• বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১, ০৫:০৪ পূর্বাহ্ন |

মহামারি বাস্তবতায় বাজেট সমর্থনযোগ্য: মির্জ্জা আজিজ

সিসি নিউজ ডেস্ক ।। বড় অংকের ঘাটতি রেখে মহামারিকালে সরকারের দেয়া প্রস্তাবিত বাজেটকে সমর্থনযোগ্য বলে মনে করেন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক অর্থ উপদেষ্টা এ বি মির্জ্জা মো. আজিজুল ইসলাম। তার মতে, এ বাজেট অনাকাঙ্ক্ষিত নয়। এজন্য আগামী ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটকে তিনি সমর্থন করেন।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বাজেট সম্পর্কে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

এর আগে বিকালে জাতীয় সংসদে ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট উপস্থাপন করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। মহামারিকালে প্রস্তাবিত এই বাজেটের আকার ছয় লাখ তিন হাজার ৬৮১ কোটি টাকা। এটি দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় বাজেট। এই বাজেটের এক তৃতীয়াংশ যোগাড় করতে হবে ঋণ থেকে।

বাজেট সম্পর্কে মির্জ্জা আজিজ বলেন, ‘করোনাকালে বিশ্বের উন্নত দেশগুলোতেও অর্থনীতি থমকে গেছে। কর্মসংস্থান কমে গেছে, বেকারের সংখ্যা বেড়েছে, ব্যবসায়ীদের ব্যবসা বাধাগ্রস্ত হয়েছে। ফলে সার্বিক অর্থনীতিতে নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে। এ অবস্থায় বিশ্বের উন্নত দেশগুলোতেও বাজেটে বড় ঘাটতি ধরা হয়েছে।’

এই অর্থনীতিবিদ বলেন, ‘আমাদের দেশে মাত্র ৬ দশমিক ২ শতাংশ বাজেট ঘাটতি ধরা হয়েছে। এটি বড় কিছু নয়। করোনাকালে বাজেট ঘাটতি হবে এটাই স্বাভাবিক। কারণ ব্যবসায়ীদের আয় কমে যাওয়ায় সরকারের রাজস্ব আদায় কমছে। ব্যবসায়ীদের প্রণোদনা দিতে হতে হচ্ছে। বেকারের সংখ্যা বেড়েছে, কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে হবে। ফলে বাজেট ঘাটতি বেড়েছে।’

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক এই অর্থ উপদেষ্টা বলেন, ‘একদিকে যেমন প্রণোদনা প্যাকেজ বাড়ানোর প্রয়োজনীয়তা আছে, অন্যদিকে তেমন ব্যবসায়িক উন্নয়ন বাড়ানোর প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। এখানে বিভিন্ন রকমের চেষ্টা হচ্ছে। কিন্তু এখনো বাংলাদেশের খুব একটা উন্নতি হয়নি। আমার যতটুকু মনে পড়ে এখন বিশ্বব্যাংকের সহজে ব্যবসা সূচকে বাংলাদেশের বর্তমান র‌্যাঙ্কিং হলো ১৬৮। তার মানে পৃথিবীতে ১৬৭টি দেশ আমাদের থেকে ভালো করছে বিশ্বব্যাংকের সহজে ব্যবসা সূচক ক্ষেত্রে। তেমনিভাবে বিশ্বব্যংকের সরকারি সিন্ডিকেট যেগুলো আছে সেখানেও আমাদের অবস্থান খুব একটা সন্তোষজনক না।’

‘ওয়ার্ড ইকনোমিক প্রোগ্রামে কম্প্রিহেনসিভ ইনডেস্ক সেখানেও অবস্থান খুব একটা সুবিধাজনক না। তাই এগুলোর কারণে ব্যবসা এবং কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি করে। বাজেটে সম্ভবত বরাদ্দ বাড়ানো হয়েছে, কিন্তু পুরো বাজেট দেখতে পারলে তখন বোঝা যাবে যে প্রতিবন্ধকতার কথা আমরা বলেছি সেগুলো দূরীকরণের কোনো দিক নির্দেশনা আছে কি না।’

মির্জ্জা আজিজ বলেন, ‘বাজেট যেন শুধু বোর্ড বাজেটে পরিণত না হয় অর্থাৎ বাজেটের যে বরাদ্দই আছে এবং উদ্দেশ্য আহরণ, বৈদেশিক সাহায্য, বিভিন্ন খাদ্যে যে সমস্ত প্রণোদনা আছে, এগুলো যাতে যথাযথভাবে বাস্তবায়ন হয় সেই লক্ষ্যে কাজ করতে হবে।’ উৎস: ঢাকা টাইমস


আপনার মতামত লিখুন :

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ

error: Content is protected !!