠার আগেই রেলক্রসিংয়ের দু’পাশে দাঁড়িয়ে টচ্ লাইটের আলো দিয়ে মহাসড়কে চলাচলকারী যানবাহন থামিয়ে দেয়। দ্রুতগতিতে পার হয়ে যায় ট্রেনটি।

এ ঘটনা ২৬ মে রাতের। পুলিশ সদস্যের এমন উপস্থিত বুদ্ধিতে বড় ধরনের একটি ট্রেন দূর্ঘটনা রক্ষা পায়। পরে পুলিশ সদস্যরা বিষয়টি ফাঁড়ি ইনচার্জ এস আই মো. নরুজ্জামান বেগকে জানানো হলে তিনিও ছুটে যান ঘটনাস্থলে। সিসি নিউজকে তিনি জানান, ওই সময় দায়িত্বরত রেলগেটের গেইটম্যান আনিছুর রহমান রুমের মধ্যে ছিলেন। তাকে পুলিশ সদস্যরা ডাকাডাকি করেও কোন জবাব না পেয়ে দ্রুত সড়কের যানবাহন আটকে দেয়। পরে ওই গেইটম্যান ব্যারিয়ারগুলো অকেজো রয়েছে বলে জানায়। তিনি এ ঘটনায় ২৭ মে নীলফামারী পুলিশ সুপার বরাবরে একটি প্রতিবেদন দাখিল করেছেন। (জিডি নং-২৯৯)

আনিছুর রহমান ২০০৭ সাল থেকে মাস্টার রোলে ওই রেলগেইটে দায়িত্বপালন করে আসছে। তিনি নীলফামারী ডোমার উপজেলার সোনারায় ইউনিয়নের চওড়া বড়গাছা এলাকার ডুগডুগির বাজারের মৃত তহির উদ্দিনের পুত্র। সিসি নিউজকে আনিছুর রহমান জানান, এ রেলগেইটে কোন টেলিফোনের ব্যবস্থা নেই। দিনে ট্রেন ও রাতে ট্রেনের আলো দেখে ব্যারিয়ার উঠানামা করতে হয়। ঘটনার রাতে আমি দায়িত্বে ছিলাম এবং ট্রেন আসার মুহুর্তে একপাশের ব্যারিয়ার ফেলতে গিয়ে বিড়ম্বনায় পড়ি। ওই অকেজো ব্যারিয়ার ফেলার পর একটি লাঠি বা রড দিয়ে আটকিয়ে অপর পাশে যেতে হয় কিন্তু সেসময় তাড়াহুড়ো করতে গিয়ে আমি ওই লাঠি বা রড সাথে নিতে ভূলে গিয়েছিলাম। এ সময় ট্রেনটি রেলগেইট ক্রসিং করে চলে যায়।

এ বিষয়ে কথা হয় বাংলাদেশ রেলওয়ের সৈয়দপুর শাখার উর্ধতন উপ-সহকারী প্রকৌশলী (পিডাব্লিউআই) সুলতান মৃধার সাথে। তিনি জানান, শহরের বাইপাস মহাসড়কের রেলগেইটের ব্যারিয়ারগুলো অকেজো বটে। এই রেলপথে যেসব ব্যারিয়ার এমন অবস্থায় রয়েছে তা মেরামতের জন্য কার্যক্রম হাতে নেয়া হয়েছে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি সিসি নিউজকে জানান, বিষয়টি আমি আজ শুক্রবার ওই গেইটম্যানের কাছ থেকে শুনেছি এবং বিকেলে রেলগেইট পরিদর্শনে করেছি। তিনি জানান, দায়িত্বে অবহেলা থাকলে অবশ্যই গেইটম্যানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সৈয়দপুর সার্কেল) মো. সারোয়ার আলম জানান, পুলিশ সদস্যরা তাৎক্ষনিক যে বুদ্ধিমত্তার পরিচয় দিয়েছে তা অবশ্যই প্রশংসার দাবিদার। এরফলে অনেক বড় দূর্ঘটনার হাত রক্ষা পেয়েছে ওই সড়কে চলাচলকারী যানবাহন এবং ট্রেনটি ও ট্রেনের শতশত যাত্রী। তাদের এমন দায়িত্ববোধের কারনে শুধু পুলিশ সদস্যরাই নয়, অন্যান্য পেশাজীবি ও সাধারণ মানুষ এমন মানবিক কাজে উৎসাহিত হবে।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ